1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:২৮ পূর্বাহ্ন

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলা তারেক সহ ১৬ আসামি এখনও পলাতক

  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ২১ আগস্ট, ২০২০
  • ৫১ বার পঠিত

দেশে ফিরিয়ে আনতে পারস্পরিক আইন চুক্তি : এখনও কান্না থামেনি পরিবারে, দ্রুত রায় কার্যকর দাবি

বজ্রকথা রিপোর্ট।- ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের সমাবেশে গ্রেনেড হামলা মামলার রায় ঘোষণার পরও মামলার অন্যতম আসামি বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান সহ ১৬ আসামি এখনও পলাতক রয়েছে। পলাতকদের মধ্যে ২/১ জন ছাড়া বাকি আসামিরা কে কোন দেশে অবস্থান করছেন, তাও নিশ্চিত হতে পারেনি সরকার। তবে সম্ভাব্য কয়েকটি দেশে থাকতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। আর যাদের অবস্থান শনাক্ত হয়েছে, আইনি জটিলতাসহ বিভিন্ন কারণে তাদেরও ফিরিয়ে আনা সম্ভব হচ্ছে না। তাই পলাতকদের অবস্থান শনাক্তের পর ওইসব দেশের সঙ্গে মিউচ্যুয়াল লিগ্যাল এগ্রিমেন্টের (পারস্পরিক আইনি চুক্তি) মাধ্যমে কিংবা অন্য উপায়ে তাদের দেশে ফিরিয়ে আনার কথা ভাবছে সরকার।
এ বিষয়ে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম জানিয়েছেন, পলাতক কয়েকজনের অবস্থান চিহ্নিত করা হয়েছে। ওইসব দেশের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে, আইনি প্রক্রিয়া চলছে। তবে এটা সময় সাপেক্ষের বিষয়। আর তারেক রহমানের বিষয়ে ব্রিটিশ সরকারকে একাধিকবার বলেছি। আমাদের বলা ও চিঠি দেয়া অব্যাহত থাকবে। যুক্তরাজ্যের দি এক্সট্রাডিশন অ্যাক্ট (বন্দী বিনিময় প্রত্যাবর্তন আইন)-২০০৩ অনুযায়ী, তাদের সঙ্গে যে দেশের বন্দী বিনিময় চুক্তি আছে, শুধু সে দেশের সঙ্গে বন্দী বিনিময় করতে পারবে। বাংলাদেশের সঙ্গে যুক্তরাজ্যের এ ধরনের কোন চুক্তি নেই। সেক্ষেত্রে বাংলাদেশের পক্ষে আইনগত ভাবে তারেক রহমানকে ফেরত আনা সম্ভব নয়। তাহলে বিকল্প কোন উপায়ে তারেককে দেশে ফিরিয়ে আনার পরিকল্পনা আছে কিনা? এমন প্রশ্নে শাহরিয়ার আলম বলেন, প্রত্যার্পণ চুক্তি ছাড়াও দাগি আসামিকে এক দেশ আরেক দেশে হস্তান্তর করে। এর আগে আমরা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে আসামি এনেছি। যেহেতু যুক্তরাজ্যের সঙ্গে আমাদের প্রর্ত্যার্পণ চুক্তি নেই সেহেতু বিশেষ ক্ষেত্রে বিশেষ চুক্তির মাধ্যমে আসামিদের ফেরত আনার চেষ্টা চলছে। যেটাকে মিউচ্যুয়াল লিগ্যাল এগ্রিমেন্ট বলা হয়। পুলিশ সদর দফতরের ন্যাশনাল সেন্ট্রাল ব্যুরো (এনসিবি) সূত্রে জানা যায়, পলাতক কয়েকজনের সম্ভাব্য অবস্থান শনাক্ত করা হয়েছে। এরমধ্যে মাওলানা তাজউদ্দিন দক্ষিণ আফ্রিকায় বা পাকিস্তানে। হারিছ চৌধুরী ভারত বা মালয়েশিয়ায়। রাতুল ইতালি বা মালয়েশিয়া। হানিফ থাইল্যান্ডে বা মালয়েশিয়ায়। পলাতক ১৬ জনের মধ্যে এখন পর্যন্ত ছয়জনের বিরুদ্ধে ইন্টারপোলে রেড নোটিস জারি করা হয়েছে। এরমধ্যে তারেক রহমান ও কাজী শাহ মোফাজ্জল হোসেন কায়কোবাদের বিরুদ্ধে জারিকৃত রেড নোটিস ইন্টারপোল প্রত্যাহার করেছে। তারেকের