1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
বৃহস্পতিবার, ০৫ অগাস্ট ২০২১, ১০:৫৮ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
রংপুরে সাড়ে তিন কেজি গাঁজাসহ ইউপি সদস্য আটক রংপুরে বোনের বিয়ে ভাঙার প্রতিবাদ করায় বখাটের হামলায় ভাইয়ের মৃত্যু গ্রেফতার-১ মিঠাপুকুরে অসহায় দুস্থদের পাশে জেলা আ’লীগ নেতা মওলা বিরামপুরে কর্মহীনদের মাঝে নগদ অর্থ প্রদান  দিনাজপুর শহরের ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলরের উদ্যোগে বিনামূল্যে ভ্যাকসিন নিবন্ধন কার্যক্রম কাহারোলে বাংলাদেশ প্রেস ক্লাব কাহারোল উপজেলা শাখার আহবায়ক কমিটি গঠন বিরামপুরে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে কর্মহীন ও অসহায়দের মাঝে নগদ অর্থ বিতরণ  ঘোড়াঘাটে বিদ্যালয় থেকে জাতীয় শোক দিবসের ব্যানার গায়েব পীরগঞ্জে করোনা প্রতিরোধ বুথ উদ্বোধন গোবিন্দগঞ্জে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে যুবকের মৃত্যু

একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা মকবুল হোসেন

  • আপডেট সময় : রবিবার, ২ মে, ২০২১
  • ২২ বার পঠিত

সুলতান আহমেদ সোনা।- মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে, আমি মুক্তিযুদ্ধ দেখেছি। আজ স্বাধীনতার বয়স ৫০ বছর পূর্ণ হয়েছে। আমার বয়সের রেখাও উর্ধ্বমূখি! মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহনকারী রংপুর জেলার পীরগঞ্জ উপজেলার বীর সন্তানদের বসয় বেড়ে ৭০ থেকে ৭৫ -এ দাড়িয়েছে। তার পরেও এখনো মনে হয় তাঁরা ২৫ বছরের তরুণ। উচ্চ কণ্ঠে বলতে পারি, পীরগঞ্জের বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে আমার সম্পর্ক দীর্ঘদিনে। খুব মধুর সম্পর্ক আমার।তারা সকলেই আমাকে স্নেহ  করেন আমিও শ্রদ্ধা করি। মুক্তিযোদ্ধা ভাইদের প্রায় সব অনুষ্ঠান, আনুষ্ঠানিকতায় আমিও আমন্ত্রণ পাই। বীরমুক্তিযোদ্ধা মোজাফ্ফর হোসেন বকুল , বীরমুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম, বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সোবহান সরকার, বীরমুক্তিযোদ্ধা নুরুল হক, বীরমুক্তিযোদ্ধা আফজাল হোসেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা মশিয়ার রহমান তারা আমাকে তাদের লোক মনে করেন। তাদের অনেক দুঃখ কষ্টের সাক্ষি আমি।
মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, বিশিষ্ঠ রাজনীতিক, জাসদ নেতা প্রয়াত আব্দুস সোবহান বাদশা,মুক্তিযোদ্ধা পীরগঞ্জ ইউনিটের সাবেক কমান্ডার, লেখক, কবি, প্রয়াত আব্দুল মমিন আকন্দ , জাসদ নেতা সদ্য প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা মকবুল হোসেন তিনিও খুব কাছের মানুষ ছিলেন আমার। আমার সাংগঠনিক কর্মকান্ডের সাথে তাদের সম্পৃক্ততা ছিল। আমাদের সকলের প্রিয় জাসদ নেতা সোবহান ভাই তাঁর সাথে একটা সময় চলার এবং নানা বিষয়ে দীক্ষা নেবার সুযোগ হয়েছিল আমাদের। আশির দশকে মিলু, পলাশ, রফিক ভাই আমরা খুব ঘনিষ্টভাবে তাঁকে কাছে পেয়েছিলাম। জাসদ নেতা মীর মোহাম্মদ আলী মানিক ভাই,বর্তমান বড়দরগাহ ইউপি চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা নুরুল হক ভাই, পাঁচগাচী ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ ভাই তারা এই সম্পর্কের কথা ভালোভাবে জানেন। আশির দশকে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও জাসদ নেতা প্রয়াত মকবুল হোসেন ,বর্তমান জাসদ নেতা মীর মোহাম্মদ আলী মানিক ভাই সামাজিক ও সাংগঠনিক কর্মকান্ডে আমাদের পাশে দাড়িয়েছিলেন এবং সাহস যোগিয়েছিলেন। আমাদের সেই সব ভালোবাসার মানুষদের মধ্যে অনেকেই এখানো আছেন শ্রদ্ধার আসনে। কয়েকজন প্রয়াত হয়েছেন। আজ আমি বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রয়াত মকবুল হোসেন সম্পর্কে কিছু বলতে চাই। আপনারা অনেকেই অবগত আছেন গত ২৬ মার্চ ২১ খ্রি: শুক্রবার সড়ক দূর্ঘটনায় মুক্তিযোদ্ধা মকবুল হোসেন ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহে………রাজেউন) তাকে ২৭ মার্চ/২১ খ্রিঃ শনিবার তাঁকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন করা হয়েছে। তিনি প্রজাপাড়া গ্রামে তাঁর বাসভবনের পূর্বপাশে মাটির কবরে শায়িত আছেন।অনেকেই মনে করেন, মুক্তিযোদ্ধা মকবুল হোসেন পীরগঞ্জে জন্মগ্রহন করেছেন, তা কিন্তু নয়।তাঁর জন্ম দিনাজপুর জেলার আটোয়ারী উপজেলার বর্ষালুপাড়ায়। তার পিতার নাম শফিয়ার রহমান, মাতা ফুল বানু, ৫ ভাই বোনের মধ্যে মকবুল হোসেন সর্বকনিষ্ঠ। তিনি সম্ভ্রান্ত ঘরে জন্ম গ্রহন করলেও ছোট বেলায় তিনি মাতৃহারা হন। জন্মের আড়াই বছওে তার মাতা ইন্তেকাল করেন। তার প্রাথমিক শিক্ষা শুরু হয় আটোয়ারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। পঞ্চম শেণ্রিতে অধ্যায়ন কালে তিনি বাড়ি থেকে পালিয়ে যান। পরে নবাবগঞ্জ উপজেলার চরকাই এর তসলিম মেম্বরের বাড়িতে আশ্রয় গ্রহন করেন।সেখানে থেকে মোগর পাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ শেণ্রিতে ভর্তি হন এবং একই স্কুল থেকে ১৯৭০ সাথে মেট্রিক পাশ করেন। এর পর রংপুর জেলার পীরগঞ্জে কলেজ প্রতিষ্ঠা হলে প্রথম ব্যাসে ভর্তি হন তিনি। পীরগঞ্জ শাহ আব্দুর রউফ কলেজে অধ্যয়নকালে ছাত্র আন্দোলনে যুক্তহন এবং ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ গঠন করেন মকবুল হোসেনরা। তিনি ৫ সদস্য বিশিষ্ঠ ছাত্র সংগ্রম পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক ছিলেন। জানা যায় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের আহবায়ক ছিলেন জনাব জয়নাল আবেদীন (আরাজি গঙ্গারামপুর),যুগ্ম আহবায়ক মকবুল হোসেন (নবাবগঞ্জ), সদস্য আব্দুর রহমান ভাষা (ওসমানপুর -পীরগঞ্জ), মোঃ আব্দুল ওয়াহেদ ফারাজী (আরাজি গঙ্গারামপুর), ইদ্রিস আলী মন্ডল ( ধনশালা)
এর পর মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে মকবুল হোসেন মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেন।দেশ স্বাধীন হলে দেশে ফিরে আসেন। তিনি এলাকায় জাসদ মকবুল নামে পরিচিত ছিলেন। সহজ সরল মানুষ হিসেবে সকলের শ্রদ্ধার পাত্র ছিলেন তিনি।বীরমুক্তিযোদ্ধা মকবুল হোসেন এর বড় ভাই ইপিআর সদস্য নইমদ্দীন ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহন করেন এবং শহীন হন। দেশকে খুব ভালোবাসতেন মকবুল ভাই। মকবুল হোসেন বিবাহিত।তার স্ত্রীর নাম রওশন আরা বেগম (৫৮)। তিনি ২ সন্তানের জনক। তার প্রথম পুত্র মোঃ বিকাশ সরকার (৪১)একজন কৃষিবিদ। দ্বিতীয় পুত্র সুদীপ্ত সরকার(৩৫) একজন চাকুরীজীবী। বৈবাহিক সুত্রে তিনি পীরগঞ্জ উপজেলার প্রজপাড়া গ্রামে বসত গড়েছেন।
বীরমুক্তিযোদ্ধা মকবুল হোসেনের সাথে অনেক স্মৃতি রয়েছে আমাদের। ছবি রয়েছে। আমি নিজ হাতেও তার ছবি তুলেছি। বিগত দিনের অনেক স্মৃতি রয়েছে তাঁকে ঘিরে। তার কথা আজ বার বার মনে হচ্ছে। তিনি বড় অসময়ে চলে গেলেন! তিনি ২৬ মার্চ/২১ সড়ক দূর্ঘটনার কারেন ইন্তেকাল করেন।তিনি একজন বীর তার প্রতি আমাদের শ্রদ্ধা নিবেদন করছি।
এ বছর ফেব্রæয়ারী মাসের প্রথম সপ্তাহে পীরগঞ্জ উপজেলার মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স চত্বরে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল এর সামনে গাইবান্ধার জেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা (ডিএলও) ডাঃ মাছুদার রহমান সরকারের ইচ্ছায় বেশ কয়জন মুক্তিযোদ্ধার সাথে ফটো তোলা হয়েছিল। সেই ছবিতে আমিও ছিলাম। সেই ছবিটা আজ হঠাৎ নজরে পড়ল। দেখলাম বুক ফুলিয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধা মকবুল হোসেন দাঁড়িয়ে আছেন। ডান দিক থেকে ৯ম ব্যক্তি গলায় মাফলার জড়ানো ব্যক্তি আমাদের মবকবুল ভাই।
আগামী কাল ৩ মে/২১ খ্রিঃ মকবুল ভাইয়ের রুহের মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ দোওয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে প্রজাপাড়া গ্রামে। আমরা সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবো ইনশাআল্লাহ। দোওয়া করি আল্লাহ যেন মকবুল ভাইয়ের বেহেস্ত নসিব করেন- আমীন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com