1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
রবিবার, ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:০০ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
রংপুরে কমিউনিস্ট পার্টির প্রয়াত নেতা কমরেড আফজালুর রহমান এবং কমরেড চন্দন ঘোষ স্মরণে শোকসভা অনুষ্ঠিত সাড়ে পাঁচ ঘণ্টায় ৪৬ কিলোমিটার সাঁতার কাটলেন রাব্বী রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীকে ছুরিকাঘাতের ঘটনায় মূলহোতা গ্রেফতার চাপাতি উদ্ধার দিনাজপুরে মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে ল্যাপটপ বিতরণ পীরগঞ্জে এতিমখানার উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন প্রস্তুত রংপুরের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শেষ মুর্হুতে চলছে শ্রেণীকক্ষ পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ পীরগঞ্জে দুই পৌরসভার মেয়র ও কাউন্সিলরদের সন্মাননা প্রদান দেশে পদ্মা সেতুর পর এখন মেট্রো ট্রেন দৃশ্যমান -মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি নবাবগঞ্জে জেলা প্রশাসকের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার কাজ শেষ পুনরায় পাঠদানে প্রস্তুত শেরপুরের প্রায় তিন শতাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

পীরগঞ্জের বন্যপ্রাণি মহাসংকটে ব্যবস্থা নেয়া দরকার

  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ৬২ বার পঠিত

সুলতান আহমেদ সোনা।- রংপুর জেলাধীন পীরগঞ্জ উপজেলার বন্যপ্রাণি ,পাখি মহাসংকটে আছে। প্রাকৃতিক পরিবেশে বিরুপ প্রভাব,আবাসস্থল ধ্বংস, নিরাপত্তাহীনতা, খাদ্যাভাব,মানুষের আক্রমন, অত্যাচারে অতিষ্ঠ এষানকার বন্যপ্রাণিরা। এ ছাড়াও বংশবৃদ্ধিতে নানা বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছে পশু পাখিরা। সবার সদয় অবগতির জন্য জানাচ্ছি, এক সময় পীরগঞ্জ উপজেলার ১৫টি ইউনিয়নে ব্যাপক ঝাড় বন জঙ্গল ও ডোবা,পুকুর, নালা, খাল বিল,নদী ছিল। ঘন জঙ্গল ও বন্যপরিবেশে পাখি ও প্রাণিরা ছিল অনেকটা নিরাপদ। বনে বনে ফল ফলাদীর গাছ থাকায় সারা বছরেই পাখিরা পেত খাবার। পাশাপাশি প্রাণিরা শিকার করে তাদের খাদ্যের চাহিদা পূরণ করতো। বন্য প্রাণিরা সারা বছর চাহিদা মত পানিরও যোগান পেত। কিন্তু ১৯৬৫ সাল থেকে মানুষ আবাদী জমি বৃদ্ধির দিকে আগ্রহী হয়ে উঠায় বন – জঙ্গল ধ্বংশে মেতে উঠে, যা আজো অব্যাহত আছে। ফলে আবাসস্থল হারিয়ে বংশবৃদ্ধি ও রক্ষার ক্ষেত্রে সংকটে পড়েছে প্রাণিকুল। পীরগঞ্জ উপজেলায় এখনো সরকারের বন ভিভাগের বেশ কিছু বন রয়েছে। কিন্তু সে বনে প্রাণিদের বসবাসের পরিবেশ নেই। বন মানে শুধু কাঠ জাতীয় বৃক্ষের সারি নয় ! বন মানে “বনভুমি” যেখানে থাকবে নানা জাতের বৃক্ষ লতা পাতা,বাঁশ,বেত,ঝাউ জঙ্গল, আগাছাময় পরিবেশ। যা প্রাকৃতিক ভাবে সৃষ্টি হয়। এখন পীরগঞ্জে নথি পত্রে সরকারের বনভুমি আছে। কিন্তু প্রকৃত অর্থে বন রক্ষা, বন সৃজন, বন বিস্তারে বন বিভাগের কর্মকর্তাদের কোন ভুমিকা নজরে পড়ে নাই। অপর দিকে বন ধ্বংশের সব তৎপড়তা নজর কেড়েছে। কোন কোন এলাকায় কবর স্থান, এবং ব্যক্তিগত মালিকানাভুক্ত জমিতে কিছু ঝাড় জঙ্গল দেখা গেলেও সেখানেও প্রতিবন্ধকতার কারনে প্রাণিরা নিরাপদে বসবাস করতে পারছে না। এখন প্রাণিরা নিরাপদে মিলিত হতে পারছেনা এবং বংশবৃদ্ধিও ঘটচ্ছে না। পীরগঞ্জ উপজেলায় আজ থেকে ৫০/৬০ বছর আগে নানা জাতের পাখির আনা গোনা ছিল। এখানকার প্রায় ৩০টি ছোট বড় বিল ঝিলে মাছরাঙ্গা, নানা প্রজাতির বক, বান কাউড়, রাতচরা,পরিযায়ি অতিথি পাখি, হাঁস আসতো জলে ভাসতো। এখন আর পাখিরা আসে না। বিল এলাকায় চিল,কুড়–য়া উড়ত। এখন আর দেখা যায়না। ছিল উদ কাছিম , দুড়া তাও নেই। এখানকার বনে জঙ্গলে ছিল বাঘডাসা,বাঘ শেলনে, শিয়াল,খেক শিয়াল, বন বিড়াল,গাড়োয়া,তিন জাতের শুকোর, বিড়াল পায়া খরগোশ, ছাগলপায়া খরগোশ, বেজি, সজারু। ছিল তালের দিঘি , বাঘের দিঘি, দুরামিঠিপুর, বিষ্ণপুর ও পাটগ্রামের জঙ্গলে বাঘ। এখন এসব শুধুই গল্প।একসময় পীরগঞ্জে দেখা মিলত এ রকম বেশ কিছু প্রাণি পাখির পরিতাপের বিষয় আজ আর দেখা মেলে না। যাও দু’চারটি প্রাণি কোনমতে টিকে আছে সেগুলো শিকারীদের হামলায় বিলিন হবার পথে।অভিযোগ রয়েছে বর্তমানে পীরগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে বসবাস করে সাওতাল, উড়াও, মালোরা। তারা দিনের বেলায় শিকার করছে বন্যপ্রাণি। গত ২৭ নভেম্বর ২০২০ তারিখে পীরগঞ্জ উপজেলার ১ নং চৈত্রকোল ইউনিয়নের কলোনী বাজার এলাকায় সাওতালদের সন্মিলিত আক্রমনে মারা পড়েছে বেশ কটি বল বিড়াল। তাই বন্যপ্রাণি রক্ষায় আমরা দেশের মৎস্য- প্রাণি সম্পাদ এবং বন ও পরিবেশ মন্ত্রনালয়কে পদক্ষেপ নেয়ার অনুরোধ জানাচ্ছি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com