বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ০২:৪১ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
পার্বতীপুরে গুরুত্ব ও সচেতনতা বিষয়ক কর্মশালা পার্বতীপুরের রেলওয়ে কেন্দ্রীয় লোকোমোটিভ কারখানায় স্বল্প জনবল দিয়েই চলছে নির্ধারিত কার্যক্রম রাজাকাররা কোটার নামে দেশে নৈরাজ্য সৃষ্টির চেষ্টা করছে -হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি বড়পুকুরিয়ায় ১২টি গ্রাম  ক্ষতিপূরণের দাবিতে মানববন্ধন পার্বতীপুরের বড়পুকুরিয়া জীবন ও সম্পদ রক্ষা কমিটির মানববন্ধন পীরগঞ্জ সাঈদের দাফন সম্পন্ন কোটা বিরোধী আন্দোলনে নিহত শিক্ষার্থী সাঈদের বাড়ীতে শোকের মাতম নেটওয়ার্কের সক্ষমতা বাড়াতে এআই যুক্ত করার ঘোষণা হুয়াওয়ের রংপুরে কোটা বিরোধী আন্দোলন এক শিক্ষার্থী নিহত তৃণমূল পর্যায়ে চিকিৎসার মান উন্নত করলে বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিক রোগী শুন্য হবে-স্বাস্থ্যমন্ত্রী  

বগুড়ার নারীরা ছনের ডালা বুনিয়ে ভাগ্যের উন্নতি ঘটাতে ব্যস্ত

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : বুধবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৫২৮ বার পঠিত
dav

উত্তম সরকার, বগুড়া থেকে।- বগুড়া জেলার শেরপুর উপজেলার খানপুর ইউনিয়নের প্রত্যন্ত পল্লী গ্রাম গোপালপুর। রাস্তার পাশ দিয়ে যেতেই দেখা যায় ৮ থেকে ১০ জন বুনিয়াতি শিল্পীরা গোলাকার হয়ে বসে হাতের নিপুন ছোঁয়ায় ছন দিয়ে ডালা বুনাচ্ছেন। তাদের হাতের ছোঁয়ায় তৈরী বিভিন্ন প্রকার ছনের ডালা যাচ্ছে সুদর আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া, পাকিস্তান, চীনসহ কয়েকটি দেশে। এই ছনের ডালা বুনিয়ে দারিদ্রতা ঘোচাতে চায় তারা । সংসারের কাজের পাশাপাশি এ কাজ করে তারা মাসিক তিন থেকে চার হাজার টাকা আয় করছেন। শুধু গোপালপুর নয়। উপজেলার হাঁপুনিয়া, টুনিপাড়া, খামারকান্দি, গাড়িদহ, কেল্লা, ভাতারিয়াসহ বেশ কয়েকটি গ্রামের শতশত নারীরা ছনের ডালা বুনিয়ে সংসারের উন্নতি ও স্বামীকে আর্থিক সহযোগিতা করছেন। তবে পুঁজি না থাকায় অন্যের কন্ট্রাকে কাজ করতে হচ্ছে তাদের।
গোপালপুর গ্রামের সামছুল শেখের মেয়ে তারা বানু জানান, ছোট বড় ৪টি ডালা মিলে ১টি সেট হয়। সেই একসেট ডালা বুনিয়ে আমরা ৪৫০ টাকা পাই। প্রতি সপ্তাহে আমরা ২ সেট ডালা বুনাতে পারি।
আলম আকন্দের স্ত্রী আন্না খাতুন, তাহের আকন্দের স্ত্রী কুলসুম বেগম জানান, আমরা গরীব মানুষ। আমাদের টাকা পয়সা নাই। তাই অন্যের কন্ট্রাকের কাজ করি। করোনা ভাইরাসের কারণে ছেলে মেয়েদের স্কুল বন্ধ থাকায় তারা আমাদের সহযোগিতা করছে বলেই একটু বেশি ডালা বুনাতে পারছি। তাছাড়া যাদের কাজ করি তারা আমাদের সপ্তাহের টাকা সপ্তাহে দিতে পারেনা। তাতে আমাদের খুব সমস্যা হয়। সরকার যদি আমাদের জন্য কিছু প্রণদোনার ব্যবস্থা করতো তাহলে আমরাও স্বাবলম্বী হতাম।

এ ব্যাপারে কন্ট্রাক্টর আব্দুস সালাম বলেন, আমাদের নিজের টাকায় ডালা বুনানোর জিনিসপত্র কিনতে হয়। তাই মাঝে মাঝে উদ্যোক্তা নারীদের সপ্তাহের টাকা সপ্তাহে দিতে পারিনা। তাছাড়া যাদের সরকারি সুবিধা পাওয়ার কথা তারা পায় না। পাচ্ছে ঢাকার বড় বড় মহাজনরা। অথচ যাদের হাতের ছোঁয়ায় দেশের এই প্রাপ্তি তারা হচ্ছে বঞ্চিত।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা মো. লিয়াকত আলী সেখ বলেন, এই উপজেলায় যারা নারী উদ্যোক্তা আছেন তাদের বিভিন্ন বিষয়ের উপর প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। যারা প্রশিক্ষণ পায় নাই তাদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হবে। সরকারি ভাবে যে সকল প্রকল্প দেয়া হয় প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত উদ্যোক্তাদের মাঝে তা বন্টন করা হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নারী উদ্যোক্তাদের উপর খুব গুরুত্ব দিয়েছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com