রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ১২:২৮ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
পার্বতীপুরে গুরুত্ব ও সচেতনতা বিষয়ক কর্মশালা পার্বতীপুরের রেলওয়ে কেন্দ্রীয় লোকোমোটিভ কারখানায় স্বল্প জনবল দিয়েই চলছে নির্ধারিত কার্যক্রম রাজাকাররা কোটার নামে দেশে নৈরাজ্য সৃষ্টির চেষ্টা করছে -হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি বড়পুকুরিয়ায় ১২টি গ্রাম  ক্ষতিপূরণের দাবিতে মানববন্ধন পার্বতীপুরের বড়পুকুরিয়া জীবন ও সম্পদ রক্ষা কমিটির মানববন্ধন পীরগঞ্জ সাঈদের দাফন সম্পন্ন কোটা বিরোধী আন্দোলনে নিহত শিক্ষার্থী সাঈদের বাড়ীতে শোকের মাতম নেটওয়ার্কের সক্ষমতা বাড়াতে এআই যুক্ত করার ঘোষণা হুয়াওয়ের রংপুরে কোটা বিরোধী আন্দোলন এক শিক্ষার্থী নিহত তৃণমূল পর্যায়ে চিকিৎসার মান উন্নত করলে বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিক রোগী শুন্য হবে-স্বাস্থ্যমন্ত্রী  

বন্যা পরিস্থিতির অবনতি ১৮ জেলা প্লাবিত ৮ জনের মৃত্যু : পানিবন্দি প্রায় ৫ লাখ মানুষ, পানি বৃদ্ধির আশংকা

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : শনিবার, ১৮ জুলাই, ২০২০
  • ৫৩৯ বার পঠিত

সুবল চন্দ্র দাস।- দেশে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে ১৮ জেলায় বন্যায় প্লাবিত। তবে শুক্রবার ও আজ শনিবার পদ্মা অববাহিকা এলাকায় পানি আরো বাড়বে। প্লাবিত জেলাগুলোর ৯২টি উপজেলা ও ৫৩৫টি ইউনিয়নে বন্যায় মোট ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের সংখ্যা ২২ লাখ ৪৬ হাজার ৪৭২ জন। বন্যায় জামালপুরে ৪ জন এবং লালমনিরহাট, সুনামগঞ্জ, সিলেট ও টাঙ্গাইলে ১ জন করে মোট ৮ জন মারা গেছেন। পানিবন্দি ৪ লাখ ৮৭ হাজার ৩৭৬টি পরিবার। বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে অনলাইন সাংবাদিক সম্মেলনে এ তথ্য জানান দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান। এ সময় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ সচিব মো. মোহসীন উপস্থিতি ছিলেন। প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান আরো বলেন, এবারের বন্যা দীর্ঘস্থায়ী হবে না বলে আমরা আশা করছি। কারণ নদ-নদীর পানি কমতে শুরু করেছে। যেসব নদীর পানি বাড়ছে সেগুলোর পানি শনিবারের মধ্যে কমতে শুরু করবে বলে পূর্বাভাস রয়েছে। বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের প্রতিবেদন তুলে ধরে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ব্রহ্মপুত্র নদের পানি স্থিতিশীল রয়েছে। অপরদিকে যমুনা নদীর পানি বাড়ছে। শনিবারের মধ্যে ব্রহ্মপুত্র নদের পানি কমতে শুরু করবে এবং যমুনা নদীর পানি স্থিতিশীল হবে। তিনি বলেন, গঙ্গা-পদ্মার নদীর পানি বাড়ছে। আজ শনিবার পর্যন্ত এ পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকবে। কুশিয়ারা ছাড়া উত্তর-পূর্বাঞ্চলের আপার মেঘনার প্রধান নদীগুলোর পানি কমছে, যা আজ শনিবার পযন্ত অব্যাহত থাকবে। তবে গতকাল শুক্রবার সিলেট, সুনামগঞ্জ ও কুড়িগ্রাম জেলার বন্যা পরিস্থিতি উন্নতি হতে পারে। অপর দিকে গাইবান্ধা, বগুড়া, জামালপুর, নাটোর ও নওগাঁ জেলার বন্যা পরিস্থিতি স্থিতিশীল থাকতে পারে। সিরাজগঞ্জ, টাঙ্গাইল, মানিকগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, ফরিদপুর, মাদারীপুর, শরিয়তপুর, রাজবাড়ী ও ঢাকার নিম্নাঞ্চলের বন্যা পরিস্থিতি অবনতি হতে পারে। বন্যায় আক্রান্ত ১২ জেলায় ১ হাজার ৫৪৪টি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে জানিয়ে ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী বলেন, আশয় কেন্দ্র ্রগুলোতে ৩০ হাজার ৭০৫ জন মানুষ এবং ৫৬ হাজার ৩১টি গবাদিপশু আশ্রয় নিয়েছে। আশ্রয় কেন্দ্রে আনসার, গ্রাম পুলিশ, স্বেচ্ছাসেবক ও এনজিও প্রতিনিধিরা কাজ করছেন। বন্যার কারণে সরকার ৫৯৬টি মেডিকেল টিম গঠন করেছে জানিয়ে তিনি বলেন, এর মধ্যে বর্তমানে ১৯৭টি টিম কাজ করছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে আশ্রয় কেন্দ্র গুলোতে রান্না করা খাবার দেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রতিমন্ত্রী। তিনি বলেন, কোভিড-১৯ সংক্রমণের মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে আশ্রয় কেন্দ্রে শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে সবাইকে মাস্ক ব্যবহারের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। ধানকাটা শেষ হওয়ায় বন্যায় ধানের ক্ষতি হয়নি জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, পাট, ডাল ও শাকসবজির ক্ষতি হয়েছে। আমন ধানের বীজতলা ক্ষতি গ্রস্থ হয়েছে, কৃষি মন্ত্রণালয় উঁচু জায়গায় আমনের বীজতলা করে কৃষকদের বিনামূল্যে তা সরবরাহ করবে। ত্রাণ কার্যক্রম নিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, আক্রান্ত এলাকায় ৪ হাজার ৮৫০ টন চাল বিতরণ এবং ১ কোটি ৯১ লাখ টাকা নগদ বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এছাড়া শুকনা খাবার বিতরণ করা হয়েছে ৩৫ হাজার ৮২২ প্যাকেট। শিশুখাদ্য কেনা বাবদ ২১ লাখ ও পশু খাদ্যের জন্য ২১ লাখ টাকা খরচ করা হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com