1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
মঙ্গলবার, ১২ অক্টোবর ২০২১, ১২:০৪ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
পীরগঞ্জের কাবিলপুরে যুবদলের কর্মী সভা অনুষ্ঠিত বিএনপি’র যুগ্ম মহাসচিব সোহেলের মায়ের ইন্তেকাল বিভিন্ন মহলের শোক পীরগঞ্জে আরাজী গঙ্গারামপুর স্পোটিং ক্লাবের আয়োজনে বঙ্গবন্ধু ফুটবল টুর্নামেন্ট’২০২১ইং এর ফাইনাল খেলা নবাবগঞ্জে গণহত্যা দিবস পালিত নবাবগঞ্জে বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস উদযাপিত ঘোড়াঘাটে ৩৯টি পূজা মন্ডপে সরকারী অনুদানের চাল বিতরণের উদ্বোধন ঘোড়াঘাট পৌরসভা নির্বাচনে ৫ মেয়র প্রার্থীর মনোনয়নপত্র দাখিল দিনাজপুরে আশ্চর্যজনক খেলনা সম্বলিত “টয় কিংডম” শো-রূমের উদ্বোধন বিভেদ সৃষ্টির হাতিয়ার ধর্মান্ধতা -মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি বগুড়ার শেরপুরে ট্রাকের কেবিন থেকে উদ্ধার লাশের পরিচয় মিলেছে

কুড়িগ্রামে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচিতে হরিলুট: মৃত ব্যক্তিসহ ৪০জনের চাল আত্মসাতের অভিযোগ

