শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:৪৭ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
ঈদের দিনে পীরগঞ্জে হাউজি জুয়া ! পরিবারের বিরুদ্ধে যুবককে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ পীরগঞ্জে নারী শিক্ষার বাতিঘর কসিমন নেছা বালিকা বিদ্যালয়ের ষাট বছর পূর্তি অনুষ্ঠান কাল গীতিকবি আব্দুর রহিম আর নেই এফসাকল এর শোক প্রকাশ পীরগঞ্জে আনসার  ভিডিপির প্লাটুন তালিকা  হালনাগাদ  করণ শুরু পীরগঞ্জে ম‌রণোত্তর বীমা দাবীর চেক প্রদান দিনাজপুর আইডিইবি মহিলা ও পরিবার কল্যাণ পরিষদের ইফতার দিনাজপুর জেলা আইনজীবী সমিতির কার্যকরী পরিষদের পরিচিতি সভা পার্বতীপুরে উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত মিঠাপুকুরে ভারপ্রাপ্ত মাদ্রাসা সুপারের বিরুদ্ধে অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগ

প্রস্ফুটিত মানব মুকুল

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : রবিবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২৩
  • ১২৬ বার পঠিত
মোঃ এমরান হোসাইন।-  প্রকৃতিতে আমরা হরেকরকম গাছ-গাছালী , তরু-লতা, গুল্ম প্রতিনিয়ত দেখতে পাই। নীরব সাধনা আর নানান  প্রতিকূল ধ্বংসাত্মক পরিস্থিতি মোকাবিলা করে তাদের ভেতরের সত্য কে সকলের জন্য প্রকাশ করে, অকাতরে বিলিয়ে দেয় তার সব রূপ, সৌন্দর্য আর প্রাপ্তি।

বৃক্ষের বৃদ্ধি আর পূর্ণতার পেছনে যেমন নীরব সাধনা রয়েছে তেমনি রয়েছে পরিচর্যা যেটা হয় প্রাকৃতিক অথবা কৃত্রিমভাবে। পরিমিত পরিচর্যা আর যত্নের ফলে বৃক্ষ তার ভেতরের সত্যকে প্রকৃষ্ট ভাবে প্রকাশ করতে পারে। বিলিয়ে দিতে পারে তার সব অর্জন সর্বসাধারণের জন্য, চাই সে সত্য হোক কিংবা ঝুট।  তার ভালোবাসা সকলের জন্য উন্মুক্ত থাকে। এমনিভাবে মানব মুকুলগুলো জন্মায় এই আলো আঁধারির মাঝে। সঠিক পরিচর্যা আর যত্নের অভাবে আঁধারে হারিয়ে যায় অনেকে। প্রস্ফুটিত হয়ে সৌরভ ছড়ানোর সুযোগটা হারিয়ে হতাশা আর আত্মদহনে দিনাতিপাত করে। তবে কিছু মুকুল আছে যা সত্যকে খোঁজে আর ফিরে পায় নতুন করে বাঁচার সাহস ও অনুপ্রেরণা। আজ সেই মানব মুকুল নিয়ে কিছু কথা পাঠকের উদ্দেশ্য লিখছি।

