1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:০০ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
সংখ্যালঘুরা এদেশের কারো আশ্রিত বা পকেট সম্পত্তি নয় -গোপাল এমপি বিরামপুরে পল্লীশ্রীর নারী ও কন্যা শিশুদের দক্ষতা উন্নয়ন বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত বিরামপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি নির্বাচিত হলেন ড. নূরুল পলাশবাড়ীতে ফেনসিডিলসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার গাইবান্ধা জেলা যুবলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত কোভিড স্বত্ত্বেও অর্থনীতির চাকা সচল রেখেছে সরকার -স্পীকার দারিয়াপুর-লক্ষীপুর সড়কের কাজে ধীরগতি প্রতিবাদে পদযাত্রা করেছে জাগ্রত যুবসমাজ ফুলবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির মৃত্যুতে ফুলবাড়ী থানা প্রেসক্লাবের গভীর শোক পীরগঞ্জে একদিনের সফরে স্পীকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী প্রধানমন্ত্রীর স্বামী ওয়াজেদ মিয়ার সমাধিতে কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতৃবৃন্দের শ্রদ্ধাঞ্জলি

প্রসঙ্গ: বজ্রকথা’র সম্পাদকীয়

  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ১৪ আগস্ট, ২০২০
  • ১২০ বার পঠিত

