1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
বুধবার, ২৪ নভেম্বর ২০২১, ০৩:৩৩ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
পীরগঞ্জে খালেদা জিয়ার মুক্তি বিদেশে সুচিকিৎসার দাবিতে বিক্ষোভ বদরগঞ্জ ও গঙ্গাচড়ার ১৯ ইউনিয়নে আ.লীগের মনোনয়ন পেলেন যাঁরা দিনাজপুরে এম আব্দুর রহিমের ৯৪তম জন্মবার্ষিকী পালিত ভর্তি পরীক্ষার মেধা তালিকায় মেয়েদের মধ্যে দিনাজপুর জেলায় সুমাইয়ার শীর্ষস্থান অর্জন পার্বতীপুর রেলওয়ে হাসপাতাল চিকিৎসক না থাকায় একমাত্র ভরসা ফার্মাসিস্ট রংপুরে অবসরপ্রাপ্ত সশস্ত্রবাহিনী কল্যাণ সোসাইটির র‌্যালী ও আলোচনা সভা রংপুরে প্রাইম ব্যাংকের এটিএম বুথ থেকে টাকা চুরি কর্মকর্তা গ্রেফতার পার্বতীপুরে মাদক বিরোধী বিশেষ অভিযানে গর্তে লুকিয়ে রাখা বিপুল পরিমাণ বিদেশী মদসহ গ্রেফতার- ১   সাঘাটায় বালু উত্তোলনের বিরোধের জেরে বৃদ্ধকে পিটিয়ে হত্যা প্রধান আসামী গ্রেফতার

জনতার মাঝেই থাকেন যে জননেতা

  • আপডেট সময় : শনিবার, ১০ অক্টোবর, ২০২০
  • ৫৩ বার পঠিত

ফজিবর রহমান বাবু।- বৈশ্বিক মহামারী করোনা দূর্যোগে যখন মানুষ ঘরে বসে কর্মহীন দিনাতিপাত করছেন, তখন দিন রাত এক করে জনতার পাশে থাকার আপ্রাণ প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন দিনাজপুরের জননেতা মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি। উপরের কথাগুলোর প্রতিটি লাইন ও শব্দ একদম সত্যি হলেও এ লেখুনি দেখে অনেকমানুষই ভাবতে শুরু করবেন, হয়তো একটু বাড়ীয়ে বলছি।কিংবা তার দলের অন্ধ কোন সমর্থকের কথা এসব। এজন্য অনেকেই হয়তো লেখাগুলি পড়বেনই না। এখানে প্রশ্ন উঠতেই পারে, তাহলে কেন এমপি গোপালের গুনকীর্তন করে এ লেখা? হ্যাঁ তারও জবাব রয়েছে। তার আগে এখানে শতভাগ নিশ্চয়তা দিয়ে বলা যায়, সুবিধা ভোগ, অন্ধ সমর্থক কিংবা দালাল গোষ্ঠী কোনটার সাথেই এই লেখার কোন সম্পর্ক নেই। করোনা দূর্যোগের মতো অপরিচিত একটি যুদ্ধে মানুষের পাশে থাকা যে কি প্রয়োজন, তা যারা যারা সংকটে রয়েছেন তারাই বোঝেন। বিশেষ করে নি¤œবিত্ত ও মধ্যবিত্ত পরিবারগুলোর মাঝে যে হাহাকার ও হতাশার দেখা দিয়েছে। তাতে সকলকে সহায়তার হাত প্রসারিত করবার উৎসাহ দিতেই এ লিখা। সেই সাথে শুধুমাত্র একটি সত্যিকে তুলে ধরতেই এ লিখার অবতারনা। এখানে বলে রাখা ভালো- অনেকেই ভাববেন, এমপি গোপালের কি কোন সমালোচনামূলক কাজ নাই? তিনি কি সকল সমালোচনার উর্দ্ধে? না, কখনই না। মানুষ হিসেবে তারও ভুল-ত্রæটি থাকা অস্বাভাবিক নয়। তিনি কোন সমালোচনার কাজ করলে তা তুলে ধরতে কোন সাংবাদিক বা সংবাদকর্মী কিংবা আমজনতা পিছপা হবেন না। কেননা, এমপি গোপালই একজন এমন জনপ্রতিনিধি, যার কোন ক্যাডার বাহিনী নাই। পেশীশক্তির