যে দিন থেকে মানব মুকুলগুলো পৃথিবীর বুকে তার রূপ, রং, সৌন্দর্য নিয়ে প্রস্ফুটিত হয়,  যে দিন থেকে সূর্য কিরণ, চাঁদের স্নিগ্ধতা, সমীরণের কমলাতা আর মৃত্তিকার সৌরভ গায়ে মাখিয়ে ধীরে ধীরে, নীরবে মানবদৃষ্টির মাঝে বেড়ে উঠে শত সহস্র স্বপ্ন আর দায়িত্ব নিয়ে। এই দায়িত্ব অর্পিত হয় সৃষ্টিগতভাবে স্রষ্টার পক্ষ থেকে। সত্যকে ধারণ করে সেই সত্য দিয়ে উঁচু-নিচু, ধনী-দরিদ্র,  সাদা- কালো, জাত্যভিমান আর মিথ্যার কালো ছায়া দূর করে ধৈর্য, সাম্য ও ন্যায়ের ভিত্তিতে আদর্শ দেশ ও মানব প্রেমিক তৈরি করাই তার প্রধানতম দায়িত্ব । পদ্মপাতায় জলের মতো এই জীবনের স্বার্থকতা খোঁজতে এমনি ব্রতী নিয়ে প্রস্ফুটিত হয় মানব মুকুলগুলো।
চোখে তার আগুন, হাতে সেই অগ্নি পতাকা,  মুখে তার সত্য, হৃদয় তার সেই সত্যের প্রতি বিশ্বাস নিয়ে ছুটে চলে  দিগন্তে। শূন্য হাতে বেড়ে উঠা মুকুলগুলো আজ পরিপূর্ণ ফুল হয়ে ফুটে উঠেছে।  তার জীবনের সকল সৌন্দর্য দৃশ্যমান সকলের কাছে। তার সৌরভ ছড়িয়ে পড়েছে মনব ইতিহাসের আলি-গলিতে। আধোআধো কথা বলে যে ভাষণের শুরু, তা আজ অগ্নিঝড়ায় জনসমুদ্রের হৃদয় উপকূলে। মন্থর স্রোতা পাহাড়ি তরঙ্গিনীর সর্পিল গতিতে নিয়ে আসে জোয়ার। তাদের ব্যক্তিত্ব আর চারিত্রিক দৃঢ়তার কাছে অবনত হয় পৃথিবীর সকল অপশক্তির শির। শ্লথ গতিতে হাঁটতে থাকা এই মানব মুকুলগুলো আজ আলোর গতিতে ছুটতে শিখেছে হাঁটপথে থেকে শুরু করে শত-সহস্র আলোকবর্ষ দূরের গ্রহ- উপগ্রহ নক্ষত্ররাজির সন্ধানে। তার পথ রুদ্ধ করার শক্তি নেই কারো, কারণ তার এই ছুটে চলা, পৃথিবীর সকল অন্যায়, অত্যাচার, নিপীড়ন আর যারা জুজুরভয় দেখিয়ে খোদার আদমকে মানব দাসত্বের শৃঙ্খলে অবরুদ্ধ  রাখতে চায় তাদের বিরুদ্ধে। তার যে পথ চলা মহাসত্যের জন্য তাতে কে বাঁধা দিয়ে অবরুদ্ধ করবে?
এই  দৃশ্যমান  প্রকৃতির মাঝে কত অদৃশ্য রহস্যঘন ঘটনা লুকিয়ে আছে। আর এই রহস্য উপলব্ধি করে,  পর্ণকুটির থেকে রাজপ্রাসাদ পর্যন্ত, নির্ধর অতি ক্ষুদ্র  তরুলতা থেকে  প্রকাণ্ড মহীরুহ পর্যন্ত, ক্ষুদ্র কীটপতঙ্গ থেকে দীর্ঘকায় নীল তিমি পর্যন্ত, পরমাণুর ন্যায় ক্ষুদ্র বস্তু কণা থেকে অপরিমেয় গ্রহ- নক্ষত্র পর্যন্ত,  মানব মনের গভীর থেকে গভীরতর  পর্যন্ত পর্যবেক্ষণ, গবেষণা ও বিশ্লেষণের মাধ্যমে সত্য ও ন্যায়ের  দৃষ্টান্ত উন্মোচন করতে এবং উপেক্ষিত, নির্যাতিত, অবহেলিত জনতার নির্বাক মনের অনুক্ত কথা প্রকাশ করতে নীরবে নিরবিচ্ছিন্ন ভাবে কাজ করে যায় এই অবিনাশী সত্যের ঝাণ্ডাধারী প্রস্ফুটিত ফুলগুলো।