এ টি এম আশরাফুল রাংগা

গত ৪ আগস্ট, ২০২০ খ্রী: তারিখ রোজ মঙ্গলবার বজ্রকথা অনলাইন ভার্সনের সম্পাদকীয় ও মতামত বিভাগে সাপ্তাহিক বজ্রকথা ও বজ্রকথা অনলাইন (www.bwazarakatha.com) পত্রিকার সম্মানীত প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক ও প্রকাশক, পীরগঞ্জের জেষ্ঠ্য সাংবাদিক আমার পরম শ্রদ্ধাভাজন কবি সুলতান আহমেদ সোনা ”কঠিন সময় পার করছে মফঃস্বলের সংবাদপত্র গুলো”- শিরোনামে একটি সম্পাদকীয় প্রকাশ করে ছিলেন। আমি ওনার লেখাটিকে গুরুত্ব দিয়ে অত্যন্ত যত্ন সহকারে কয়েকবার পাঠ করেছি।
তিনি তার লেখায় জেলা-উপজেলা থেকে প্রকাশিত বিভিন্ন ধরনের সংবাদপত্রগুলির সংকটের কারণ উদঘাটনের ক্ষেত্রে বর্তমান করোনা পরিস্থিতি, ডিজিটাল যুগে ব্যবহৃত মোবাইল ফোন, টেলিভিশন, ফেসবুক, ইউটিউব, আধুনিক সুযোগ সুবিধা, মজবুত আর্থিক ভিত্তি কে দায়ী করে এর পক্ষে বেশ জোড়ালো যুক্তি দাঁড় করানোর চেষ্টা করেছেন।
ওনার লেখার মন্তব্য করার কোনরুপ যোগ্যতা এবং সাহস আমার নেই। কারণ উনি সিদ্ধ-হস্ত। তবুও পত্র-পত্রিকার নিয়মিত পাঠক হিসেবে কিছু কথা বার বার মনটাকে গুলিয়ে দিচ্ছে। তাই এই অপচেষ্টা। সাপ্তাহিক বজ্রকথা সংবাদটির যখন জন্ম হয়, তখন সেই যুগটা ছিল এনালগের যুগ। ঐ সময়ে সংবাদপত্র তো দূরের কথা, পীরগঞ্জের অনেক সাংবাদিকের জন্মই হয়নি। বিধায়, বজ্রকথা কোন প্রতিযোগি পায়নি। কিন্তু কালের পরিক্রমায় আজ এনালগ থেকে ডিজিটাল যুগের আবির্ভাব ঘটেছে। সবকিছুই সহজপ্রাপ্য হওয়ায় বাঙালী এখন নিজেদের কাজ-কর্মে চরম মুন্সিয়ানার পরিচয় দিচ্ছে। যুগের তালে ধাপে ধাপে এগুচ্ছে অনেক দূর। এরই ধারাবাহিকতায় পীরগঞ্জ থেকে এখন বেশ কয়েকটি অনলাইন পত্রিকার জন্ম হয়েছে। ফলে বজ্রকথাও পেয়েছে কমপিটিটর। আমরা যারা সাধারন পাঠক, তারা নেট কানেকশন দিয়ে আগে আপডেট নিউজগুলো পড়ে খবরের বোঝাটাকে কমিয়ে দেয়ার চেষ্টা করি। যে পত্রিকা যত দ্রুত আপডেট নিউজ দিতে পারে, তার ভিউয়ার্স তত বেড়ে যায়। আর পত্র-পত্রিকার ক্ষেত্রে এক মিনিট আগের আপডেট নিউজ মানেই হাজার মিনিটেরও বেশি। অনেকে ঐ নিউজটি আর অন্য পত্রিকায় পড়তেই চান না। আবার অনেক পাঠক আছেন, যারা সবগুলো নিউজ খুটিয়ে খুটিয়ে পাঠ না করলে প্রশান্তি-ই অনুভব করেন না। কাজেই আপডেটের বিষয়টি সবচেয়ে বড় বিষয়। এ ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে।
উনি লিখেছেন- ‘আমরা দেখেছি দৈনিক সংবাদপত্রে যে সব খবর বা লেখা প্রকাশিত হচ্ছে তার হেড লাইন ছাড়া এখন পাঠক আর কিছু পড়ছেন না। কারণ পাঠক যা পড়তে চান তার সব কিছু আগেই টিভির খবর থেকে জানা হয়ে গেছে।’ আমি ওনার সাথে সম্পূর্ণ একমত। কেননা, মানুষের মধ্যে এখন যান্ত্রিকতা এসেছে। কোনো কিছুতেই সে আর সময় দিতে চাইছেনা। সবাই এখন নিজ নিজ কর্ম নিয়েই ব্যস্ত। তবুও আমার কেন যেন মনে হচ্ছে, পাঠক শুধুমাত্র হেডলাইন পড়ে মূল সংবাদটি এড়িয়ে যাবেন কেন?
হেডলাইন দেখে পাঠক পুরো খবরটি পড়তে বাধ্য; যদি সেটা মনস্তাতিক হয়। আমি নিজেও অনেক পত্রিকার শিরোণাম দেখে পুরো খবরটি পড়তে বাধ্য হয়েছি। আমার মনে আছে- ইরাক-আমেরিকার যুদ্ধের সময় একটা জাতীয় পত্রিকার নিউজ হেড লাইন ছিল এরকম- “চৌকি থেকে পড়ে গিয়ে সাদ্দাম হোসেনের মৃত্যূ। আমি অবাক হয়ে নিউজটা পড়ে দেখলাম। সেখানে লেখা হয়েছে, সাদ্দাম হোসেন নামের এক শিশু চৗকি থেকে নিচে পড়ে মারা গেছে। রিপোর্টারকে বিড় বিড় করে গালি দেই। আবার ভাবি; না মিথ্যে তো লেখেনি। তার বেশ কয়েক বছর পর অন্য আরেকটি পত্রিকায় দেখলাম- নায়িকা শাবানা এখন অন্যের বাসার কাজের মেয়ে। মাথাটা বিগড়ে গেল। পড়ে দেখি শাবানা ‘কাজের বেটি রহিমা’ নামের একটি ছবিতে অভিনয় করছে। কাজেই এগুলো হচ্ছে কৌশল। এই কৌশলগুলোকে মাঝে মাঝে প্রযোজ্য ক্ষেত্রে কাজে লাগাতে হবে। সংবাদের হেডলাইনে এমন একটা বিষয় আনতে হবে, যেটা দেখেই পাঠক ঐ বিষয়টির বিস্তারিত জানার জন্য আগ্রহী হয়ে মূল সংবাদে প্রবেশ করবে। তবে এই সমস্ত কৌশল এমনভাবে কাজে লাগাতে হবে যেন সংবাদ পরিবেশন পাঠকের বিশ্বাস ভঙ্গের কোন কারণ না হয়ে দাঁড়ায়।
পাঠককে আকৃষ্ট করার আরেকটি কৌশল হচ্ছে ভাষাগত কৌশল। সহজ অথচ সুন্দর, সাবলীল এবং প্রমিত আধুনিক মুখরোচক বা চটকদার ভাষায় সংবাদ উপস্থাপনা করলে পাঠক সেখান থেকে রসাস্বাদন করতে পারবে। চিরাচরিত ভাষায় মানুষকে এখন বোঝানো খুব কষ্টকর। কারণ, লেখা-পড়া না জানা গ্রামের কালা মিয়াও এখন শহর থেকে এসে বেশ ইংরেজি আর শুদ্ধ বাংলা বলতে পারে। উপস্থাপনাটা এতটা সুন্দর হওয়া চাই, যেন নিউজটা শুধু পড়লামই না; দেখলামও বটে। কাজেই ভাষার পরিশুদ্ধতা, শব্দ চয়ন, এবং প্রকাশ-ভঙ্গিটাও সংবাদ পরিবেশনের ক্ষেত্রে একটা বিশেষ ভূমিকা রাখে। আমি জানি আমার গুরু কবি সুলতান আহমেদ সোনার বজ্রকথায় এর সমস্ত কিছুই মেনে চলা হয়। কাজেই হতাশ হওয়ার কোনই কারণ নেই।
উনি খুব কষ্ট থেকেই বোধ হয়ত লিখেছেন-‘ ছাব্বিশ বছরের সংবাদপত্র সাপ্তহিক বজ্রকথাও মহা সংকটে রয়েছে। সাপ্তাহিক সংবাদ পত্রগুলো ভবিষ্যতে সচল হতে পারবে কি না তা নিয়ে সন্দহ রয়েছে। কারণ মফঃস্বল থেকে সংবাদপত্র প্রকাশ করা কঠিন কাজ। আর বর্তমান সময়ে সাপ্তাহিক সংবাদ পত্রের কদর খুব একটা নাই।’ এখানেই আমি ওনার সাথে দ্বিমত পোষণ করছি। ছাব্বিশ বছরের সংবাদপত্র সাপ্তহিক বজ্রকথা এখনও আছে; ইনশাল্লাহ্ থাকবে। উনি মাননীয় তথ্যমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেছেন-‘ উপজেলা পর্যায়ের সংবাদপত্রগুলোকে জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে স্থানীয় সরকার ও স্থানীয় প্রশাসনের বিজ্ঞাপন প্রকাশের সুযোগ প্রদান করা হোক। শেষ কথা সরকার যদি মফঃস্বলের সংবাদপত্রগুলোকে রক্ষা করতে চায়,তা হলে উদার মনে সহযোগিতার হাত বাড়াতে হবে।’ এই দিন আর বেশি দেরী নেই। সংবাদপত্র রেজিস্ট্রেশনের কাজ অতি শীঘ্রই শুরু হচ্ছে। তখন দেখা যাবে, কে হারে আর কে জেতে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com