1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ১১:১৬ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :

প্রত্যেক মানুষকে আমি যেভাবেই পারি একটা চালা হলেও করে দেব – প্রধানমন্ত্রী

  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ২৪ জুলাই, ২০২০
  • ৩৮ বার পঠিত

বজ্রকথা ডেক্স।-২৩ জুলাই ২০২০ বৃস্পতিবার গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে জলবায়ু উদ্বাস্তুদের জন্য নির্মিত কক্সবাজারের খুরুশকুল বিশেষ আশ্রয়ণ প্রকল্প উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা । উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, প্রত্যেক মানুষকে আমি যেভাবেই পারি, একটা চালা হলেও করে দেব। তিনি আরো বলেছেন, জাতির পিতার জন্মশতবর্ষে আমাদের অঙ্গীকার, দেশে একটি মানুষও গৃহহীন থাকবে না। এদিন উদ্বোধন শেষে জলবায়ু উদ্বাস্তু ৬০০ পরিবারের কাছে ফ্ল্যাটের চাবি হ¯ান্তর করা হয়। তবে পুরো প্রকল্প বাস্তবায়নের পর ৪ হাজার পরিবার নিজের ঠিকানা পাবে। জলবায়ু উদ্বাস্তু জনগোষ্ঠীর পুনর্বাসনে এ ধরনের প্রকল্প বিশ্বে এটাই প্রথম। নাম মাত্র ১ হাজার ১ টাকায় ফ্ল্যাটের মালিকানা বুঝে পেয়েছেন উপকারভোগীরা।
এদিন গণভবন প্রান্তে অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব ড. আহমেদ কায়কাউস। তিনি একটি সংক্ষিপ্ত পটভূমি তুলে ধরেন। এরপর একটি সংক্ষিপ্ত ভিডিওচিত্র প্রদর্শন করা হয়। অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ। কক্সবাজার থেকে জেলা প্রশাসক কামাল হোসেন অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেছেন। সেখানে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় এমপি সাইমুম সরওয়ার কমল, জাফর আহমেদ, শাহীন আকতার, জাফর আলম, বিভাগীয় কমিশনার এ বি এম আজাদ, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিরাজুল মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র মজিবুর রহমানসহ সংশ্লিষ্টরা। সবশেষে প্রকল্পের নির্মাণ কাজের দায়িত্বে থাকা সেনাবাহিনীর দশম পদাতিক ডিভিশনের জিওসি এবং এরিয়া কমান্ডার মেজর জেনারেল মো. মাঈন উল্লাহ চৌধুরী সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন। এছাড়াও প্রকল্প এলাকার তিনজন উপকারভোগী তাদের অনুভূতি তুলে ধরেন এবং প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান। প্রধানমন্ত্রী কক্সবাজারের একজন স্থানীয় নারীর কণ্ঠেও গান উপভোগ করেন।
শেখ হাসিনা বলেছেন, কক্সবাজার আমাদের পর্যটন এলাকা। কক্সবাজার সৈকতে বিশাল ঝাউবন, এটা জাতির পিতার নির্দেশেই করা হয়েছিল; যেন প্রাকৃতিক জলোচ্ছ্বাস থেকে কক্সবাজার শহরটা রক্ষা করা যায়। জাতির পিতার সেই স্বপ্ন কক্সবাজারকে আরও সুন্দরভাবে গড়ে তুলতে চাই পর্যটন শহর হিসেবে। তিনি বলেন, আমাদের সমুদ্রসৈকত সারা বিশ্বের মধ্যে সব থেকে দীর্ঘ সমুদ্রসৈকত। এত সুন্দর, এত দীর্ঘ এবং যেখানে বালু আছে, বালুময় সমুদ্রসৈকত পৃথিবীর আর কোনো দেশে নেই। এত চমৎকার একটা জিনিস সেটা দেশের মানুষ এবং বিশ্বব্যাপী সবাই যেন উপভোগ করতে পারেন সে লক্ষ্য নিয়ে এই অঞ্চলের উন্নয়নের জন্য পদক্ষেপ নিই। বিমানবন্দরটাকে এমনভাবে উন্নত করতে চাই, যেখানে হয়তো সারা বিশ্ব থেকে অনেকে আসতে পারবে, যত বড় বিশাল বিমান হোক নামতে পারবে। প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, বিমানবন্দর নির্মাণ করতে গিয়ে দেখলাম জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে এবং ঘূর্ণিঝড় জলোচ্ছ্বাসের কারণে অনেকে ঘরবাড়ি, ভিটামাটি হারিয়ে উদ্বাস্তু হয়ে আছেন। তাই সিদ্ধান্ত নিলাম তাদের পুনর্বাসন করব। সেই চিন্তা থেকেই এই প্রকল্প। এখানে নতুন শহরের মধ্যে মানুষ বসবাস করতে পারবে।
তিনি বলেন, এখন ২০টি ভবন করা হয়েছে, ভবিষ্যতে বাকি ভবন করা হবে। এখানে সবকিছু থাকবে। সেখানে ১৪টা খেলার মাঠ, সবুজ এলাকা থাকবে। মসজিদ, মন্দির থাকবে অন্য ধর্মাবলম্বী যদি থাকে তাদের প্রার্থনার জায়গাও থাকবে। স্কুল থাকবে, প্রাথমিক এবং মাধ্যমিক স্কুল করে দেব। সেখানে পুকুর খনন করা হয়েছে সেখান থেকে সুপেয় পানি খেতে পারবেন। বৃষ্টির পানি ধরে রাখার ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। পুলিশ ফাঁড়ি করা হবে, ফায়ার স্টেশন থাকবে। দুটো জেটি করা হবে যেখানে জাহাজ ভাঙতে পারবে। তাছাড়া মাছ ধরতে যায় যারা, তারা মাছ ধরে যেন শুঁটকি শুকাতে পারে সে জন্য শুঁটকি শুকানোর জায়গা করে দেব। সুন্দর বাজার করে দেব। সুন্দর শুঁটকির হাট করে দেব। তিনি বলেন, এ ছাড়া সোলার প্যানেলের ব্যবস্থা করা হয়েছে। বিদ্যুতের জন্য সাব-স্টেশন করা হবে। বর্জ্য ব্যবস্থা করতে হবে। তাছাড়া বাকখালী নদীর ওপর ব্রিজ নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে। সেখানে চারটি সাইক্লোন শেল্টার করা হবে। যে ভবন করা হয়েছে সেগুলোর নিচতলা সম্পূর্ণ ফাঁকা অর্থাৎ জলোচ্ছ্বাস হলে পানি যেন এদিক থেকে ওদিকে চলে যেতে পারে। তিনি বলেন, কক্সবাজারে বিশাল কর্মযজ্ঞ চলছে। শুধু এখানে নয়, দেশের কোথায় গৃহহীন, ভূমিহীন মানুষ আছে তাদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা নিচ্ছি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com