  • আপডেট সময় : বুধবার, ৭ অক্টোবর, ২০২০
  • ৫০ বার পঠিত

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি |- কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার যাত্রাপুর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের মেম্বার ছামছুল হকের বিরুদ্ধে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির আওতায় রেশন কার্ডের চাল হরিলুটের বিস্তর অভিযোগ উঠেছে। ২০১৬ সাল থেকে ৪০জন কার্ডধারীর ৩০ কেজি করে ১৭দফা চাল আত্মসাৎ করে ৭লক্ষ ৩৪ হাজার টাকা লোপাট করার অভিযোগ উঠেছে তার বিরুদ্ধে। এছাড়াও দুজন মৃতের নামেও চাল উত্তোলন করে আসছেন তিনি। শুধু তাই নয় তার কার্ডধারীর মধ্যে রয়েছে তার স্ত্রী, দুই ছেলে, নিজের ভাই, চাচা, চাচী ও চাচাতো ভাইসহ আপন পরিবারের ২০জন সদস্য।
জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ একাধিক দপ্তরে অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, যাত্রাপুর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের মেম্বার ছামছুল হকের নামে ওই ওয়ার্ডে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির আওতায় ১৮৮জনের নামে রেশন কার্ডের বরাদ্দ আসে। এর মধ্যে অনেকের কার্ড সুকৌশলে আত্মসাৎ করেন ওই মেম্বার। গ্রামের সাধারণ মানুষ মেম্বারের এই অপকৌশল এতদিন ধরে জানতেই পারেননি। তিনি ২০১৬ সালের ২১ অক্টোবর থেকে ২০২০ সালের ৫ অক্টোবর পর্যন্ত ৪০জনের নামে বরাদ্দকৃত কার্ড গোপন করে তাদের নামে আসা চাল অন্যদের মাধ্যমে আত্মসাৎ করে আসছিলেন। সরকার অনলাইনে কার্ড প্রেরণের পদ্ধতি চালু করায় বেড়িয়ে আসতে শুরু করে অনিয়মের পাহাড়।
তথ্যমতে, প্রতিজন ৩০ কেজি হিসেবে ৪০টি কার্ডে একদফা চাল ওঠে ১হাজার ২শ’ কেজি। এই হিসেবে ১৭ দফায় চাল উত্তোলন করা হয় ২০ হাজার ৪শ’ কেজি। সরকারি দর প্রতি কেজি ৩৬ টাকা হিসেবে মূল্য দাঁড়ায় ৭ লক্ষ ৩৪ হাজার ৪শ’ টাকা।
ওই ওয়ার্ডের ১৩২ নং কার্ডধারী মৃত: জোবেদ আলীর মৃত: স্ত্রী মৃত: আলেয়া ও ফারাজিপাড়ার মৃত: আসম উল্যাহর মৃত: পূত্র শাহাবুদ্দিনের নামে কার্ড বরাদ্দ করে সেই চাল ২০১৬ সাল থেকে আত্মসাৎ করে আসছেন।
এছাড়াও তার পরিবারের ২০জন সদস্যের নামে তিনি কার্ড ইস্যু করেছেন। তালিকায় ৯৩ নং কার্ডধারী তার স্ত্রী সাহেরা, ১১৮নং পূত্র সাহাদুল, ১৩১ পূত্র সাইদুল, ৪৭নং কার্ডধারী আপন ভাই কাজি মন্ডল, ১১৮ ও ৬৮ নং কার্ডধারী কাজি মন্ডলের দু’পূত্র মাইদুল ও দুলাল মিয়া, ১২৯, ৭২ ও ১৫৩ নং কার্ডধারী চাচাতো ভাই মজিবর, সেকেন্দার ও মজিদ, ৭৩ নং কার্ডধারী তাদের মা ছকিনা। ১৫২ ও ১৩৪ কার্ডধারী তার চাচা গনি মন্ডল ও চাচী আম্বিয়া। এভাবে ২০জন পারিবারিক সদস্যদের নামে কার্ড ইস্যু করেছেন তিনি।
অভিযোগকারী মজিবর রহমান জানান, অনলাইন সিস্টেম না হলে আমরা জানতেই পারতাম না আমাদের নামে কার্ড ইস্যু হয়েছে এবং সে কার্ড মেম্বার তার লোক দিয়ে উত্তোলন করে খাচ্ছেন। আমরা এর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।
১৭৬নং কার্ডধারী মমিনা বেগম ও ৫১ নং কার্ডধারী আমিন উদ্দিন জানান, আমরা এই করোনা আর বন্যার সময় না খেয়ে দেয়ে ছিলাম। অথচ সরকার আমাদের নামে কার্ড বরাদ্দ দিলেও ছামছুল হক মেম্বার সেসব কার্ড গোপন করে ২০১৬ সাল থেকে চাল আত্মসাৎ করে খেয়েছেন। আমরা আমাদের নামে বরাদ্দকৃত চাল ফেরৎ চাই। সেই সাথে মেম্বারের উপযুক্ত বিচার চাই।
এ ব্যাপারে কার্ডধারীরা তাদের নামে বরাদ্দকৃত চাল বিতরণের একটি মাস্টাররোল কুড়িগ্রাম প্রেসক্লাবে জমা দিয়েছেন। সেখানে ১৫জনের নামে স্বাক্ষর দিয়ে চাল উত্তোলন দেখানো হলেও সেই ১৫জন সাংবাদিকদের কাছে এসে জানান তারা একবারো চাল পাননি। ছামছুল মেম্বার তাদের নামে আসা চাল ২০১৬ সাল থেকে আত্মসাৎ করে আসছেন।
বিষয়টি নিয়ে ডিলার সাইফুর রহমান জানান, এই ওয়ার্ডের অনেক কার্ডধারী নিজে চাল নিতে আসেন না। তারা ছেলে মেয়ে বা আত্মীয়র নাম বলে কার্ড নিয়ে আসে। আমি চাল দিতে গড়িমশি করলে, মেম্বার শামছুল হক তাদেরকে চাল দিতে সুপারিশ করে। কার্ডে ছবি না থাকায় নিয়মের ব্যতয় হয় বলে তিনি স্বীকার করলেন। অন লাইন সিস্টেম চালু হওয়ায় সেপ্টেম্বর মাসে এখনও ২৩টি কার্ডের চাল এখনো কেউ গ্রহন করতে আসেনি।
এ ব্যাপারে ছামছুল হক মেম্বার তার বিরুদ্ধে আণিত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, কার্ড ইস্যু করার বিষয়টি চেয়ারম্যানের এখতিয়ার। কার নামে কার্ড হয়েছে। কারা চাল তুলে খাচ্ছে সব কিছু আমার জানা নেই। আমার বিরুদ্ধ পক্ষ আমাকে হেয় করার জন্য মিথ্যা অভিযোগ করেছে। আমার ছেলেরা কার্ডের উপযুক্ত জন্য কার্ড দিয়েছি। তবে স্ত্রী’র নামে কার্ড করাটা ভুল হয়েছে। মৃত: শাহাবুদ্দিনের কার্ডের চাল তার পূত্র শাহাদতকে দেয়া হচ্ছে। আর মৃত: আলেয়ার কার্ডের চাল দেয়া হচ্ছে প্রতিবেশী ছালেহা বেগমকে। আর এসব কিছুই করা হচ্ছে চেয়ারম্যানের সম্মতিতে।
এ ব্যাপারে যাত্রাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী সরকার জানান, অভিযোগের বিষয়টি শুনেছি। তার বিরুদ্ধে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার আবেদন করেছে ভুক্তভোগীরা। তদন্ত হলে সত্য বেরিয়ে আসবে। তবে তিনি নিজের সম্পৃক্ততার কথা অস্বীকার করেন।
কুড়িগ্রাম সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার নিলুফা ইয়াছমিন অভিযোগ বিষয়ে জানান, আমি কেবলমাত্র অভিযোগটি হাতে পেয়েছি। একটু খোঁজখবর নেই, যাচাই করি তারপর সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com