1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
বুধবার, ১৩ জানুয়ারী ২০২১, ০৮:০২ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :

সময় থাকলে ঘুরে আসুন শেখ রাসেল জাতীয় উদ্যান: প্রথম পর্ব

  • আপডেট সময় : শনিবার, ৮ আগস্ট, ২০২০
  • ৮৫ বার পঠিত

-সুলতান আহমেদ সোনা

ঘুরে বেড়ানোর মজাটাই আলাদা। জায়গা দেখা , খাই দাই করা, অনেকের সাথে পরিচিত হওয়া, ছবি তোলা, কিছু কেনা কাটা করা, সব মিলে ভ্রমনের প্রাপ্তি শত ভাগ। আগেই বলে রাখি শুধু টাকা থাকলে হবে না, মন থাকতে হবে। স্পষ্ট কথা,মন না থাকলে আপনি টাকাও খরচ করতে পারবেন না। ঘুরে বেড়াতে বা ভ্রমনে যেতে খরচ যে খুব বেশি হয় তা কিনতু নয়। আপনি খরচের হিসেবে করলে, পকেট চেপে ধরলে কিছুই করতে পারবেন না। দিল্লী কিনতু অনেক দুর,অনেকটা পথ কিন্তু খরচ একেবারই কম । দিল্লী ভ্রমনের গল্প আর একদিন বলবো । চলুন আজ আপনাকে বিনা খরচে একটা সুন্দর জায়গা ভ্রমনে যাবার গল্প শোনাই। জায়গাটা বেশী দুরে নয়, এক বারেই হাতের কাছে। নিশ্চয় জানতে ইচ্ছে করছে , কোথায় সেটা , কতদুর ? কেমন খরচ হবে ? আরে মশাই কিচ্ছু ভাববেন না। আপনি শুধু সিদ্ধান্ত নিন, বলুন যাবেন। খরচের টাকা না হয় আমিই দেবো। এবার বলছি, এই জায়গাটা হলো “শেখ রাসেল জাতীয় উদ্যান”। ভাবছেন সেটা আবার কোথায় ? খুব কাছেই । এই জায়গাটায় গেলে আপনি আত্মহারা হয়ে যাবেন। ইচ্ছে করবে সেখানে রাতটা কাটিয়ে আসবেন। কিন্তু না তেমন সিদ্ধান্ত নেয়া যাবে না। আগে ভ্রমনে যান তার পর ভেবে চিন্তে দেখবেন সেখানে থাকা যাবে কি না! থাকা,খাওয়া,নিরাপত্তা আছে কি না।
এখন “শেখ রাসেল জাতীয় উদ্যান” যেতে চাইলে আপনাকে পীরগঞ্জ উপজেলার সীমান্ত রেখা পার হতে হবে। ইচ্ছে করলে আপনি সেখানে বাই সাইকেলে যেতে পারবেন। মটর সাইকেল হলে খুব ভালো হয়। অটো সিএনজি হলে তো কথাই নাই। মন চাইলে বউ বাচ্চা নিয়ে মাইক্রোবাসেও যেতে পারবেন। যান বাহন গুলোর কথা বলছি এই জন্য যে, সেখানে যাবার যে পথটা সেটা এতটাই সুন্দর যে সব ধরনের যান বাহন ব্যবহার করতে পারবেন। সেখানে যেতে চাইলে সব বয়সের পর্যটকদের উপযুগী রাস্তা আছে। যদি সেখানে দু’একদিনের মধ্যে যেতে চান তাহলে সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলুন , কারা কারা যাবেন, বা কাকে নিয়ে যাবেন । বলে রাখি দুরে কোথাও গেলে একা একা ভালো লাগে না। বেশি না হোক অন্তত দুইজন হলে ভালো হয়। চার , ছয়, আট , দশ হলেও সমস্যা নেই। তবে বেজোড় সংখ্যায় যাবেন না। অতিতে আমি ভ্রমনে বেজোড় সংখ্যায় গিয়ে বিপদে পড়ে ছিলাম,তাই আগেই আপনাকে এ বিষয়ে সাবধান করে দিলাম। আমি ছোট বেলা থেকেই বহু জায়গায় ভ্রমনে গেছি। ভ্রমনটা এখন আমার নেশা হয়ে গেছে। করোনা ব্যাঘাত না ঘটালে গত ৬/৭ মাসে কত জায়গায় যে যেতাম তার ঠিক নেই। যেতে পারিনি জন্য মনটা খারাপ নয়। করোনা তো চিরদিন থাকবে না। মানুষ করোনাকে পরাস্ত করবেই । আর আমরাও আগামীতে স্বাভাবিক জীবনে ফিরবো ইনশা আল্লাহ। ও যা