তার কোন প্রয়োজনই না। জনতার শক্তিই তার একমাত্র শক্তি। জনতার শক্তিতেই ছাত্রনেতা গোপাল আজ এমপি গোপাল। সুতরাং তার বিরূদ্ধে লিখলে তো লিখাই যাবে, এতে কারও বাধাও আসবে না। কিন্তু সেটা তো সঠিক হতে হবে। আর সঠিক না হলে জনতার শক্তিতেই ওই লেখক ও সমালোচকরা হারিয়ে যাবে ইতিহাসের আস্তাকুড়ে। এমপি গোপালের বেলায় অতীতে এমন অনেক উদাহরণ রয়েছে। যা আস্তাকুড়ে নিক্ষেপ হয়েছে। আজ এ লেখার মূল কথা হলো- দিনাজপুরের অনেক জনপ্রতিনিধি রয়েছেন, যে যারমত করে কাজ করেছেন, কিন্তু এমপি গোপালের মত এমন নেতার বড় অভাব। এই করোনা দূয়োর্গে এমপি গোপালই একজন প্রথম শ্রেণীর জনপ্রতিনিধি, যিনি দিন-রাত এক করে শুধুমাত্র মানুষের মমতায় কাজ করছেন। তিনি শুধু নিজ গাড়িতেই নয়, কখনও রিক্সা ভ্যানে, কখনও মোটর সাইকেলে আবার কখনও নিজ পায়ে হেঁটেও মানুষের জন্য কাজ করে চলেছেন। বিশ্বাস না হলে আপনি নিজেই পরখ করুন। কয়েকদিন লক্ষ্য করে দেখুন এমপি গোপালের কর্ম তৎপরতা। শুধুমাত্র ফটোসেশন করা এমপি গোপালের কাজ নয়, তিনি শুধু মানুষের জন্য কাজ করতে পারলেই পরিতৃপ্ত হন। তবে রাজনৈতিক নেতা হিসেবে সাংবাদিক বন্ধুরা তার যে ফটো তোলেন, সেটাও তার সাথে আন্তরিকতার পরিচয় বহন করে। সাংবাদিক বান্ধব এমপি গোপাল সাংবাদিক, সংবাদকর্মী এমনকি হকারদের জন্যও কাজ করেন। সুতরাং তার ছবি বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম কিংবা পত্রিকার পাতায় তো স্থান নেবেই। শুধু ত্রানের ফটোসেশন করলেই আসলে জননেতা হওয়া যায় না। জননেতা হতে হলে এমপি গোপালের মত একজন নিঃস্বার্থ পরপোকারী মানুষ হতে হয়। যিনি করোনা দূর্যোগে নিজের এলাকার মানুষের মাঝে তো বটেই, দিনাজপুরের বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষকেও সহায়তা করেছেন। এমন একজন মানুষকে সংসদ সদস্য হিসেবে পেয়ে শুধু তার নিজ এলাকা বীরগঞ্জ-কাহারোল নয়, পুরো দিনাজপুরবাসী গর্বিত।
অনেকে এখানে প্রশ্ন তুলতে পারেন, এমপির আর কাজ কী? তিনি তো জনগনের জন্য কাজ করবেনই। এটাই তো তার কাজ। তাহলে এসব লিখবার কি দরকার? অবশ্যই লিখবার দরকার আছে। কেননা, আমরা সকলেই দেখতে পাচ্ছি । পুরো দিনাজপুর জেলা ঘুরে একটু চোখ বন্ধ করলেই সহজেই বুঝে উঠতে পারবেন, আসলে এমপি গোপাল কিভাবে জনতার মাঝে মিশে আছেন। কোন প্রটোকল লাগে না, কোন প্রটেকশন লাগে না, যে কেউ তার সমস্যার কথা অকপটে বলতে পারেন এ জননেতাকে। তো এসব মানুষকে উৎসাহ যোগাবে কে? আপনাকে- আমাকেই উৎসাহ দিতে হবে। আর এ উৎসাহের ফলে জনতা আরো বেশী উপকৃত হবে। মূলতঃ সব কিছুর উপর মানুষ সত্য। মানুষের উপর কিছু নেই। যা এমপি গোপালসহ আমরা সবাই কমবেশী মনে করি। তাই মানুষের উপকারার্থেই আজকের এ লিখা।
