1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
বৃহস্পতিবার, ১৪ জানুয়ারী ২০২১, ০৫:০২ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
পার্বতীপুরে গৃহকর্মীকে নির্যাতন সাপাহারে উৎপাদিত বল সুন্দরী বরই কৃষিতে নতুন চমক নৌকা উন্নয়নের প্রতীক -মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি নবাবগঞ্জে বঙ্গবন্ধু গ্যালারীর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ফুলবাড়ীতে  বধ্যভূমি স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন ও সুধি সমাবেশ দিনাজপুরে ৯নং ওয়ার্ডে  উটপাখি মার্কার প্রার্থী দুলালের ব্যাপক প্রচারণা দিনাজপুরে পল্লীশ্রীর অর্থনৈতিক ও জীবিকার সুযোগ বৃদ্ধি শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত রওশন আরা রাণীর কুলখানী অনুষ্ঠিত পার্বতীপুর রেলওয়ে জংশনে মোবাইল চুরির চেষ্টা এক যুবকের ৩ মাসের কারাদন্ড পার্বতীপুরে লিজকৃত সরকারী জলাশয়ের মাটি কেটে বিক্রির অভিযোগ

হারিয়ে যাচ্ছে গ্রাম বাংলার লাঙল-জোয়াল-মই

  • আপডেট সময় : রবিবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২০
  • ২০ বার পঠিত

কটিয়াদী (কিশোরগঞ্জ) থেকে সুবল চন্দ্র দাস|- এক সময় গ্রাম বাংলার কৃষকরা এক টুকরো লোহার ফাল আর কাঠ দিয়ে তৈরি লাঙল, জোয়াল ও বাঁশের তৈরি মই ব্যবহার করে গরুর সাহায্যে জমি চাষা করতেন। এখন সেই লাঙল, জোঁয়াল, মই এবং গরুর স্থান দখল করেছে ইঞ্জিন চালিত পাওয়ার ট্রিলার বা কলের লাঙ্গল। অথচ কৃষিকাজে এ অঞ্চলের মানুষ যুগের পর যুগ ধরে লাঙ্গল দিয়ে জমি চাষ করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছিলেন। এতে করে একদিকে যেমন পরিবেশ রক্ষা হতো অন্যদিকে কৃষকের অর্থ সাশ্রয় হতো। এছাড়া হাল চাষের সময় গরু যাতে কোনো খাদ্য খেতে না পারে, সেদিক লক্ষ্য রেখে পাট, বেত, বাঁশের কঞ্চি অথবা লতা জাতীয় এক ধরণের গাছ দিয়ে তৈরি গোমাই, তুরি (অনেকে ঠুসি নামে চেনেন কিশোরগঞ্জের ভাষায় ফোপা) গরুর মুখে বেঁধে দেওয়া হয়। আর তাড়াতাড়ি হাল চালানোর জন্য ব্যবহার করেন বাঁশের বা শক্ত কোন লাঠি দিয়ে তৈরি পাচুনি (লাঠি)। এটি খুব বেশি দিনের কথা নয়, কয়েক বছর আগে এসব গরুর হালে লাঙ্গল-জোয়াল আর মই কিশোরগঞ্জ জেলার বিভিন্ন গ্রামের জমিতে হরহামেশাই দেখা যেত। চাষিদের অনেকে নিজের জমিতে হালচাষ করার পাশাপাশি অন্যের জমি চাষিয়ে পারিশ্রমিক হিসেবে কিছু অর্থও উপার্জন করতেন। তারা হাজারো কর্মব্যস্ততার মধ্যেও কখনো কখনো ফুরফুরে আনন্দে মনের সুখে ভাওয়াইয়া, পল্লী গীতি ও ভাটিয়ালী গান গেয়ে গেয়ে জমিতে চাষ দিতেন। এখন হাতে গোনা দু-একজন কৃষককে পাওয়া যায়। আর চাষ কাজের জন্য হালের গরু ছোট থাকাকালে পোষ মানাতে বেশ কিছুদিন সময় লাগতো। ভোররাত থেকে শুরু করে প্রায় দুপুর পর্যন্ত জমিতে হালচাষ করতেন তারা। চাষিরা জমিতে হাল নিয়ে আসার আগে চিড়া-গুড় অথবা মুড়ি-মুড়কি দিয়ে হালকা জল খাবার খেয়ে নিতেন। তবে হুকা ও পাতা বা কাগজের তৈরি বিড়ি খাওয়া তাদের অভ্যাসে পরিণত ছিল বলে মনে করেন অনেকে। আবার একটানা হট হট, ডাই ডাই, বাঁই বাঁই, বস বস আর উঠ উঠ করে যখন ক্লান্তি আসত, তখন সূর্য প্রায় মাথার ওপর খাড়া হয়ে উঠত। এ সময় চাষিরা সকালের নাস্তার জন্য হালচাষে বিরতি রেখে জমির আইলের ওপর বসতেন। তাদের নাস্তার ধরনটাও ছিল ঐতিহ্যবাহী। এক থালা পান্তা ভাতের সঙ্গে কাঁচা অথবা শুকনো মরিচ, সরিষার খাঁটি তেল আর আলু ভর্তা। কিন্তু আজকাল সময়ের আবর্তে কিশোরগঞ্জ জেলা থেকে এসব গরুর হাল, কৃষি উপকরণ কাঠের লাঙ্গল, জোয়াল, বাঁশের মই হারিয়ে যেতে বসেছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com