বলছিলাম, হ্যা শেখ রাসেল জাতীয় উদ্যানের কথা। আপনি যেতে চাইলে হালকা একটা ব্যাগ নেবেন। ব্যাগে পানি নেবেন। যে হেতু এখন রোদ এবং প্রচন্ড গরম সে জন্য হালকা জামা স্যান্ডেল ব্যবহার করাই উত্তম। মাথার জন্য একটা ফিল্ড ক্যাপ ইচ্ছে করলে নিতে পারেন। ইচ্ছে করলে কালো চশমা নিতে পারেন। হালকা কিছু খাবার, যেমন বিস্কুট, লজেন্স নিতে পারেন। চুইংগামও রাখতে পারেন। করোনাকলে মাস্ক নিতে ভুলবেন না। তার পর বাড়ি থেকে বের হয়ে সোজা করতোয়া নদীর ড. এমএ ওয়াজেদ মিয়া সেতু পার হয়ে পাশের উপজেলা নবাবগঞ্জ উপজেলার থানা পার হয়ে দেড় কিলো পথ সামনে গিয়েই পাবেন ‘শওগুণ’ গ্রাম। এ গ্রামের মুখেই বিশাল একটা গেট আছে। গেটে লেখা আছে, “শেখ রাসেল জাতীয় উদ্যান”। টিকিট ছাড়াই সেই গেট দিয়ে পাকা রাস্তা ধরে খানিকটা সামনে এগুলেই পেয়ে যাবে আপনার কাংখিত শেখ রাসেল জাতীয় উদ্যান। শওগুন গ্রামটাও বেশ সুন্দর মনরম। গ্রামের শেষ মাথা থেকে বন শুরু। এই উদ্যান বন বিভাগের সম্পত্তি। এর আয়োতনটা কত বলতে পারবোনা। বনে প্রবেশ করলেই, লতা গুল্ম, জংলি গাছ, বেত, বুনো ফুল পাখি আপনাকে বরণ করবে স্বাগত জানাবে। খুব ভালো লাগবে আপনার।
শহরের কোলাহল, সংসারের টানাপোড়ন, দৈনন্দিন কাজের চাপে যখন আপনি ক্লান্ত, তখন সব ক্লান্তির অবসান ঘটাবে এ বনের শান্ত সৌম প্রকৃতি পরিবেশ। বিশাল শালবন দেখবেন সেখানে। দেখবেন আপনার মত শত শত মানুষ এই বন দেখতে গেছে। বনের ভিতর যথেষ্ট নিরাপত্তা আছে। নিরাপত্তা কর্মী আছে। মটর সাইকেল, বাই সাইকেল রাখার জায়গা আছে। আপনি ট্রাক বাস পর্যন্ত রাখতে পারবেন। পানীয় জল পাবেন। প্রসাব-পায়খানার ব্যবস্থা আছে। মুখ রোচক এটা সেটা খেতে চাইলে খেতে পারবেন। বিশাল জলাধার বা বিল আছে বনের চার দিকে।
বলে রাখি আগে এ বনের নাম ছিল , “ আশুড়ার বিল” । এখনো বহুমানুষ এই জায়গাটাকে “ আশুড়ার বিল” বলেই জানে। এখন সেখানকার মাননীয় জাতীয় সংসদ সদস্য এই আশুড়ার বিলের নাম করণ করেছেন “ শেখ রাসেল জাতীয় উদ্যান”। বিশাল বন, একদিনে দেখে শেষ করতে পারবেন না। বিশাল বিল চারিদিকে ঘিরে রেখেছে বনটাকে। বিলে ভ্রমনের জন্য স্যালো চালিত নৌকো আছে। দাড়টানা নৌকো আছে। নৌকোতে বসলে আপনি ক্যাসেটে ভাওয়াই গান শুনতে পারবেন।
জনপ্রতি কুড়ি টাকা নৌকো ভাড়া । গান শোনার জন্য কোন বাড়তি পয়সা দিতে হবে না। বনে নানা রকম পাখি আছে। গল্প শুনেছি বনের ভিতর নাকি দেশি বেশ কিছু প্রাণিও আছে। ভাগ্য ভালো হলে তারা নজড়ে পড়তে পারে।
ও আর একটা কথা বলি, গিয়ে দেখবে সেখানে একটা বিশাল দৃষ্টি নন্দন কাঠের ব্রিজ আছে। এক বন থেকে অন্য বনে যেতে চাইলে সেটা আপনাকে সহযোগিতা করবে। ব্রিজ পার হলে যে বনটা পাবেন সেখানে বাঁশের টং পাতা আছে। সেখানে বসে জিরিয়ে নিতে পারেন। বসে বসে দুধ মালাই আইসক্রিম খেতে পারেন। কি আর বলবো এই বন দেখতে শুধু পুরুষ নয় মনে হবে গোটা দেশের মেয়েরাও গেছে সেখানে বন দেখতে। (চলবে )

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com