এবার আসি, কীভাবে এমপি গোপাল এমন জননেতা হলেন? ১৯৬৪ সালের ১ লা জানুয়ারী কোন এক পাখিডাকা ভোরে বাবা দীনেশ চন্দ্র শীল ও মা নিত্য রানী শীলের কোল আলোকিত করে জন্ম নেন মনোরঞ্জন শীল গোপাল। তখন কে জানতো- এই গোপালই হবে, জননেতা গোপাল! তিনি দিনাজপুর কান্তনগর পূর্ব মল্লিকপুর হাই স্কুল থেকে এস.এস.সি, দিনাজপুর সরকারি কলেজ ও দিনাজপুর আদর্শ কলেজ থেকে যথাক্রমে এইচ.এস.সি এবং বি.এ পাশ করেন। তখন তিনি আদর্শ কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন। তিনি ছাত্রজীবন থেকেই রাজনীতির সুচনা করেন। কিন্তু গতানুগতিক রাজনীতি তিনি কখনই করেননি। যদিও ছাত্রলীগের রাজনীতির মাধ্যমেই তার রাজনৈতিক জীবনের হাতে খড়ি। তথাপিও তিনি টেন্ডারবাজী, নেতাবাজী, অস্ত্রবাজীর উর্দ্ধে থেকে ছাত্রদের জন্য কাজ করেছেন। ১৯৭৪ সালে ছাত্রলীগের সঙ্গে সক্রিয় রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হন মনোরঞ্জন শীল গোপাল। সে এক বিস্তর আলোচনা। আজকের আলোচনার বিষয় সেটা না। মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি হবার পর অনেকেই বলতেন, শুধু সদর হাসপাতালে গিয়েই এমপি হয়ে গেলেন গোপাল। হ্যাঁ সত্যিই তাই, তাঁর নির্বাচনী এলাকার কোন মানুষ অসুস্থ হয়ে এসেছেন কিনা, তা জানার জন্য তিনি নিয়মিত প্রতিদিন হাসপাতাল যেতেনে। সাধ্যমত সহায়তা করতেন। যা তিনি এখনও বলবৎ রেখেছেন। যদিও এখন তার কর্মকান্ডের পরিধি অনেক ব্যাপক। তথাপিও দিনের মধ্যে সময় সুযোগ করে নিয়ে এলাকার অসুস্থ মানুষের খবর নিতে তিনি হাসপাতালে যান। হয়তো অনেকেই না দেখে বিশ্বাস করবেন না। বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতেও প্রিয়জনদের নিষেধ উপেক্ষা করে মোটরসাইকেলে চেপে হাসপাতাল গিয়ে মানুষের খোঁজ-খবর নেন এবং সহায়তা প্রদান করেন। এমন মানুষকে এমপি নির্বাচিত করবে না, তো আর কাকে এমপি বানাবে মানুষ! যাক, সে কথা। মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি নির্বাচিত হন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে। শুধুমাত্র তার নিজস্ব জনপ্রিয়তায় তিনি সেদিন দেখিয়ে দিয়েছিলেন, মানুষের জন্য কাজ করলে আসলে মানুষ তার সঠিক প্রতিদান দেন। এভাবেই ধীরে ধীরে, বলা যায় তিলে তিলে মনোরঞ্জন শীল গোপাল হয়ে ওঠেন জননেতা। তিনি দিনাজপুরের ঐতিহাসিক ইয়াসমিন ট্রাজেডীর সময় সামনে থেকে নেতৃত্ব দেয়া একজন লড়াকু নেতা। তখন অনেক নেতাই ছিল, যারা কিনা বিক্রি হয়ে গিয়েছিল। তাদের নাম এখানে উল্লেখ করা নিষ্প্রয়োজন। কেননা, ওই ঘটনার যারা প্রত্যক্ষদর্শী, তারা সবাই জানেন, দিনাজপুরে পুলিশ কর্তৃক ইয়াসমিন ধর্ষণ ও হত্যার বিরুদ্ধে প্রথম প্রতিবাদকারী ও পরবর্তীতে গড়ে ওঠা আন্দোলনে সরাসরি