বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২, ০৫:২৩ পূর্বাহ্ন

রংপুরে ৪২ যুবলীগ নেতার দৌড় ঝাপ

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : বুধবার, ৬ জুলাই, ২০২২
  • ৩০ বার পঠিত

হারুন উর রশিদ ।- ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের অঙ্গ সংগঠন যুবলীগের রংপুর জেলা কমিটি গঠনের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। এই কমিটিতে স্থান পেতে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদপ্রত্যাশী ৪২ নেতা দৌড়ঝাঁপ শুরু করে দিয়েছেন। এর আগে চলতি বছরের জানুয়ারী মাসে কেন্দ্রীয় দপ্তরে জীবনবৃত্তান্ত জমা দিয়েছেন পদপ্রত্যাশীরা ।
এদিকে রংপুর জেলায় যুবলীগের নতুন কমিটি হচ্ছে এমন সংবাদে নড়েচড়ে বসেছে পদপ্রত্যাশী বর্তমান যুবলীগ ও ছাত্রলীগের সাবেক নেতৃবৃন্দ। শীর্ষ পদ প্রত্যাশীরা ইতিমধ্যেই যুবলীগের কেন্দ্রীয় ও বিভাগীয় দায়িত্বপ্রাপ্তসহ রংপুরে আওয়ামী লীগের শীষ পদের নেতাদের কাছে ধরণা দিচ্ছেন। বিভিন্নভাবে তদবির- লবিংয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন। একারণে সব মিলিয়ে রংপুর যুবলীগের রাজনীতিতে চাঙ্গাভাব বিরাজ করছে। তবে তৃণমূল নেতাকর্মীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, সভাপতি-সম্পাদক পদে বর্তমান জেলা যুবলীগের নেতৃবৃন্দ ছাড়াও ছাত্রলীগের সাবেক কয়েক নেতা আলোচনায় রয়েছে। এবারের কমিটিতে চমক আসতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
দলীয় সূত্রে জানা যায়, ২০১৩ সালের ১৭ নভেম্বর রাশেদুন্নবী জুয়েলকে আহ্বায়ক ও মামুনুর রশিদ মামুন, ল²িণ চন্দ্র দাস, কামরুজ্জামান শাহিন, শেখ শাদি এবং ডা. লুৎফে আরা রনিকে যুগ্ম আহ্বায়ক করে ৪১ সদস্যের জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। সেই সময় ৯০ দিনের মধ্যে সম্মেলন করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল।
পাঁচ বছর পরও পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করতে না পারায় ও অগঠনতান্ত্রিকভাবে যুবলীগের কমিটি পরিচালনা করার অভিযোগে জেলা যুবলীগের কমিটির কার্যক্রম স্থগিত করা হয়। এ ছাড়া জেলা যুবলীগের আহ্বায়ককে ১৫ দিনের মধ্যে লিখিতভাবে কারণ দর্শাতে বলা হয়। ২০১৮ সালে মে মাসে তৎকালীন কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদ হারুন স্বাক্ষরিত একটি চিঠিতে এ কথা জানানো হয়। এর মধ্যে ২০১৮ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের কালিহাতীর এলেঙ্গার ভূঞাপুর সংযোগ সড়কের কাছে ট্রাক-পাজেরো সংঘর্ষে রাশেদুন্নবী জুয়েল নিহত হন। পরবর্তী সময়ে কমিটি পুনর্বহাল করা না হলে তাদের দলীয় কার্যক্রমে ভাটা পড়ে। কমিটি বিহীনভাবে দীর্ঘদিন ধরে চলছে রংপুর জেলা যুবলীগ। একারণে বর্তমান যুবলীগ নেতৃবৃন্দ ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের মাঝে চরম ক্ষোভ দেখা দেয়। এনিয়ে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হলে কেন্দ্রীয় যুবলীগ ও রংপুর জেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের নজরে পড়ে। এর পরেই ২০১৯ সালের ২৩ নভেম্বর কেন্দ্রীয় যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ও সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল নির্বাচিত হয়ে রংপুর জেলা যুবলীগ কমিটি সচল করার উদ্যোগ নেন।
কেন্দ্রীয় কমিটির উদ্যাগের অংশ হিসেবে চলতি বছরের ২৪ থেকে ২৭ জানুয়ারির মধ্যে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে জীবনবৃত্তান্ত কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এতে রংপুর জেলা যুবলীগের সভাপতি পদে ১৯ জন ও সাধারণ সম্পাদক পদে ২৩ জন জীবনবৃত্তান্ত পাঠান। তার পর থেকে কমিটি ঘোষণার অপেক্ষায় থাকেন রংপুরের যুবলীগের নেতাকর্মীরা। সম্প্রতি কমিটি ঘোষণা বিষয়ে দ্রæত সিদ্ধান্ত নেয়ার উদ্যাগ নেন কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ।
এদিকে বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা অভিযোগ করেছেন, বিতর্কিত কয়েকজন নেতা পদ পাওয়ার জন্য উঠেপড়ে লেগেছেন। বিভিন্ন মাধ্যমে কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে তদবির করছেন।
তবে সংগঠনটির তৃণমূল নেতাদের দাবি, সংগঠনকে গতিশীল করার স্বার্থে রংপুর জেলা যুবলীগের সৎ, যোগ্য, স্বচ্ছ ও পরিচ্ছন্ন নেতৃত্বে আসবে বলে তাঁরা মনে করেন। একই সঙ্গে সাবেক ছাত্রলীগ নেতাদের মূল্যায়ন করার দাবিও করেন।
এদিকে ৯ বছরেও নতুন কমিটি না হওয়ায় খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে রংপুরে আওয়ামী লীগের গুরুত্বপুর্ণ এই অঙ্গসংগঠনটি। কমিটি বিহীন থাকায় কেন্দ্রীয় কর্মসূচি ছাড়া উল্লেখ্যযোগ্য তেমন কোনো কর্মসূচি পালন করতে দেখা যায় না।
সার্বিক বিষয়ে যুবলীগের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক (রংপুর বিভাগের সাংগঠনিক দায়িত্বপ্রাপ্ত) বিশ্বাস মতিউর রহমান বাদশা বলেন, শীঘ্রই রংপুর জেলা যুবলীগের কমিটি ঘোষণা করা হবে। কমিটিতে বির্তকিত কেউ স্থান পাবে না।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com