বিরুদ্ধে ২০১৫ সালের ১৩ এপ্রিল রেড এলার্ট জারি করা হয়। পরের বছরের ২৬ জানুয়ারি ইন্টারপোল জারিকৃত রেড নোটিস প্রত্যাহার করে। পরে বাংলাদেশ পুলিশের তরফ থেকে ইন্টারপোল কোন ভিত্তিতে রেড নোটিস প্রত্যাহার করেছে তার ব্যাখ্যা জানতে চাওয়া হয়েছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে ইন্টারপোল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ইন্টারপোলের আর্টিকেল-৩ অনুযায়ী তাদের অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। অর্থাৎ রাজনৈতিক, ধর্মীয়, জাতিগত ও মিলিটারির কারণে কারও বিরুদ্ধে রেড নোটিস জারি করলে তা প্রত্যাহার করা হয়। ইন্টারপোল কর্তৃপক্ষ উত্তরে জানিয়েছে, রাজনৈতিকভাবে তারেক ও কায়কোবাদকে হেয় প্রতিপন্ন করতে এই রেড নোটিস জারি করা হয়েছে বলে তাদের কাছে মনে হয়েছে। তাই তা প্রত্যাহার করা হয়েছে। তারেক একজন দন্ডপ্রাপ্ত আসামি, তার বিরুদ্ধে জারি করা রেড নোটিস রাজনৈতিকভাবে নয়- এমন যুক্তি দেখিয়ে কাউন্টার জবাবও দিয়েছিল ইন্টারপোলের বাংলাদেশ শাখা। কিন্তু এতে কোন লাভ হয়নি। তাই আরেক মামলায় তারেকের বিরুদ্ধে রেড নোটিস জারি করার চিন্তা করছে এনসিবি। সেটি ডিএমপি’র মানি লন্ডারিং আইনে দায়ের করা মামলা। ইন্টারপোলের বাংলাদেশ শাখার ন্যাশনাল সেন্ট্রাল ব্যুরো (এনসিবি)’র সহকারী মহাপুলিশ পরিদর্শক (এআইজি) মহিউল ইসলাম জানিয়েছেন , তারেক ও কায়কোবাদের বিষয়ে রেড নোটিস জারি করা হলেও তারা বিদেশে বসে লবিস্ট নিয়োগ করে রেড নোটিস প্রত্যাহার করেছে। তবে যথাযথ কাগজপত্র দিয়ে তাদের বিরুদ্ধে আবারও রেড নোটিস জারি করা হবে। আমরা ইন্টারপোলকে বুঝানোর চেষ্টা করছি, তারেক ও কায়কোবাদকে রাজনৈতিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করতে এই নোটিস জারি করা হয়নি। এবার ব্যারিস্টার সমপর্যায়ের অথবা ল’ ফর্ম দিয়ে তথ্য প্রমাণাদি করানো হবে। এ জন্য গ্রেনেড হামলা মামলা যেসব ইউনিট তদন্ত করেছে তাদের কাছে তথ্য প্রমাণাদি চেয়ে চিঠিও দেয়া হয়েছে। পলাতক বাকি ১০ জনের বিরুদ্ধেও রেড নোটিস জারি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। তবে যেসব দেশের সঙ্গে প্রত্যার্পণ চুক্তি নেই সেক্ষেত্রে দুই দেশের প্রতিনিধিত্ব বা প্রতিনিধির মাধ্যমে আসামিদের আনা সম্ভব বলে জানান তিনি। পলাতক আসামিদের বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও খোঁজ-খবর রাখছে। তাদের দেশে ফিরিয়ে আনতে বিভিন্ন পদ্ধতি অবলম্বন করা হচ্ছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, যাদের অবস্থান এখনও শনাক্ত করা সম্ভব হয়নি, তাদের চিহ্নিত করতে কাজ করা হচ্ছে। কে কোন দেশে অবস্থান করছে, তা নিশ্চিত হতে গোয়েন্দাসহ একাধিক ইউনিট কাজ করছে। দূতাবাসগুলোকে এ বিষয়ে সজাগ থাকতে বলা হয়েছে। ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় এই হামলায় ২৪ জন নিহত হন। আহত হন শেখ হাসিনাসহ তিন শতাধিক। অভিযোগ রয়েছে, বিএনপি নেতৃত্বাধীন তৎকালীন চারদলীয় জোট সরকারের শীর্ষ পর্যায়ের ইন্ধনে জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদ আল ইসলামী বাংলাদেশ (হুজি) ওই নারকীয় হত্যাযজ্ঞ চালায়। