1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
শুক্রবার, ১৫ জানুয়ারী ২০২১, ০৬:১৯ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
নবাবগঞ্জ উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডিজিটাল এক্সে-রে মেশিনের উদ্বোধন    তিন মাঘ পীরগঞ্জে পিঠা উৎসব আজ পীরগঞ্জে কৃষকলীগের শীতবস্ত্র বিতরণ রংপুরে ক্ষতিকর পলিব্যাগ ব্যবহারে পনের হাজার টাকা জরিমানা বীর মুক্তিযোদ্ধা অবসর প্রাপ্ত নায়েক সুবেদার আশরাফ উদ্দিনের মৃত্যুতে বিজিবির শ্রদ্ধাঞ্জলি পীরগঞ্জে কৃষি অধিদপ্তরের ফসলের বালাই ব্যবস্থাপনা ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠিত ফসলের ন্যায্য মূল্য নিশ্চিতে অতন্দ্র প্রহরী হিসেবে কাজ করছে কৃষকলীগ: সমির চন্দ্র ফুলবাড়ী উপজেলার ২৯ বিজিবি অভিযান চালিয়ে মাদকদ্রব্য সহ দুইজন আটক  নবাবগঞ্জে গলায় ফাঁস দিয়ে এক ব্যক্তির আত্মহত্যা ফুলবাড়ীতে সবজি লাউ গাছের বাগানের লক্ষাধিক টাকার ক্ষতিসাধন

তা হলে মিনিকেট চাউল আমরা খাচ্ছি কেন ?

  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর, ২০২০
  • ২১ বার পঠিত

আশরাফুল আলম।- মিনিকেট নামে কোন ধান চাষ হয়না বাংলাদেশে। এই চাল বাজারে আসে কোথা থেকে? এই প্রশ্নের উত্তর খুব সহজ, মিনিকেট চাল তৈরী হয় কারখানায়।
দেশি জাতের ধান মোটা চাউল চালকলে আসার পর শুরু হয় তেলেসমাতি। প্রথমে মেশিনে ধানের খোসা ছাড়ান হয়। খোসা ছাড়ানোর পর চালের অকৃত্রিম/ন্যাচারাল রঙে কিছুটা খয়েরি,বাদামি আভা থাকে। এরপর কেমিক্যাল ও হোয়াইটনার মেশিনের মাধ্যমে চালের খয়েরি ও বাদামি আভার আবরণটিকে আলাদা করা হয়। এই আবরণটি বাদ দেওয়ার পর চাউল কিছুটা সরু ও সাদা হয়। এখানেই শেষ নয়, পলিশার মেশিনের মাধ্যমে পলিশ করলেই হয়ে যায় মোটা চাউল মিনিকেট চাউল ।
এবার প্রশ্নের তীর তাক করে কেউ কেউ বলতেই পারেন, মোটা চাউলকে এতোভাবে প্রসেস করে মিনিকেট বানালে তো চাল ব্যবসায়ীর ক্ষতি হবে?
এবার ক্ষতির হিসেবটা করা যাক- ১০০০ কেজি মোটা চাল প্রসেস করে মিনিকেট বানালে সাধারণত চাল পাওয়া যায় ৯৩৩ কেজি, সাদা খুদ ২৬.৫ কেজি, কালো খুদ ১৪ কেজি, মরা চাল ৪.৫ কেজি, ময়লা ০.৭৫ কেজি এবং পলিশ ২৭ কেজি। যোগ করলে দেখা যায় এক হাজার কেজি চাল প্রসেস করার পর পাওয়া যাচ্ছে প্রায় ৬ কেজি বেশী। এই ছয় কেজি হচ্ছে জলীয় বাষ্প ও পানি। রাইস ব্রান তেল কারখানাগুলো, পলিশ কিনে নেয়, সাদা খুদ বাজারে চালের অর্ধেক দামে বিক্রি হয়। কালো খুদ আর মরা চাল পশুখাদ্য হিসেবে বিক্রি হয়। ভাবছেন চাল প্রসেসের খরচ কত ? ১০০০ কেজি মোটা চাল প্রসেস করে মিনিকেট বানাতে খরচ হয় মাত্র ৯০০ টাকা হতে ১৫০০টাকা। অর্থাৎ কেজি প্রতি ৯০পয়সা থেকে দেড় টাকা।
মোটা চাল প্রসেস করে মিনিকেট বানিয়ে বিক্রেতা একটু বেশী লাভ করলে ক্রেতার ক্ষতি কি ? ছোট ক্ষতি হচ্ছে ক্রেতা চিকন চালের দামে মোটা চাল কিনছেন, অর্থাৎ ক্রেতা কেজিতে ১৫ থেকে ২০টাকা পর্যন্ত ঠকছেন। বড় ক্ষতি হলো কেজিতে ১৫ থেকে ২০ টাকা বেশী দিয়ে মিনিকেট চাল নয়, ক্রেতা কিনছেন মোটা চালের আবর্জনা। কারণ, প্রসেস করার মাধ্যমে চালের উপরি আবরণ (bran অর্থাৎ  pericarp, seed coat, aleurone layer, embryo) বা পুষ্টিকর অংশ বাদ দেওয়া হয়।
উল্লেখ্য, চালের সর্বমোট ৮৫ ভাগ ভিটামিন B3 থাকে pericarp–G ,প্রোটিন আর ফ্যাট থাকে Aleurone layer -এ, খনিজের ৫১ ভাগ ও মোট আঁশের ৮০ ভাগ থাকে  bran –এ, ভিটামিন B1 ও ভিটামিন  E থাকে embryo -তে। চালের সব পুষ্টিকর উপাদান তেলের মিলে বিক্রির জন্য প্রসেস করে আলাদা করার পর চাল আর চাল থাকেনা, হয়ে যায় চালের আবর্জনা।
মিনিকেট চাল নামে চালের আবর্জনাকে যতোটা ক্ষতিকর মনে করছেন বাস্তবে আরও বেশী ক্ষতিকর। মোটা চালকে মিনিকেটে রূপান্তর করার বিভিন্ন পর্যায়ে সোডিয়াম হাইড্রোক্লোরাইড, সোডিয়াম হাইড্রোক্লোরাইড + টুথপেস্ট +এরারুটের মিশ্রণ, সোয়াবিন তেল, ফিটকারি, বরিক পাউডার ব্যবহার করা হয়। এই চাউল তৈরীতে প্রতি মৌসুমেই বের হয় নিত্য নতুন কৌশল।
আর একটি কথা জানাচ্ছি, মিনিকেট চালে কখনো পোকা ধরেনা। কারণ পোকাও জানে এই চাল খাওয়ার যোগ্য নয়, এতে পুষ্টিগুণ নেই। তা হলে দেখতে সুন্দর এই অখাদ্যকে আমরা খাচ্ছি কেন ?

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com