1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ০৪:২৯ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
পলাশবাড়ীতে ট্রাক চাপায় নিহত ১০ বছরের শিশু ইসমাঈল  সাপাহারে ফাইনাল ফুটবল খেলা অনুষ্ঠিত ঘোড়াঘাটে আইন শৃঙ্খলা সভা অনুষ্ঠিত  নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে বিরামপুরে পল্লীশ্রীর উদ্যোগে গণশুনানী অনুষ্ঠিত শেরপুরে কাজুবাদাম চাষাবাদ বিষয়ক ৩ দিনের প্রশিক্ষণ যারা এদেশের স্বাধীনতা ও উন্নয়ন মেনে নিতে পারেনি তারাই সাম্প্রদায়িক অপতৎপরতা চালাচ্ছে -এইচ মাহমুদ আলী এমপি ধর্মান্ধ রাজনীতির বলি হচ্ছে সংখ্যালঘুরা – ডাঃ জাফরউল্লাহ চৌধুরী পলাশবাড়ীর ৬ ইউপি’তে নৌকা প্রত্যাশী তিন ডজন জামায়াতের এক জন বিরামপুরে পবিত্র ঈদ-ই-মিলাদুন্নবী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়ি ঘরে হামলা অগ্নি সংযোগের প্রতিবাদে পীরগঞ্জে মানববন্ধন

বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িত খুনিদের সব ধরনের মদদ দিয়েছিল জিয়াউর রহমান – প্রধানমন্ত্রী