নেতৃত্ব দিয়েছেন মনোরঞ্জন শীল গোপাল। তৎকালীন পুলিশের বিরুদ্ধে আন্দোলন করতে গিয়ে ১৩টি মামলার আসামী হন তিনি। যার মধ্যে ৯টি মামলারই প্রধান আসামী ছিলেন। আন্দোলনে পুলিশের গুলিতে সামু,কাদের, সিরাজসহ ৭ জন নিরপরাধ ব্যক্তি নিহত হয়। পরবর্তীতে বিচারে ৩ জন পুলিশের ফাঁসি হয়। যা মনোরঞ্জন শীল গোপালের সক্রিয় ভূমিকার জন্য সম্ভব হয়েছিল। এতো ছিল এমপি নির্বাচিত হবার আগের ঘটনা। কিন্তু পরে তিনি কী করলেন, সেটা মানুষের জানা দরকার। অবশ্য দিনাজপুরের মানুষ সেগুলো জানে।
দিনাজপুরের ১৩ উপজেলার মধ্যে সবচেয়ে অবহেলিত এলাকা ছিল কাহারোল উপজেলা। এ এলাকায় এখন যে উন্নয়ন হয়েছে তা যুগান্তকারী। ঐতিহাসিক কান্তজীউ মন্দিরে যাওয়ার জন্য ঢেপা নদীর উপর ব্রীজ নির্মান হওয়ায় ১০ কিঃমিঃ দুরত্ব কমেছে। এছাড়া কাহারোল ব্রীজ ইতোমধ্যে নির্মান করা হয়েছে। যা অচিরেই জনসাধারণের চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করা হবে।একজন হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষ হিসেবে তিনি শুধু কান্তজীউ মন্দিরের উন্নয়ন করতে পারতেন। কিন্তু তিনি যে জননেতা। তাই তিনি কান্তজীউ মন্দিরের পার্শে অবস্থিত নয়াবাদ মসজিদটিও সংস্কার করেছেন। ৩৫০ বছরের ঐতিহাসিক পুরাকীর্তির নিদর্শন এই মসজিদ-মন্দির সংরক্ষণের জন্য ব্যয় করা হয়েছে ৭৫ কোটি টাকা। কান্তজীর মন্দির সংলগ্ন জাদুঘর, হোটেল, মোটেল, অভ্যন্তরীণ সড়ক নির্মাণ করা হয়েছে। এছাড়াও শত বছরের ঢেকে যাওয়া শিব মন্দিরও সেখানে উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে। ২ উপজেলাতে ফায়ার স্টেশন নির্মাণ, কাহারোলে শিল্পকলা একাডেমী, মুক্তিযুদ্ধ কমপ্লেক্স নির্মাণ, আদিবাসী এবং দরিদ্র মানুষের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে দীপ্ত জীবন ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে দীপ্ত ফাউন্ডেশন হাসপাতাল নির্মাণ করা হয়েছে। এখানে বহিঃ বিভাগে প্রত্যেক সপ্তাহের শুক্র ও শনিবার ২দিন বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা ও বিনামূল্যে ঔষধ দেয়া হয়। কিছু কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষা বিনামূল্যে করা হয়। বীরগঞ্জে গোধূলী বৃদ্ধাশ্রম নামে একটি বৃদ্ধদের আশ্রম করা হয়েছে। এই বৃদ্ধাশ্রমে ২০ জন বৃদ্ধের গত ৪ বছর যাবৎ অবস্থান করছেন বিনা খরচে। গ্রাম পুলিশদের যোগাযোগের জন্য দেয়া হয়েছে মোবাইল। দেশের বীর সন্তানদের ইতিহাস-ঐতিহ্য ধরে রাখার জন্য কাহারোলের ১২ মাইল মোড়ে কান্তনগর মন্দিরের প্রবেশ দ্বারে তেভাগা চত্ত¡র ও স্তম্ভ করা হয়েছে। সেখানে ইলা মিত্র, গুরুদাশ তালুকদার, হাজী দানেশ, খোকা বাইশ ও সাওতাল বিদ্রোহের নেতা সিধু-কানুর