1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
শনিবার, ১০ এপ্রিল ২০২১, ০৩:২৭ অপরাহ্ন

বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস- শেখ একেএম জাকারিয়া

  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ১৩ নভেম্বর, ২০২০
  • ২৬ বার পঠিত

১৪ নভেম্বর বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস। এ দিনটি বিশ্বজুড়ে ডায়াবেটিস সম্পর্কে সচেতনতা বাড়ানোর লক্ষ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ ক্যাম্পেইন। পৃথিবীব্যাপী  ডায়াবেটিস রোগ বিস্তৃত পরিসরে বেড়ে যাওয়ায় কারণে বিশ্ব ডায়াবেটিস ফেডারেশন (আইডিএফ) ও বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা ১৯৯১ সালে ১৪ নভেম্বরকে ডায়াবেটিস দিবস হিসেবে ঘোষণা করে। এদিনে বিজ্ঞানী ফ্রেডরিক বেনটিং জন্ম গ্রহণ করেন এবং তিনি বিজ্ঞানী চার্লস বেস্টের সঙ্গে সম্মিলিতভাবে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণকারী ওষুধ   ইনসুলিন উদ্ভাবন করেন। এবার ডায়াবেটিস সম্পর্কে জেনে নেয়া যাক। ডায়াবেটিস আসলে কী?
ডায়াবেটিস কী বা ডায়াবেটিস হলে কী ধরণের ক্ষতি হতে পারে সে সম্পর্কে যদি সহজভাবে লিখতে হয়, রক্তে শর্করার পরিমাণ বেড়ে যাওয়াকে বহুমূত্র বা ডায়াবেটিস বলা হয়ে থাকে। একে নীরব ঘাতকও বলা হয়। এ রোগ হলে মানবদেহের বিভিন্ন অংশ মন্থরগতিতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। যে কারণে একসময় রোগীর জীবনাবসান পর্যন্ত হয়ে থাকে। আপনারা অনেকেই জানেন যে, ডায়াবেটিস এমন একটি জটিল রোগ, যাদের একবার হয়েছে তাদের সে রোগ আর পুরোপুরিভাবে নির্মূল হয় না। তবে নিয়মিত  ওষুধ সেবন ও শারিরীক অনুশীলনের মাধ্যমে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ করা যাবে এমন পরামর্শ দেন দেশীয়  চিকিৎসকগণ।

বিকাশপিডিয়া স্বাস্থ্য সূত্রমতে ২০০৭ সালে সিদ্ধান্ত হয়, ডায়াবেটিস প্রতিরোধ অভিযান পরিচালনার থিমটি আরও দীর্ঘ সময় ধরে থাকবে। বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস ২০০৭-০৮ এর থিম নির্ধারিত ছিল ‘শিশু ও তরুণদের মধ্যে ডায়াবেটিস’। ২০০৯ থেকে ২০১৩ সালের থিম নির্ধারিত হয়েছে, ‘ডায়াবেটিস শিক্ষা ও প্রতিরোধ’।২০০৭-০৮ সালে এই অভিযানের আসল লক্ষ্য ছিল আরও বেশি শিশু ও তরুণকে এই পরিচর্যার আওতায় আনা। ডায়াবেটিসের জরুরি সংকেত সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি করা। এ রোগের একটি জটিলতা ‘ডায়াবেটিক কিটো এসিডোসিস’ হ্রাস করার উদ্যোগ উৎসাহিত করা। আর শিশুদের মধ্যে টাইপ-২ ডায়াবেটিস প্রতিরোধের জন্য স্বাস্থ্যকর জীবনযাপনকে আরও লোকপ্রিয় করে তোলা। এ দিবসের নীল বৃত্তের লোগোটি ডায়াবেটিসকে পরাভূত করার জন্য বিশ্বব্যাপী লড়াইয়ের সূচক। লক্ষ্য হলো পৃথিবীতে কোনো শিশুই যেন ডায়াবেটিসে মারা না যায়। ডায়াবেটিসের মতো ক্রনিক রোগ ব্যক্তি, পরিবার, দেশ, এমনকি সারা পৃথিবীর জন্য গুরুতর ঝুঁকি বহন করে-এমন সত্যটি জাতিসংঘ অনুধাবন করে ২০০৬ সালে একে জাতিসংঘ দিবস হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত নেয়।

বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার হিসেবে, বিশ্বে ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বর্তমানে ৪২৫ মিলিয়ন, অর্থাৎ ৪২ কোটিরও বেশি। তবে শঙ্কার বিষয় হলো প্রতি দুজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের মধ্যে একজন এখনও জানতে পারছেন না যে তার ডায়াবেটিস আছে। রোগ শনাক্ত করা এই সময়ে খুবই  জরুরি । শনাক্ত করা না থাকলে ঝুঁকি বহুগুণ বেড়ে যায়। বিশ্বে প্রতি বছর ডায়াবেটিকসের কারণে ১০ লাখেরও বেশি মানুষের মৃত্যু হয়। বর্তমানে বিশ্বে ডায়াবেটিস রোগীর সংখ্যা বিবেচনায় বাংলাদেশের অবস্থান  দশ নম্বর স্থানে। বাংলাদেশে ডায়াবেটিস রোগী রয়েছে প্রায় ৯০ লাখ, বছরে বাড়ছে আরও এক লাখ রোগী। ডায়াবেটিস প্রতিরোধে এখনই কার্যকর উদ্যোগ না নিলে বিশ্বে ডায়াবেটিস রোগীর সংখ্যা আগামী ২০৩০ সালের মধ্যে ৫৫ কোটি ছাড়িয়ে যাবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞরা। তাই ডায়াবেটিস প্রতিরোধ  আমাদের জন্য খুবই জরুরি ও তাৎপর্যবহ। এ রোগ প্রতিরোধ করতে হলে একে ভালোভাবে  জানতে হবে, খাবারের পরিমাণ কমাতে হবে,ওজন কমাতে হবে,লাল আটার খাবার খেতে হবে,সকালের নাস্তার দিকে বিশেষভাবে  গুরুত্ব দিতে হবে, ফ্যাটযুক্ত খাবার বাদ দিতে হবে,  মিষ্টি পানীয় বাদ দিতে হবে, স্বাস্থ্যকর খাবার খেতে হবে
সবজি খেতে হবে, মানসিক চাপমুক্ত থাকতে হবে,
ঠিকমতো  ঘুমাতে হবে, আঁশযুক্ত খাবার খেতে হবে, প্রচুর পানি পান করতে হবে, স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাতে হবে, সূর্যতাপ গ্রহণ করতে হবে, মসলাসমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে, সয়ার খাবার খেতে হবে,গ্রিন টি পান করতে হবে, ধূমপান বর্জন করতে হবে। এসব নিয়মগুলো নিয়মিত মেনে চললে তবেই ডায়াবেটিস  প্রতিরোধ করা আমাদের পক্ষে সম্ভব হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com