প্রকৃতির  এই সব কিছুর মাঝে রয়েছে শৃঙ্খলা, ন্যায়-নীতির সর্বোৎকৃষ্ট উদাহরণ যা প্রতিনিয়ত আমাদেরকে সত্য ও ন্যায়ের পথে আসার নীরব আহ্বান করছে।
যখন এই প্রকৃতির নিয়ম ভঙ্গ হয়, স্বভাবতই বিপর্যয়ের স্রোত আমাদেরকে পূর্ণগ্রাস করে ফেলে। আমরা তো সর্বংসহা নই যে, স্রষ্টার এই সকল সৃষ্ট বিপর্যয় সহ্য করতে পারবো। জগদীশ্বরের সকল রহস্য আমাদের তো দৃষ্টাদৃষ্ট। আমরা না বুঝে বা গোঁড়ামি করে এই সত্য কে অস্বীকার করি, অবহেলা করি আর ক্ষুদ্র স্বার্থচরিতার্থ করার জন্য মহাসত্য পথের কাঁটা হয়ে বাঁধার প্রাচীর তৈরি করি। এই বাঁধা ডিঙ্গাতে, বিনাশ করতে মিথ্যের এই প্রাচীর সদা তৎপর থাকে সত্যের ধারক এই পারঙ্গম   প্রস্ফুটিত মুকুলগুলো।  শির উঁচু করে দাঁড়িয়ে থাকা অদ্রির মতো অবিচল এই মুকুলগুলো কখনো মিথ্যের বেড়াজালে বাঁধবে না সত্যকে, আটকাবে না সত্যের ধ্বজাধারীদের মার্গ, খর্ব করবে না তাদের স্বাধীনতা ও স্বকীয় বিশিষ্টতাকে।
আত্মবিশ্বাস আর দৃঢ়তা দিয়ে অকুতোভয় দুঃসাহসী এই ফুলগুলো রুখে দিবে  ষড়যন্ত্রকারীর কূট বুদ্ধিতে ঋদ্ধ, দুঃসাধ্য ও দুর্দম্য সকল পদক্ষেপ ও কার্যক্রম। সেই প্রত্যাশা নিয়েই বেঁচে আছে মানব ইতিহাসের পথে পথে  সত্যের ধারক বাহক এই সকল পবিত্র মানব মুকুল। আমি মুক্ত ডানার পাখি তেমনি এক অগ্নি মানব মুকুল যে সকল ঝুট বিনাশ করতে ও সত্যকে মানব হৃদয়ে প্রস্ফুটিত করতে আত্মত্যাগী ও নিঃস্বার্থ রূপে আবির্ভাব হয়েছে ।  আমারি মতো অজুত লক্ষ নিযুত কোটি কলিকা আজ হারিয়ে যাচ্ছে অন্ধকার ঘোর অমানিশার মাঝে। তারা মুছে যাচ্ছে কালানুক্রমিক অতীত কাহিনীর মধ্যে। কেউ আজ তার খোঁজ জানে না, জানে না তার পরিচয়। যে দিন থেকে আত্মপরিচয়হীন হয়ে তমিস্রের মাঝে অবগাহন করেছে, কর্তব্য বিস্মৃত হয়ে মিথ্যার কাছে নিজেকে সোপর্দ করেছে, সে দিন থেকে তাঁকেও ভুলতে শিখেছে ইতিহাসের পাতা। উত্তাল জলের ঢেউয়ের দোলায় বাসতে ভাসতে যে সত্যকে সকলের কাছে পৌঁছে দেয়ার কথা ছিলো, সে আজ নিথর শান্ত জলে ডুবিয়ে দিয়েছে তার সত্যকে, মিথ্যার কালো জল গ্রাস করেছে তার আত্মপরিচয়কে, নিষ্প্রভ করেছে তার ভেতরের  দীপ্তাংশু সত্যের পূষাকে।
তাই আমাদের উচিৎ প্রকৃতিতে জন্মানো এই সকল মুকুলকে যথাযথ পরিচর্যা,  সম্মান ও প্রণোদন দিয়ে তার ভেতরের সত্যকে প্রকাশ করার ও তার সৌরভ সকলের মাঝে ছড়িয়ে দিয়ে আদর্শ ও ন্যায়ের সমাজ বাস্তবায়নে সাহায্য করা এবং অভিপ্রেত সকল অন্যায়, অত্যাচর থেকে মানব সমাজকে রক্ষা করা।
শত-সহস্ররূপে ফুটে উঠুক  এই সকল মানব মুকুল এই বিস্তৃতিত  ধরণীতলে , বেড়ে উঠুক মুক্ত ডানার বিহঙ্গের মতো স্বাধীন চেতা মনোভাব নিয়ে,  ছড়িয়ে দিক সত্যের সৌরভ আর উড়িয়ে নিক সত্য ও ন্যায়ের অগ্নিঝাণ্ডা দিগন্তের এ পথ হতে ও পথে, ইতিহাসের এ পরিচ্ছেদ হতে ও পরিচ্ছদে, কালের এ অধ্যায় থেকে অন্য অধ্যায়ে। আকৃষ্ট করুক ঝুটধারী নির্বোধ মানব মুকুলগুলোকে সত্যের সৌন্দর্য দিয়ে। সত্যের  পীযূষ পানে পরিতৃপ্ত হোক মানবাত্মা, খোঁজে পাক জঙ্গলাকীর্ণ পাহাড়ি বন্ধুর পথে নিরাপদ আশ্রয় ৷ সম্বিৎ ফিরে আসুক তাদের মাঝে , অশ্রুসিক্ত লোচনে অবনত হোক তাদের শির তার প্রতি যিনি মহাসত্য। তাদের পদরেণুতে নিপাত যাক পৃথ্বীর সকল নিগ্রহ আর খুঁতখুঁতে মনোভাব৷ নিষ্কলুষ মানব মুকুলে ভরে উঠুক আমাদের এই বাসস্থান। জ্যোন্সা-বিধৌত সমুদ্রের বেলাভূমিতে দাঁড়িয়ে গ্রহণ করুক  স্বচ্ছ প্রভঞ্জন, উপলব্ধি করুক মহাসত্যের শীতল স্পর্শ।  এই প্রত্যাশা নিয়ে বেঁচে আছে আমারি মতো শত-সহস্রা মুক্ত ডানার পাখি ।

( লেখক-মুক্ত ডানার পাখি সেশন: ২০২১-২০২২ ইং ইসলামিক স্টাডিস বিভাগ, ঢাবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com