ভাস্কর্য নির্মাণ করা হয়েছে। বীরগঞ্জে শহীদ মিনার মোড়ে বিজয় চত্ত¡র করা হয়েছে। প্রায় শতভাগ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার স্থাপন করা হয়েছে। ২ উপজেলায় অনেক প্রাইমারী ও হাইস্কুলের ভবন নির্মাণ করা হয়েছে। এছাড়াও বীরগঞ্জ কলেজ, জয়ানন্দ কলেজ, পূর্ব মল্লিকপুর কলেজ, ঝাড়বাড়ি কলেজ, গোলাপগঞ্জ কলেজ, রামচন্দ্রপুর হাইস্কুল, কাহারোল কলেজে ৬টি চারতলা ভবন নির্মাণ করা হয়েছে। এছাড়া দুটি সরকারি কলেজ ভবন-বীরগঞ্জ ও কাহারোল কলেজ প্রক্রিয়াধীন। কাহারোলে শতভাগ বিদ্যুতায়ন সম্পন্ন হয়েছে। শীঘ্রই বীরগঞ্জও শতভাগ বিদ্যুতায়নের আওতায় আসবে। ইউনিয়ন ভূমি অফিস, উপজেলা কমপ্লেক্স, থানা ভবনসহ অজ¯্র উন্নয়ন কাজ করেছেন এমপি মনোরঞ্জন শীল গোপাল। বীরগঞ্জ ও কাহারোল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৫০ শয্যায় উন্নীত করা হয়েছে। বীরগঞ্জ-কাহারোল উপজেলায় এখন আর কোন সাঁকো নেই। প্রায় সব জায়গায় ব্রীজ নির্মাণ করা হয়ে গেছে।
এসবই তার এলাকার উন্নয়নের কথা। আজকের আলোচনা কিন্তু করোনা দূর্যোগ। এই দূর্যোগে এমপি গোপাল ছুটে চলেছেন গ্রাম-গ্রামান্তরে। মানুষ যেন কর্মহীন হয়ে কষ্ট না পায় সেজন্য কাজ করছেন। সত্য কথা বলতে গিয়ে যদি কারও কষ্ট লাগে, কিছু করার নেই। প্রকৃতপক্ষে অনেকে এভাবে কাজ করছেন না। প্রত্যেকেরই গোপাল এমপির মতো কাজ করা প্রয়োজন। তাহলে কোন এলাকায় কোন মানুষ আর কষ্ট পাবে না। এমপি গোপাল নিজের হাতে প্রায় ২৮ হাজার পরিবারের মাঝে খাদ্য সহায়তা সামগ্রী বিতরণ করেছেন। পাশাপাশি শহরের হকারসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষের মাঝে করেছেন খাদ্য ও অর্থ সহায়তা। আগেই বলেছি, অসুস্থদের চিকিৎসা সহায়তা প্রদান তো অব্যাহত রয়েছেই। তিনি তাঁর এলাকায় ৩২২টি মসজিদে প্রধানমন্ত্রী প্রেরিত ৫ হাজার টাকা করে প্রত্যেক সভাপতির হাতে সুষ্ঠুভাবে বিতরণ করেছেন।
ব্যক্তিগত জীবনে ১৯৯৪ সালে মনোরঞ্জন শীল গোপাল মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের মেয়ে গীতা রানীকে সাত পাকে বেঁধে পরিণয় সুত্রে আবদ্ধ হন। তিনি এক পুত্র সন্তানের গর্বিত পিতা। মনোরঞ্জন শীল গোপালের সাথে কথা বলতে গেলে তিনি বলেন, জনগনের ভালোবাসায় সিক্ত করে বার বার ভোট দিয়ে আমাকে নির্বাচিত করেছে। তাদের জীবনমান উন্নয়ন এটাই আমার ধ্যান, এটাই আমার ইবাদত। জনগনের এ ভালোবাসার ঋণ, এটি আমার মত নগন্য মানুষের পরিশোধ করা অসম্ভব। তবে আমি মনে করি, জনগনের জন্য ন্যায় প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে আমার মৃত্যু হলেও সে মৃত্যু হবে স্বার্থক মৃত্যু।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com