বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৬:২০ অপরাহ্ন

দিনাজপুর শহর ও কোতয়ালী আওয়ামী লীগের দোয়া-মাহফিল অনুষ্ঠিত

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : বুধবার, ১১ নভেম্বর, ২০২০
  • ৯০ বার পঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক, দিনাজপুর।- জননেতা মরহুম আনোয়ারুল ইসলামের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকীতে দিনাজপুরে আওয়ামী লীগের দোয়া-মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

দিনাজপুর শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি, বিশিষ্ট সমাজসেবক জননেতা মরহুম আনোয়ারুল ইসলামের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ১১ নভেম্বর বুধবার বাদ আসর শহরের বন্ধন কমিউনিটি সেন্টারে দিনাজপুর শহর ও সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনের উক্ত দোয়া-মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

দিনাজপুর শহর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রায়হান কবির সোহাগের সভাপতিত্বে উক্ত দোয়া-মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ইমদাদ সরকার, প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক গোলাম নবী দুলাল, জেলা পরিষদের সদস্য ফয়সল হাবিব সুমন, চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি সুজা উর রব চৌধুরী, মরহুমের বড় ভাই এ্যাড. মেহেরুল ইসলাম, শহর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি দেবাশীষ ভট্টাচার্য, সাধারণ সম্পাদক এস এম খালেকুজ্জামান রাজু, যুগ্ম সা. সম্পাদক জহির খান, অনুপ কুমার দে, সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান জেসমিন আরা জ্যোসনা, রবিউল ইসলাম সোহাগ প্রমুখ।

এছাড়াও দিনাজপুর চেম্বারের পরিচালক ও শহর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এনাম উল্ল্যাহ জ্যামী পরিচালনায় দোয়া মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রত্যেক ওয়ার্ডের নেতাকর্মীসহ সকল অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী, শুভাকাঙ্খী ও আত্মীয় স্বজনেরা।

দোয়া-মাহফিলে সংক্ষিপ্ত আলোচনা শেষে জননেতা মরহুম আনোয়ারুল ইসলাম এর আত্মার মাগফিরাত কামনায় বিশেষ মোনাজাতে অংশ নেন উপস্থিত সকলেই।

এছাড়াও শহরের বাসুনিয়াপট্টিস্থ জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে সকাল থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত শেষে শেখ জাহাঙ্গীর কবরস্থানে তাঁর আত্মার মাগফিরাত কামনায় বিশেষ মোনাজাতের আয়োজন করে প্রতিষ্ঠান স্টাফ ও প্রিয়জনেরা।

মরহুমের স্বরণে বক্তারা বলেন, নিরহংকার আনোয়ারুল ইসলাম ছিলেন দিনাজপুরবাসীর হৃদয়ের নেতা। মৃত্যুর পর যানাজা নামাজে লক্ষাধিক মুসুল্লীর অংশ্রগ্রহনই বলে দেয় কতটুকু জনপ্রিয়তা ছিল তাঁর। তিনি রাজনীতি করতেন স্বার্থহীনভাবে। অসাম্প্রদায়িকতার সাথে পরোপকারই ছিল তাঁর মুল রাজনীতি।

বক্তারা আরও বলেন, রাজনৈতিক নেতার পাশাপাশি তিনি ছিলেন একজন সৎ, নির্ভিক ব্যবসায়ী নেতা। ফুটপাত থেকে শুরু করে ধনাঢ্য ব্যবসায়ীদের সমস্যার সমাধানে সারাদিন ব্যস্ত থাকতেন তিনি। সর্বপরি আমরা শুধু একজন নেতাকেই হারাইনি, হারিয়েছি দিনাজপুরবাসীর ভবিষ্যত।

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের ১১ নভেম্বর ভারতের দিল্লীতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, এক কন্যা ও এক পুত্র সন্তানসহ আত্মীয়-স্বজন, অসংখ্য গুনাগ্রাহী রেখে গেছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com