শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ০৩:০৩ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
চিলমারী কল্যাণ সমিতির কমিটি গঠন পীরগঞ্জে পাটচাষীদের প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত   দিনাজপুর শিশু একাডেমীর চিত্রাংকনসহ বিভিন্ন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত ফুলবাড়ীতে নেসকো গ্রাহকদের নিয়েপিএলসির নেসকোর  গণশুনানী ফুলবাড়ী শিবনগর ইউনিয়নে বয়স্ক ও বিধবা ভাতার কার্ড এর লটারি অনুষ্ঠিত  পলাশবাড়ীতে দুই বাইকের সংঘর্ষে আহত স্বদেশ এর মৃত্যু এসএসসি পরীক্ষায় মোবাইলে  প্রশ্নপত্র ফাঁস এক শিক্ষকের কারাদন্ড রংপুরে শেখ রাসেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদের ৩৬ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন “শেকড় ” এর সহয়োগীতায় বর্ণমালায় রোদ্দুর কবিতা পাঠের আসর বাংলাদেশ প্রেসক্লাব পীরগঞ্জ শাখার সম্মেলন ও কমিটি গঠন

আইন হাতে তুলে নেয়া যাবে না

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : শনিবার, ৩১ অক্টোবর, ২০২০
  • ২৪০ বার পঠিত

মানুষ সৃষ্টির সেরা জীব। আল্লাহ রাব্বুল আলামিন তার সৃষ্টির মধ্যে মানুষকেই জ্ঞান দিয়েছেন,বুদ্ধি, বিবেক এবং বিচার করে সিদ্ধান্ত নেবার ক্ষমতা প্রদান করেছেন। মানুষের মুখে ভাষা দিয়েছেন। তাই আমরা যা করবো তা যেন বিচার বিবেচেনা,জ্ঞান বুব্ধি বিবেক দিয়ে করি; সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। এ কথা বলছি এইজন্য যে, গত ২৯ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় লালমনির হাটের পাটগ্রাম উপজেলার বুড়িমারী স্থল বন্দর এলাকায় শহীদুন্নবী জুয়েল নামে এক ব্যক্তিকে পুড়িয়ে হত্যা করেছে কিছু মানুষ। জুয়েলের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলা হয়েছে, উক্ত শহীদুন্নবী জুয়েল নাকি পবিত্র ধর্মগ্রন্থ আল কোরআনকে অবমননা করেছে! সেই অপরাধের জন্য ওই এলাকার কিছু মানুষ নিজেরাই বিচার করে জুয়েলের শাস্তি হিসেবে তাকে পিটিয়ে হত্যা করে মরদেহ পুড়িয়েছে। এই কর্মটি যারাই করে থাকুক না কেন এটা গ্রহনযোগ্য নয়। এ ধরনের কান্ডজ্ঞানহীন কাজকে আমরা সমর্থন করতে পারি না। হতভাগ্য শহীদুন্নবী জুয়েল এর পরিচয় পাওয়া গেছে। জুয়েলের গ্রামের বাড়ি পীরগঞ্জ উপজেলার ১৫নং কাবিলপুর ইউনিয়নের জামালপুর গ্রামের লালদিঘী মেলা গার্লস স্কুলের সংলগ্ন সখিপুর পাড়ায়। মরহুম ওয়াজেদ মিয়ার ছেলে তিনি। জুয়েলের পিতা সাবরেজিষ্টার ছিলেন। শহীদুন্নবী জুয়েল রংপুর শালবন এলাকার নবী ভিলায় বসবাস করতেন। আরো জানা গেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হতে লাইব্রেরী সাইন্সে স্নাতকোত্তর করেছেন তিনি এবং রংপুর ক্যান্টপাবলিক স্কুল এন্ড কলেজের লাইব্রেরিয়ান ছিলেন। মানসিক ভারসাম্য হারানোর ফলে বছর ৩ আগে চাকুরিচ্যুত হয়েছেন। এখন কথা হচ্ছে আমরা যারা বিবেক বুদ্ধি সম্পন্ন মানুষ তারা কখনই কোন ধর্ম অবমাননাকে সমর্থন করি না। সমর্থন করি না কোন ধর্মীয় উপসনালয়ে মামলা, কোন ধর্মমতের মানুষকে তার ধর্মপালনে বাধা প্রদান। একজন মুসলমান হিসেবে বিশ্বাস করি “ লাকুম দ্বিনুকুম অলইয়াদীন”। আর পবিত্র ধর্মগ্রন্থ আল কোরান বা আমাদের নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)কে অবমননার কোন চেষ্টা, তৎপরতাকেও মেনে নেই না। সেই সাথে আমরা মনে করি,কেউ ধর্ম অবমাননা করলে তার বিচার করা, শাস্তির রায় ঘোষণা করা এবং শাস্তি কার্যকর করার আদেশ দেবার ক্ষমতা কোন সাধারণ মানুষের নেই। তবে যেটা পারি তা হলো, কেউ এমন অপরাধ করলে অপরাধীকে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার হাতে তুলে দিতে পারি। পরের কাজটি আদালতের। এখন একটি কথা দুঃখের সাথে বলতে হচ্ছে তা হলো, বুড়িমারী স্থল বন্দর এলাকায় এতবড় একটা অনাঙ্খাকিত ঘটনা ঘটলো, পুলিশ বা বিশেষ শাখার লোকজন সময়মত ব্যবস্থা নিতে পারেননি! অস্বীকার করার উপায় নেই যে, বর্তমান সময়ে সারা দেশে খানিকটা উত্তেজনা বিরাজ করছে। সে কারনে আইনপ্রযোগকারী সংস্থা এবং সরকারের এজেন্টদের সচেতন ও সতর্ক হওয়া উচিত। দেশের পরিবেশ পরিস্থিতিকে বেসামাল করে ফায়দা লোটার তালে কিছু মানুষ থাকতেই পারে। তাই আমরা বলবো অনেকটা সজাগ হতে হবে সকলকে। যাতে কেউ অনাকংখিত কোন ঘটনা ঘটাবার সুযোগ না পায়। আমরা বলবো এই ঘটনা থেকে শিক্ষা নিতে হবে। সকলকে সচেতন করতে হবে যে, কোন মুসলমান মানুষ পোড়াতে পারে না। আইন হাতে তুলে নেয়া অন্যায়, কেউ ধর্ম অবমাননা করলে তাকে পুলিশের হাতে তুলে দিতে হবে। আমরা মনে করি এ ব্যাপারে ইউনিয়ন পরিষদ, উপজেলা পরিষদ মানুষকে সচেতন করতে প্রচার কার্য চালাতে পারেন। মসজিদ, মন্দির, গির্জা, প্যাগোড়া পরিচালনাকারি ইমাম, ফাদার,পুরোহীতরাও পদক্ষেপ নিতে পারেন। সাথে সাথে এও বলবো জুয়েলকে পুড়িয়ে মারার ঘটনা খতিয়ে দেখা হোক।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com