বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ০৩:২৩ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
রংপুর বিভাগের নব নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান- ভাইস চেয়ারম্যানের শপথগ্রহণ রংপুর সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন প্রার্থী আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা মর্যাদার লড়াই জাতীয় পার্টির বিরামপুর পুলিশ বক্স ও বিট পুলিশিং কার্যালয়ের উদ্বোধন নদীর ভাঙন প্রতিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি রাস্তা পাকাকরণ কাজে ব্যাপক অনিয়ম  দেখার কেউ নেই “স্বাধীনতা সুবর্ণ জয়ন্তী পুরস্কার ২০২৩” পেল প্রাইম ব্যাংক ইনভেস্টমেন্ট রংপুরে যুবদল নেতা নয়নের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত রংপুর নগরীতে  বাড়িতে হামলা সরকারি জমি থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ  বিরামপুরে প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহে মা দিবস অনুষ্ঠিত

বিপন্ন জৈববৈচিত্র্য

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ৩০ জুলাই, ২০২০
  • ৫৮৮ বার পঠিত

-এ.কে.এম. বজলুল হক

(পূর্ব প্রকাশের পর)

দূষণমুক্ত মেগাডাইভারসিটি নামক আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন সুন্দরবন কেন ‘বায়োস্ফিয়ার রিজার্ভ’ বলে আখ্যায়িত হলে?

