শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০৬:৫৩ পূর্বাহ্ন

বিপন্ন জৈববৈচিত্র্য

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : সোমবার, ২৭ জুলাই, ২০২০
  • ১৮২ বার পঠিত

-এ. কে.এম. বজলুল হক

এঙ্গেলস বলেছেন, ‘‘বিজেতা জাতি যেমন করে বিজিত জাতির ওপর আধিপত্য বিস্তার করে আমরা কোনো অর্থেই সেভাবে প্রকৃতির বাইরে দাঁড়িয়ে প্রকৃতির ওপর প্রভুত্ব করি না। বরং, রক্ত-মাংস, আর মস্তিস্ক নিয়ে আমরা প্রকৃতির অন্তর্ভুক্ত, প্রকৃতির মধ্যে আমাদের অস্তিত্ব। প্রকৃতির ওপর আমাদের সমস্ত প্রভুত্ব এইখানে যে অন্য সকল জীবের চেয়ে আমাদের সুবিধা আমরা প্রকৃতির নিয়ম আয়ত্ব করতে ও নির্ভুলভাবে প্রয়াগ করতে সক্ষম।’’ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির বিকাশ মানুষের বহু আশা পূরনে সক্ষম হয়েছে। ধীরে ধীরে উন্মোচিত হয়েছে প্রকৃতির রহস্য। আজকে আমরা জেনেছি বনভুমির সঙ্গে, নদীব্যবস্থার সঙ্গে বন্যা, ক্ষরা, স্বাভাবিক বৃষ্টিপাত ও ভুগর্ভের জল ভান্ডারের কার্যকারণ সম্পর্ক। এও জেনেছি জীব প্রজাতি বিলুপ্ত এবং বিপদগ্রস্থ হওয়ার অন্যতম কারণগুলি হল- ১) মানুষের বাসস্থান নির্মাণ ২) নগরায়ন, ৩) কৃষিজমির সম্প্রসারণ, ৪) কীটনাশকের বহুল ব্যবহার, ৫) শিল্পায়ন এবং ৬) অচিন্ত্যনীয় ব্যবসায়িক লাভের জন্য জিন-প্রতিস্থাপন নির্ভর জৈবপ্রযুক্তির কান্ডজ্ঞানহীন ব্যবহার। দুর্লভ জীববৈচিত্র্যের আধার যে জলাভুমি যাকে প্রকৃতি বিজ্ঞানীরা আখ্যা দিয়েছেন প্রাকৃতিক বৃক্ক বলে সেগুলি কলকারখানা, চাষবাস ও বসতির চাহিদা মেটাতে এবং কৃষিবর্জ্যের দূষণে প্রায় শেষ হতে চলেছে। আকাশ-বাতাস-মাটি-জল অর্থাৎ পরিবেশ আজ ভীষণভাবে কলুষিত। বৈজ্ঞানিকরা গ্লোব্যাল ওর্য়ামিং নিয়ে সতর্কবার্তা প্রায়ই দিয়ে চলেছেন। বৈজ্ঞানিকদের দল এনিয়ে বার বার সম্মেলনে মিলিত হচ্ছেন। গ্লোবাল ওর্য়ামিং এর জন্য দায়ী গ্রীণহাউস গ্যাস (কার্বনডাই অক্সাইড, মিথেন এবং বিশেষ করে ক্লোরোফ্লোরো কার্বন) নিয়ন্ত্রণ করতে না পারলে ভয়ঙ্কর বিপর্যয় হবে। সুন্দরবনসহ বিশ্বের বেশ কিছু এলাকা ডুবে যাবে; বিশ্বে সুনামি, বন্যা,খরা, সাইক্লোন, ভূমিকম্প মাথা চাড়া দেবে, মারণ ব্যাধি ভয়াবহ বিপদ সৃষ্টি করবে। পরিবেশ বিজ্ঞানীদের সতর্কবাণী একবিংশ শতাব্দীর শেষভাগে পৃথিবীর বর্তমান প্রজাতিরদের প্রায় ৫০ শতাংশ বিলুপ্ত হবে। এতো সব জেনেও দুষনের জন্য সবচেয়ে বেশি দায়ী সেই মার্কিণ সাম্রাজবাদীরা বলছে, তারা গ্রীণহাউস গ্যাস নিয়ন্ত্রণ করবে না, কারন এতে নাকি শিল্পের সংকট ও মুনাফার সঙ্কট হবে। তাই খামোখা তুষার যুগের পুঞ্জবিলুপ্তি কিংবা প্রাকৃতিক বিলুপ্তির (ডাইনোসারদের অবলুপ্তি) আলোচনা টেনে নিয়ে এসে লেখার পরিসর যেমন বাড়াতে চাই না তেমনি জীবৈচিত্র্যের ধ্বংসের মূল রহস্যকে সাধারণ মানুষের দৃষ্টির আড়ালে রাখতে চাইনা। উচ্চ ফলনের নামে দেশের জৈববৈচিত্র্যকে এবং জমির উর্বরা শক্তিকে ধ্বংস করলে কিভাবে মুনাফা লুটছে বহজাতিক কোম্পানিগুলো এবং তারসঙ্গে ধীরে ধীরে বিজ্ঞানের অবৈজ্ঞানিক প্রয়োগ কিভাবে একে একে হারিয়ে যাচ্ছে জীবকুল তারই আলোকপাত করতে তুলে নিলাম কিছু কাগজ আর কলম।

বাস্ততান্ত্রিক অজ্ঞানতা জৈব বৈচিত্র্য ধ্বংসের কারণ:
লেজার রশ্মির ব্যবহার কাঠঠোকরাদের সন্ধানে:-
‘ক্যাম্পো ফিলাস প্রিন্সিপালিস’ পরিচিত নাম ‘আই ভরি বিলড উডপেকার’ প্রথিবীর সবচেয়ে বড় কাঠঠোকরাদের অন্যতম। হাতির দাঁতের মতো ঝক্ ঝকে সাদা তার ঠোট। তাই তার এই রকম নামকরন। বর্তমানে নাসার গবেষকরা তাদের খোঁজে পাগলের মতো ঘুরে বেড়াচ্ছে। তাদের মতে ১৮৬১-৬৫ আমেরিকার গৃহযুদ্ধ হলে কাঠের ব্যবসা জনপ্রিয় হয়। অসাধু ব্যবসায়ীরা শুরু করে জঙ্গল সাফাইয়ের কাজ। কমতে থাকে তাদের আধিপত্য যাদের খোঁজে লেজার ব্যবহৃত হচ্ছে। আসলে এই পাখিরা সহজেই উঁচু মৃত গাছের নরম কাঠ কেটে কোটর তৈরী করতে পারতো কিন্ত আমেরিকার ফরেস্টম্যানেজমেন্ট এর দাপটে জঙ্গলে পচনশীল গাছকে আশ্রয় ও প্রশ্রয় না দেওয়ার জন্য একদিকে যেমন ‘ডিকে সাইকল’ জনিত খাদ্যশৃঙ্খল ব্যহত হল অন্যদিকে প্রজনন ঋতুতে প্রজননে বাধাপ্রাপ্ত হলে তারা ধীরে ধীরে অবলুপ্তির দোরগোড়ায় এসে দাঁড়াল। (চলবে)

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com