1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:৪৯ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :

দাম বেড়েই চলেছে নিত্যপণ্যের নিয়ন্ত্রণহীন সবজির বাজার: স্বস্তি নেই কাঁচা মরিচ ও পিঁয়াজে

  • আপডেট সময় : শনিবার, ১০ অক্টোবর, ২০২০
  • ৪৯ বার পঠিত

দাম বৃদ্ধি পেয়ে ধীরে ধীরে সাধারণ জনগণের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছে সব ধরনের সবজি। বর্তমানে আলু থেকে শুররু করে সব ধরনের সবজি ৫০ থেকে ৬০ টাকার উপরে। বন্যার কথা বলে প্রায় তিন মাস আগে বৃদ্ধি পাওয়া সবজির দাম কমার কোন লক্ষণও নেই। দাম কেজিতে প্রায় ৫ থেকে ১০ টাকা বৃদ্ধি পাচ্ছে প্রতি সপ্তাহে। বর্তমানে পাঁচটি সবজির কেজি ১০০ টাকা স্পর্শ করেছে। বাকি সবজির বেশিরভাগের কেজি বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকার কাছাকাছি। এছাড়া সরকার পাইকারি বাজারে চালের দাম নির্ধারণ করে দেয়ার পর ১০ দিন পেরিয়ে গেলেও তার প্রভাব নেই খুচরা বাজারে। দাম বেঁধে দেয়ার আগে থেকেই বাড়তি দামে চাল বিক্রি হচ্ছিল। এখনও সেই দামেই বিক্রি হচ্ছে। রাজধানীর মিরপুর, শেওড়াপাড়া, কাজীপাড়া, আগারগাঁও ও কাওরানবাজার ঘুরে ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে। গতকাল কারওয়ান বাজারে দেখা যায়, গত সপ্তাহে ৪০ থেকে ৪২ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া আলুর দাম বেড়ে হয়েছে ৪৫ থেকে ৫০ টাকা। শিম, পাকা টমেটো, গাজর, বেগুন ও বরবটির কেজি ১০০ টাকা স্পর্শ করেছে। এরমধ্যে পাকা টমেটো গত কয়েক মাসের মতো এখনও ১২০ থেকে ১৪০ টাকা এবং গাজর ৮০ থেকে ১০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। গত সপ্তাহের মতো শিমের কেজি বিক্রি হচ্ছে ১২০ থেকে ১৪০ টাকা। নতুন করে দাম বেড়ে ১০০ টাকা স্পর্শ করা বরবটির কেজি বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ১২০ টাকা, তা আগে ছিল ৭০ থেকে ৮০ টাকা। ৬০ থেকে ৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হওয়া বেগুনের দাম বেড়ে ৮০ থেকে ১১০ টাকা হয়েছে। এই পাঁচ সবজির পাশাপাশি স্বস্তি দিচ্ছে না অন্য সবজিগুলোও। গত সপ্তাহে ৪০ থেকে ৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হওয়া পটলের দাম বেড়ে ৬০ থেকে ৭০ টাকা হয়েছে। লাউয়ের পিস বিক্রি হচ্ছে ৭০ থেকে ৮০ টাকায়, তা গত সপ্তাহে ছিল ৬০ থেকে ৭০ টাকা। দাম বৃদ্ধির এ তালিকায় রয়েছে কাঁচা কলা, ঝিঙা, কাঁকরোল। গত সপ্তাহে ৩০ থেকে ৩৫ টাকা হালি বিক্রি হওয়া কাঁচা কলা বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা। ৪০ থেকে ৫০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া ঝিঙার দাম বেড়ে ৬০ থেকে ৭০ টাকা হয়েছে। কাঁকরোল বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৬০ টাকায় যা গত সপ্তাহে ছিল ৪০ থেকে ৫০ টাকার মধ্যে। এছাড়া বাজারে নতুন আসা ফুলকপি ও বাঁধাকপির পিস বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৬০ টাকা, তা গত সপ্তাহে ছিল ৩০ থেকে ৫০ টাকার মধ্যে। গত সপ্তাহের মতো ৩০ থেকে ৫০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে মুলা। পেঁপের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৫০ টাকা। স্বস্তি মিলছে না কাঁচামরিচ ও পিয়াজের দামেও। কাঁচামরিচের পোয়া (২৫০ গ্রাম) বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৬০ টাকা। দীর্ঘদিন ধরেই এমন চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে কাঁচামরিচ। এক কেজি কাচা মরিচের দাম ২৪০ টাকা, আর পিয়াজের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ৯০ টাকা। গত মাসে ভারত পিয়াজ রপ্তানি বন্ধের ঘোষণা দেয়ার পর থেকেই এমন চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে পিয়াজ। বাজার মোটামুটি স্থিতিশীল আছে মাছ, মুরগি ও ডিমের দামে। হাঁসের ডিম ১৮০ টাকা ডজন, লেয়ার মুরগির ডিম ১১৫ টাকা ডজন, দেশি মুরগির ডিম ১৫০ টাকা ডজন বিক্রি হচ্ছে। আর গরুর মাংস ৬০০ টাকা এবং খাসির মাংস বিক্রি হয় ৯০০ টাকা কেজি দরে। এছাড়া বয়লার মুরগির দাম প্রতি কেজি ১৩৫ টাকা, দেশি মুরগি প্রতি কেজি ৪৫০ টাকা, ফার্মের কক বা সোনালি মুরগি প্রতি কেজি ২৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। কারওয়ান বাজারে মাঝারি সাইজের প্রতি কেজি রুই-কাতলা ২২০ থেকে ২৫০ টাকা, আইড় ৬০০, কাচকি ৫০০, শিং ৬৫০ এবং ইলিশ ৭৫০ থেকে ৯০০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা যায়। এদিকে সরকার গত ২৯ সেপ্টেম্বর চালের দাম বেধে দেয়। সে অনুযায়ী ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে ভালো মানের মিনিকেট চালের ৫০ কেজির বস্তা ২৫৭৫ টাকা এবং ব্রি ২৮-সহ মাঝারি মানের চালের ৫০ কেজির বস্তা ২১৫০ থেকে ২২৫০ টাকা দরে বিক্রি হওয়ার কথা ছিল। ১০ দিন পেরিয়ে গেলেও সে দামের কোন প্রভাব নেই বাজারে। বরং সরকার দাম বেধে দেয়ার আগে বাড়তি যে দাম ছিল, এখনও সেই দামেই বিক্রি হচ্ছে চাল। বর্তমানে খুচরা বাজারে মিনিকেট ৫৫ থেকে ৫৮ টাকা, আটাশ ৪৮ থেকে ৫০ টাকা, নাজির শাইল ৬০ থেকে ৬২ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। আর পাইকারি বাজারে প্রতি বস্তা (৫০ কেজি) মিনিকেট চালের দাম পড়ছে ২৭৫০ থেকে ২৮০০ টাকা, আটাশ ২৪০০ টাকা ও নাজিরশাইল ২৩০০ থেকে থেকে ৩০০০ টাকা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com