সুন্দরবনের বাস্তুতন্ত্র একটি গতিশীল অবস্থায় থাকে। সমুদ্রের জোয়ার- ডাটার সঙ্গে সঙ্গে অরণ্যের প্লাবিত অঞ্চলের তারমত্য ঘটে লবণাক্ততার। ম্যানগ্রোভ অঞ্চল হওয়ায় ইহা জীব বৈচিত্র্যের ভরপুর। এখানে ভুমি, জঙ্গল এবং জলে হরেকরকম ইকোসিস্টেমের সংমিশ্রণ লক্ষ্য করা যায়। দীর্ঘদিন ধরে সুন্দরবন সমুদ্র উপকুলবর্তী অঞ্চলের ভূমিক্ষয় থেকে রক্ষা, সামুদ্রিক ঝড়ের প্রাবল্য থেকে রক্ষা, পুষ্টিদায়ক বস্তুর ভান্ডার হিসাবে কাজ এবং মানুষের অর্থনৈতিক চাহিদা পূরণ করে আসছে। বাস্তুতন্ত্রের গুরুত্বের জন্যই UNESCO বিশ্ব ঐতিহ্য তালিকায় (World Heritage List) এর নাম অন্তর্ভুক্ত করেছে ১৯৮৭ সালে। পৃথিবীর ২১টি দূষণমুক্ত অঞ্চলের মধ্যে রাখা হয়েছে সুন্দরবনকে। অনেকে বলেন দূষিত কোলকাতার ফুসফুস। দক্ষিণ ভারতের বিস্তীর্ণ অঞ্চলের বৃষ্টিপাতের কারণও এই বনাঞ্চল। পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ম্যানগ্রোভ অরণ্য, সুন্দরবনের মোট আয়তন ৯,৬৩০ বর্গকিমি। এর অবস্থান ২১’৩০ ডিগ্রী থেকে ২২’৩০ ডিগ্রী  উত্তর অক্ষাংশ ও ৮৮ ডিগ্রী থেকে ৮৯ ’১০ ডিগ্রী পূর্ব দ্রাঘিমাংশ। এই অরণ্যের দুই-তৃতীয়াংশ বাংলাদেশে এবং এক-তৃতীয়াংশ পশ্চিমবঙ্গে অবস্থিত। বঙ্গ সমস্যা সুন্দরবনকে গ্রাস করেছে। একদিকে জনসংখ্যা বৃদ্ধি এর ফলস্বরূপ গৃহনির্মাণ, চাষ আবাদ, জ্বালানি কাঠের চাহিদা বৃদ্ধি অন্যদিকে ব্যাপক চিংড়ি চাষ অন্যান্য মাছের ডিম ও চারা বিনষ্ট করে বাস্তুতন্ত্রের ব্যাপক ক্ষতি করছে। দুষণ বা অন্যান্য প্রাকৃতিক কারণে এই অঞ্চলের জীবমন্ডলের ভারসাম্য নষ্ট হলে IUCN ১৯৮৯ সালে এক বায়োস্ফিয়ার রিজার্ভ বলে ঘোষণা করে। এখানে গড়ে উঠেছে অভয়ারণ্য ও বিভিন্নপ্রকল্প জৈব বৈচিত্র্যকে টিকিয়ে রাখার জন্য। এই রকম জীববৈচিত্র্য সম্বলিত স্পর্শকাতর অঞ্চলে কৃষকপ্রেমী, মানবদরদী, সমাজতন্ত্রে বিশ্বাসী পশ্চিমবঙ্গ সরকার ইকোট্যুারিজম ( Eco Tourism) প্রকল্প চালু করতে চলেছেন। এই না হলে সমাজতন্ত্র। পশু আর মানুষের মধ্যে কেন পার্থক্য থাকবে? তাই জঙ্গলে পশুদের সঙ্গে আমাদেরও আরাম আয়েসের কথা মাথায় রেখে সমাজতন্ত্রে বিশ্বাসী মার্কসাবীদ পশ্চিমবঙ্গ সরকার হোটেল, ফ্লোটেল, ড্যান্সবার, ক্যাসিনো গড়বেন বলে বদ্ধপরিকর। মাত্র ৭০০ কোটি টাকার এই প্রকল্পের জন্য প্রয়োজন হবে মাত্র ৩০৩.৫ হেক্টর জমি। আর সরকারের সঙ্গে ইকোসিস্টেমের কথা মাথায় রেখে ইকট্যুরিজম যিনি গড়বেন তিনি হচ্ছেন জনদরদী, পরিবেশ সচেতন পুঁজিপতি সাহারা ইন্ডিয়া পরিবার। পরিবেশ বিজ্ঞানীদের এ থেকে শিক্ষা নেওয়া উচিৎ যে ইকোট্যুরিজম দ্বারা ইকোসিস্টেম রক্ষা করা যায়। জিন এবং পরিবেশ আমাদের পাল্টে দেয়। পরিবর্তনশীল রাষ্ট্রীয় পরিবেশে নেকড়ে হায়েনা কিংবা চীতার তো অভাব নেই। শুধু যেটুকু অভাব সেটা হচ্ছে কিছু গাছপালা। সেই অভাব পূরণ হলেই পুরো রাষ্ট্রকে, জঙ্গলের আখ্যা দেওয়া যাবে। ফলে জীববৈচিত্যের অভাব অনেকটাই পূরণ হবে, এ বিষয়ে কোনও সন্দেহ নেই। দুর্ভাগ্য মার্কস এবং ডারউইনের উনারা দেখে যেতে পারলেন না সমাজতন্ত্রের মিউটেশন। আপনাদের অনেকেরই জানান পিয়ালী নদীর উপর বাঁধ সৃষ্টির ফলে সুন্দরবন অঞ্চরের ভয়াবহ প্রাকৃতিক সমস্যার কথা। এসব জেনেওে বর্তমানে পানীয় জলের সরবরাহ মৎস্যচাষ ও চাষাবাদের জন্য তৈরি হতে চলেছে হুকাহারানিয়া প্রজেক্ট। সাধারণ মানুষের স্বার্থে এবং দুষণের হাত থেকে জীববৈচিত্র্যকে রক্ষা করতে বুদ্ধিজীবী, পরিবেশ বিজ্ঞানী এবং সাধারণ মানুষ। সমবেত হয়ে এই অন্যায়ের বিরুদ্ধে গর্জে উঠেছিল ফলে পশ্চিমবঙ্গ সরকার ২০০৫ সালে সেখানে একটা কনভেনশন করে এবং ক্ষতির কথা স্বীকার করে। ‘দক্ষিণ সুন্দরবন মৎস্যজীবী’, মৎস্যজীবী কর্মচারী ইউনিয়ন এই প্রজেক্ট এর বিরুদ্ধে রাজ্যের উচ্চ আদালতের দ্বারস্থ হন। একথা পরিস্কার যে বর্তমানে কোর্টের গ্রীণবেঞ্চ এর উপর একটা ইনজাংশন জারি করে পরিবেশকে বাঁচাতে এবং জীববৈচিত্র্যকে রক্ষা করতে। এই প্রজেক্ট চালু হলে সাধারণ মানুষ এবং প্রাকৃতিক পরিবেশ বিভিন্নভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে- ক) সাধারণ মানুষের যোগাযোগ ব্যভস্থা বিচ্ছিন্ন হবে ফলে বিদ্যালয় হাসপাতালে ইচ্ছামতো সঠিক সময় পৌঁছাতে পারবে না। মৎসচাষীরা যারা এই পথ ধরে ঢাকী এবং রাইডিঘিতে মৎস্যবিক্রির জন্য যাতায়াত করেন তারা বাধাপ্রাপ্ত হবেন। এককথায় সর্বসাধারণের যোগাযোগের ন্যূনতম সুযোগটুকুও হাতছাড়া হয়ে যাবে। খ) নদীবক্ষে বাঁধ দিলে জোয়ার ভাটার সময় নদীর প্রাকৃতিক গতি নিয়ন্ত্রণ হারাবে ফলে পার্শ্ববর্তী  অঞ্চলের শতশত একর জমি প্লাবিত হবে বর্ষাকলে। জোয়ারের সময় লবণাক্ত জলে স্নাত হবে বিস্তীর্ণ এলাকা।
গ) সুন্দরবনের বায়োস্ফিয়ার রিজার্ভ-এর যথেষ্ট ক্ষতি হবে। এই অঞ্চলের বহু উদ্ভিদ ও প্রাণী প্রজাতি উপযুক্ত প্রাকৃতিক পরিবেশের অর্থাৎ ইকোলজিক্যাল নিচ-এর অভাবে মারা পড়বে। ফলে সুন্দরবনের ইকোসিস্টেম ধ্বংস হবে। ধ্বংস হবে জীববৈচিত্র্য।
ঘ) ম্যানগ্রোভ জাতীয় উদ্ভিদের বিনাস নদীর খাদ্য শৃঙ্খলকে বিঘ্নিত করবে ফলে বহু মৎস্যপ্রজাতির বিলুপ্তি ঘটবে।
(চলবে) 

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com