শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ০৪:১০ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
চিলমারী কল্যাণ সমিতির কমিটি গঠন পীরগঞ্জে পাটচাষীদের প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত   দিনাজপুর শিশু একাডেমীর চিত্রাংকনসহ বিভিন্ন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত ফুলবাড়ীতে নেসকো গ্রাহকদের নিয়েপিএলসির নেসকোর  গণশুনানী ফুলবাড়ী শিবনগর ইউনিয়নে বয়স্ক ও বিধবা ভাতার কার্ড এর লটারি অনুষ্ঠিত  পলাশবাড়ীতে দুই বাইকের সংঘর্ষে আহত স্বদেশ এর মৃত্যু এসএসসি পরীক্ষায় মোবাইলে  প্রশ্নপত্র ফাঁস এক শিক্ষকের কারাদন্ড রংপুরে শেখ রাসেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদের ৩৬ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন “শেকড় ” এর সহয়োগীতায় বর্ণমালায় রোদ্দুর কবিতা পাঠের আসর বাংলাদেশ প্রেসক্লাব পীরগঞ্জ শাখার সম্মেলন ও কমিটি গঠন

ড. মাহমুদ রিজা শহীদের দাফন কার্য সম্পন্ন

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : রবিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৩৮৮ বার পঠিত

নিজস্ব প্রতিনিধি।- দিনাজপুরের সূর্যসন্তান মুক্তিযদ্ধের অন্যতম শীর্ষ সংগঠক বৃহত্তর দিনাজপুরের আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি ও সাবেক এমএনএ এ্যাডভোকেট মরহুম আজিজুর রহমানের জেষ্ঠ্য পুত্র এবং কবি ও কথাশিল্পি মুজতবা আহমেদ মুরশেদ এবং যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সংরক্ষিত মহিলা আসনের এম পি এ্যাড. জাকিয়া তাবাস্সুম জুঁই এর বড় ভাই ড. মাহমুদ রিজা শহীদ ২৬ সেপ্টেম্বর শনিবার ১২: ৩০ মিনিটে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ঢাকা মেডিক্যালে আইসিইউ এ চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি ওয়া রাজিউন)
২৭ সেপ্টেম্বর রবিবার মধ্যরাতে মরহুমের মৃত দেহ বাবার বাসা ঘাসিপাড়া নিয়ে আসা হয় এবং সকাল ১১ সোনাপীর কবরস্থানে স্বাস্থ্য বিধি মেনে২য় জানাযার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। জানাযার নামাযে অংশ নেন দিনাজপুর জেলা প্রশাসক মোঃ মাহমুদুল আলম, উপজেলা নিবার্হী অফিসার মাগফুরুল হাসান আব্বাসীসহ মরহুমের স্থানীয় বন্ধু বান্ধব ও পাড়া প্রতিবেশী। জানাযা নামাজ শেষে সোনাপীর কবরস্থানে বাবা ভাই ও বোনের কবরের পাশে দাফনকার্য সম্পন্ন ও মরহুমের রুহের মাগফিরাত কামনায় দোআ খায়ের করা হয়। ২৮ সেপ্টেম্বর সোমবার ঘাসিপাড়া জামে মসজিদে মরহুমের জন্য মিলাত-মাহফিল ও দোআ-খায়ের অনুষ্ঠিত হবে
মৃত্যুকালে তার বয়স ছিল ৭১ বছর। তিনি স্ত্রী,পুত্র-পুত্রবধুসহ অসখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন।
উল্লেখ্য, দিদনাজপুর জেলা স্কুলের ১৯৭০ সালে এসএসসি ছাত্র ছিলেন । মুক্তিযুদ্ধের পর দিনাজপুর সরকারি কলেজ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ইতিহাস বিভাগে ভর্তি হয় ১৯৭৩ সালে। পরে তিনি উচ্চশিক্ষা নিতে সোভিয়েত ইউনিয়নে যায়। সোভিয়েত ইউনিয়নে এমএ পরীক্ষায় ৯৩% নম্বর পেয়ে সরাসরি পিএইচডির জন্যে নমিনেশন লাভ করেছিলেন। “ইন্ডিয়ান ওশান জোন অব পিস” থিসিস নিয়ে পিএইচডি ডিগ্রী অর্জন করেন। ১৯৮৭ সালে ডক্টরেট করে দেশে ফিরে এসে বাংলাদেশ তাঁত বোর্ড এর মহা-ব্যবস্থাপক পদে প্রায় পঁচিশ বছর দায়িত্ব পালন করেন।
বাংলাদেশ হ্যান্ডলুম বোর্ডে মহা ব্যবস্থাপক (যুগ্ম সচিব পদমর্যাদা) হিসাবে তিনি দীর্ঘ সময় অতিবাহিত করেছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com