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর দ্বিতীয় দফায় অধিকতর তদন্তে বেরিয়ে আসে হামলার নেপথ্যের নীলনকশা। ঘটনার পর দুটি মামলা দায়ের করা হয়। ২০১৮ সালের ১০ অক্টোবর গ্রেনেড হামলার ঘটনায় হত্যা ও বিস্ফোরক দ্রব্য আইনের দুই মামলার রায় একইসঙ্গে ঘোষণা করা হয়। হত্যা মামলায় ১৯ জনকে ফাঁসির দন্ড, ১৯ জনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড এবং ১১ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ড দেয়া হয়। আর বিস্ফোরকদ্রব্য আইনের মামলায় ১৯ জনকে ফাঁসি এবং ১৯ জনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দেয়া হয়। এই ৩৮ জনকে বিস্ফোরকদ্রব্য আইনের অন্য ধারায় ২০ বছর করে সশ্রম কারাদন্ড দেয়া হয়েছে। দুই মামলায় আলাদা ভাবে সাজা দেয়া হলেও তা একযোগে কার্যকর হবে বলে রায়ে উল্লেখ করা হয়। মামলার মোট আসামি ৫২ জন হলেও তিন আসামির অন্য মামলায় মৃত্যুদন্ড কার্যকর হওয়ায় তাদের মামলা থেকে বাদ দেয়া হয়। তবে মামলা দুটি রায়ের পর আসামিপক্ষের আইনজীবীরা হাইকোর্টের আপিল বিভাগের ডিভিশন বিভাগে আপিলও করেছে। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা ও হত্যা মামলার স্পেশাল পিপি অ্যাডভোকেট মো. আবু আবদুল্লাহ ভুঞা বলেন, গত ১৬ আগস্ট রোববার গ্রেনেড হামলা মামলার পেপার বুক (মামলার রায়ের কপি, এফআইআরসহ যাবতীয় নথি) সরকারি ছাপাখানা থেকে প্রস্তুত হয়ে হাইকোর্টে পৌঁছেছে। এর ফলে মামলাটির ডেথ রেফারেন্স ও আসামিদের আপিলের ওপর হাইকোর্টে শুনানির পথ খুলল। এখন মামলাটি শুনানির জন্য প্রধান বিচারপতি একটি বেঞ্চ নির্ধারণ করে দেবেন। আমাদের দাবি, এ ঘটনায় জড়িতদের কঠোর শাস্তি একান্ত জরুরী। সুপ্রিম কোর্টের মুখপাত্র ও হাইকোর্ট বিভাগের স্পেশাল অফিসার মোহাম্মদ সাইফুর রহমান জানান, হত্যা মামলায় ১৩ ভলিউমে মোট ৫৮৫টি পেপারবুক এসেছে, যা সাড়ে ১০ হাজার পৃষ্ঠার। এতে মোট আপিল ২২টি এবং জেল আপিল ১২টি। অন্যদিকে বিস্ফোরক মামলায় ১১ ভলিউমে মোট ৪৯৫টি পেপারবুক এসেছে, যা ১০ হাজার পৃষ্ঠার। এ মামলায় আপিল ১৭টি ও জেল আপিল ১২টি। এখন এসব পেপারবুক যাচাই-বাছাইয়ের কাজ চলছে। আর এসব মামলায় পলাতক আসামি থাকলে তাদের জন্য রাষ্ট্রনিযুক্ত আইনজীবী) নিয়োগ করা হবে। সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করে প্রধান বিচারপতি বরাবরে উপস্থাপন করা হবে বলে জানান উচ্চ আদালতের এই কর্মকর্তা। আইনজীবীরা জানান, ফৌজদারি মামলায় বিচারিক আদালত যখন আসামিদের মপ্রæ্যদন্ড দেন তখন ওই দন্ড কার্যকরের জন্য হাইকোর্টের অনুমোদনের প্রয়োজন হয়। এজন্য সংশ্লিষ্ট বিচারিক আদালত ফৌজদারি কার্যবিধির ৩৭৪ ধারা মোতাবেক মামলার সব নথি হাইকোর্টে পাঠিয়ে দেন। যা ডেথ রেফারেন্স নামে পরিচিত। ওই নথি আসার পর হাইকোর্টের ডেথ রেফারেন্স শাখা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে সংশ্লিষ্ট মামলার পেপারবুক প্রস্তুত করে। পেপারবুক প্রস্তুত হলে মামলাটি শুনানির জন্য উপস্থাপন করা হবে বলে ধরে নেয়া হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com