রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ১১:২৩ অপরাহ্ন

সাদুল্লাপুরে সাংবাদিক রোজিনার মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : সোমবার, ২৪ মে, ২০২১
  • ১৪৫ বার পঠিত

বজ্রকথা প্রতিনিধি।- দৈনিক প্রথম আলোর অনুসন্ধানী প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তাকারীদের বিচার তাঁর নিঃশর্ত মুক্তি ও মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে গাইবান্ধার সাদুল্লাপুরে সাংবাদিকরা। শনিবার (২২ মে) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে রংপুর-ঢাকা জাতীয় মহাসড়কের ধাপেরহাট বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এ কর্মসূচির আয়োজন করে সাদুল্লাপুর প্রেসক্লাব। এসময় সাদুল্লাপুর প্রেসক্লাবের, ধাপেরহাট প্রেসক্লাব ও প্রেসক্লাবের বাহিরের সাংবাদিক ছাড়াও পীরগঞ্জ উপজেলা এবং গাইবান্ধা জেলার কর্মরত বিভিন্ন গণমাধ্যমের সাংবাদিকরা অংশ নেয়। এছাড়া কর্মসূচিতে সংহতি জানিয়ে অংশ নেয় রাজনৈতিক-সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ। সাদুল্লাপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি শাহজাহান সোহেলের সভাপতিত্বে ও অর্থ সম্পাদক মোস্তাফিজার রহমান ফারুকের সঞ্চালনায় কর্মসূচিতে বক্তব্য দেন-প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক যমুনা টেলিভিশনের জেলা প্রতিনিধি জিল্লুর রহমান পলাশ, সহ-সাধারণ সম্পাদক ও মানবজমিন উপজেলা প্রতিনিধি তোফায়েল হোসেন জাকির, ধাপেরহাট প্রেসক্লাবের সভাপতি ভোরডাক প্রতিনিধি আমিনুল ইসলাম, জাতীয় অর্থনীতির প্রতিনিধি লাভলু প্রামাণিক, আমার সংবাদ প্রতিনিধি জালাল উদ্দিন, প্রথম আলোর গাইবান্ধা প্রতিনিধি শাহাবুল শাহীন তোতা, কবি সাহিত্যিক, প্রভাষক লুৎফর রহমান সাজু, গল্পকার শিক্ষক রফিকুল ইসলাম ও পীরগঞ্জ উপজেলার কর্মরত আমার সংবাদ প্রতিনিধি আব্দুল করিম সরকার প্রমূখ। বক্তারা বলেন, সাংবাদিক রোজিনার ওপর আক্রমণ গণমাধ্যমের স্বাধীনতার উপরই হস্তক্ষেপ। সংবাদকর্মীরা দুর্নীতি, অনিয়ম সহ উন্নয়নমুলক, সচেতনতামূলক সংবাদ প্রকাশ বস্তু নিষ্ঠাভাবে জাতির সামনে তুলে ধরে। এতে দুর্নীতির সাথে জড়িত কতিপয় অসৎ কর্মকর্তার স্বার্থের হানির কারণে তথ্য চুরির অভিযোগ এনে মিথ্যা মামলা সাজিয়ে হেনস্তা লাঞ্ছিত করে রোজিনা ইসলামকে জেল হাজতে রাখা হয়েছে। অবিলম্বে তাকে নিঃশর্ত মুক্তি পূর্বক অভিযুক্তদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন। তা না হলে বৃহত্তর আনন্দোলন করে তোলা হবে হুশিয়ারীও প্রদান করেন। এসময় বক্তারা বলেন, সাংবাদিকরা সরকারের প্রতিদ্ব›িদ্ব নয় তারা দেশ ও জাতির কল্যাণে বিনা পয়সায় কাজ করে দুর্নীতি অনিয়মের চিত্র তুলে ধরে। অসৎ কর্মকর্তা কর্মচারীর চিত্র তুলে ধরে দেশ জাতির কল্যাণ করে। তাদের বিরুদ্ধে দেয়া হয় মিথ্যা মামলা। বক্তারা এ-সময় অফিসিয়াল সিক্রেসি অ্যাক্ট ১৯২৩’ বাতিলের দাবিও জানান।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com