  • আপডেট সময় : সোমবার, ১৭ আগস্ট, ২০২০
  • ৫০ বার পঠিত

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ১৬ আগস্ট বিকালে বঙ্গবন্ধু এভিনিউর কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আওয়ামী লীগ আয়োজিত স্মরণসভায় (ভার্চুয়াল) গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে সভাপতির বক্তব্যে বলেছেন, বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িত খুনিদের সব ধরনের মদদ দিয়েছিল এই জিয়াউর রহমান।
তিনি আরো বলেছেন ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং পরিবারের সদস্যদের হত্যাকান্ডের ঘটনায় সরাসরি জড়িত ছিল জিয়াউর রহমান। বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের বিচার না করার ইনডেমনিটি দিয়েছিল। খুনের সঙ্গে জড়িত ছিল বলেই বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের পর গঠিত আন্তর্জাতিক তদন্ত কমিশনের চেয়ারম্যান টমাস উইলিয়ামকে বাংলাদেশে আসার ভিসা দেয়নি জিয়াউর রহমান।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুজিববর্ষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর নামে শপথ নিয়ে বলেন, মুজিববর্ষে পিতা তোমায় কথা দিলাম, তোমার বাংলার দুঃখী মানুষের মুখে আমরা হাসি ফোটাবই। এই বাংলা বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে চলবে। এই বাংলার মানুষ উন্নত জীবন পাবে- এটাই আমাদের প্রতিজ্ঞা, এটাই আমাদের শপথ। তিনি বলেন,
বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িত খুনিদের সব ধরনের মদদ দিয়েছিল এই জিয়াউর রহমান।
শেখ হাসিনা বলেন, খুনিরা নিজেরাই সাক্ষাৎকার দিয়ে বলেছে যে, জিয়াউর রহমানের মদদেই তারা বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ড ঘটাতে সক্ষম হয়েছে। শুধু জিয়াই নয়, তার স্ত্রী খালেদা জিয়াও খুনিদের মদদ দেওয়াসহ একই কাজ করেছে। তার স্বামী (জিয়াউর রহমান) দিয়ে গেছেন জাতির পিতার হত্যাকারীদের ইনডেমনিটি, আর তিনি (খালেদা জিয়া) এসে নির্বিচারে মানুষ হত্যা করে তাদের ইনডেমনিটি দিয়ে গেছেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে আওয়ামী লীগের এই আলোচনা সভায় দলীয় কেন্দ্রীয় কার্যালয় প্রান্ত থেকে আলোচনায় অংশ নেন দলের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য আ খ ম জাহাঙ্গীর হোসাইন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আবু আহমেদ মন্নাফি ও উত্তরের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান।
কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপের সভাপতিত্বে আলোচনা সভার শুরুতেই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুসহ ১৫ আগস্ট শহীদ বঙ্গবন্ধু পরিবারের সব সদস্যের রুহের মাগফিরাত কামনা করে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। আবেগজড়িত কণ্ঠে প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে নস্যাৎ করে দিতেই বঙ্গবন্ধুসহ আমাদের পরিবারের সব সদস্যকে হত্যা করা হয়। খুনি রশিদ, ফারুক, হুদা, ডালিম, নূর, শাহরিয়ার, মাজেদ এরা সবাই সেনাবাহিনীর সদস্য ছিল। বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করতে কে তাদের মদদ দিয়েছিল? উৎসাহিত করেছিল? তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুরই ক্যাবিনেটের মন্ত্রী বেইমান মোশতাক ও জিয়াউর রহমানরা জড়িত ছিল। অথচ এই জিয়াউর রহমানকে মেজর থেকে মেজর জেনারেল পর্যন্ত পদোন্নতি দিয়েছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুই। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের পর বিবিসিতে সাক্ষাৎকার দিয়ে খুনি কর্নেল রশিদ ও ফারুক নিজেরাই বলেছে, জিয়াউর রহমানের মদদেই এই হত্যাকান্ড (বঙ্গবন্ধু) ঘটাতে তারা সক্ষম হয়েছে।
এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের পর নিয়ম ভেঙে বেইমান মোশতাককে রাষ্ট্রপতি করা হয়। আর রাষ্ট্রপতি হয়েই মোশতাক জিয়াউর রহমানকে সেনাপ্রধান বানায়। বঙ্গবন্ধুর খুনিদের সব ধরনের মদদ দিয়েছিল এই জিয়াই। তিনি বলেন, বেইমান-মীরজাফররা বেশি দিন ক্ষমতায় থাকতে পারে না। মীরজাফরও তিন মাসের বেশি ক্ষমতায় থাকতে পারেনি, খুনি মোশতাকও পারেনি। শেখ হাসিনা বলেন, ১৫ আগস্ট ও ৩ নভেম্বর জেল হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িত খুনিদের বিদেশে পাঠানো, বিদেশে আশ্রয়ের ব্যবস্থা করা, বিভিন্ন দূতাবাসে চাকরি দিয়ে পুরস্কৃত করেছিল এই জিয়াউর রহমান। বঙ্গবন্ধুর খুনিদের যাতে বিচার না হয় সেজন্য ইনডেমনিটি জারি করা হয়েছিল। আমাদের বিচার চাওয়ার কোনো অধিকার ছিল না, সেটি পর্যন্ত কেড়ে নেওয়া হয়েছিল। তিনি বলেন, সপরিবারে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেই শেষ হয়নি, বঙ্গবন্ধু পরিবারের আর কে কে বেঁচে আছে তাদের খুঁজে বের করার চেষ্টা করা হয়। ভয়ে আমাদের পরিবারের যারা বেঁচে ছিলেন তারা অনেকেই ভারতে গিয়ে আশ্রয় নেয়। সংবিধানকে ক্ষতবিক্ষত করে বঙ্গবন্ধুর নাম উচ্চারণ নিষিদ্ধ করা হয়, কেউ নাম নিলে তার খোঁজ পর্যন্ত পাওয়া যায়নি।
দীর্ঘ ছয় বছর রিফিউজি হিসেবে দেশের বাইরে থাকার পর ১৯৮১ সালে দেশে ফিরলে তাঁকে ধানমন্ডির ৩২ নম্বরের বাড়িতে জিয়াউর রহমান ঢুকতে দেয়নি উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমাকে আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত করার পর যখন দেশে ফিরে আসি, তখন আমাকে ৩২ নম্বরের বাড়িতে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। রাস্তায় বসে বঙ্গবন্ধুসহ পরিবারের সদস্যদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে দোয়া-মোনাজাত করেছি।ওই সময়ের পরিস্থিতির বর্ণনা করতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের পর ইতিহাসকে বিকৃত করা হয়। স্বাধীনতাবিরোধী, একাত্তরের গণহত্যাকারীদের মদদদানকারী, রাজাকার-আলবদর-আলশামসদের জিয়াউর রহমান প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী, উপদেষ্টা বানায়, রাজনীতি করার সুযোগ দেয় এবং নিষিদ্ধ থাকা ভোটের অধিকারও তাদের ফিরিয়ে দেয়।
উচ্চ আদালতের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, সেনাবাহিনীর রুলস অ্যান্ড রেগুলেশন ভঙ্গ করে একাধারে সেনাপ্রধান ও রাষ্ট্রপতি পদে প্রার্থী হয়ে এই জিয়া সঙ্গীনের খোঁচায় সংবিধানকে ক্ষতবিক্ষত করে। উচ্চ আদালতের প্রতি কৃতজ্ঞতা যে, তারা পরবর্তীতে একটা রায় দিয়ে বলেছে, ’৭৫-পরবর্তী সকল ক্ষমতা দখল অবৈধ এবং ওই সময়ে জারিকৃত অডির্ন্যান্সগুলোও বাতিল করার আদেশ দেওয়া হয়। এই রায়ের মাধ্যমে পুরো জাতিকে এক অশুভ অভিশাপ থেকে মুক্ত করেছে আমাদের উচ্চ আদালত।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com