1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ০৩:২০ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
পীরগঞ্জে গ্রাম্য সালিশে শ্লীলতাহানির ঘটনা মিমাংসা রংপুর নগরীতে যানবাহনের সাথে বেড়েছে মানুষের চলাচল খুলছে দোকানপাট রংপুরে বেড়েছে শনাক্তের হার: আরও ১৫ জনের মৃত্যু রংপুরের বদরগঞ্জে এক নারীকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ বগুড়া র‌্যাবের পৃথক পৃথক অভিযানে ৮ মাদক ব্যবসায়ীসহ ১৬ জন জুয়াড়ি গ্রেফতার দৈনিক তিস্তার সম্পাদক মরহুম আলহাজ্ব মিজানুর রহমানের চল্লিশা ও দোয়া খায়ের অনুষ্ঠিত ঘোড়াঘাটে বিদ্যুৎ স্পৃষ্ট হয়ে কৃষকের মৃত্যু উপজেলা চেয়ারম্যানের রোগমুক্তি কামনা করে ঘোড়াঘাটে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত  নবাবগঞ্জে অপসোনিন এর সেলসম্যানের ঔষধ চুরি ঘটনা ধরা পড়ায় অপসোনিনে ঔষধ বর্জন ঘোড়াঘাট উপজেলা চেয়ারম্যানের রোগমুক্তি কামনায়  বিশেষ দোয়া  অনুষ্ঠিত 

বগুড়ায় শেরপুরে গ্রামীণ সড়কের বেহালদশা : চরম দুর্ভোগে লক্ষাধিক মানুষ

  • আপডেট সময় : রবিবার, ৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৫২ বার পঠিত

বগুড়া থেকে উত্তম সরকার ।- বর্ষা মৌসুমে অতিবৃষ্টি ও অনাবৃষ্টিতে চলাচলের একেবারেই অনুপযোগী হয়ে পড়ে বগুড়ার শেরপুর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের শাহবন্দেগী, মির্জাপুর, ভবানীপুর, বিশালপুর, কুসুম্বী ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি গ্রামীণ এই কাঁচা সড়ক। এছাড়া সামান্য বৃষ্টি হলেই কাদা-পানিতে একাকার হয়ে যায় সড়কটি। এসময় গাড়ি দূরে থাক, হেঁটে পার হওয়াই মুশকিল। তাই ওই সময় সব ধরণের যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এতে করে অন্তত উপজেলার প্রায় ৩০ গ্রামের সাধারণ মানুষকে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। তাছাড়া এই এলাকাটির অর্থনীতির মূল চালিকা শক্তি কৃষি। কৃষি নির্ভর এসব গ্রামের কৃষকরা তাদের উৎপাদিত কৃষি পণ্য বাজারজাত নিয়ে বিপাকে পড়েছেন। সেক্ষেত্রে কৃষিপণ্য পরিবহন করতেও গুণতে হচ্ছে দ্বিগুণ ভাড়া। এমনকি অসুস্থ রোগীদের স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যেতে নানা বিড়ম্বনার শিকার হতে হচ্ছে ভূক্তভোগীদের। তবে সড়কটি পাকা করা হলে দুর্ভোগ হাত থেকে রেহাই পাবেন চলাচলরত অধিবাসীরা। তাই জনগুরুত্বপূর্ণ এইসব কাঁচা সড়কটি দ্রæত পাঁকাকরণের দাবি জানিয়েছেন ভূক্তভোগী এলাকাবাসীরা। তবে চলতি অর্থ বছরেই এসব ভগ্নদশা সড়কের সংস্কার করা হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিরা।
সরেজমিনে জানা যায়, উপজেলার কুসুম্বী ইউনিয়নের মালিহাটা থেকে উদয়কুঁড়ি পর্যন্ত সড়কটির দৈর্ঘ্য তিন কিলোমিটার। এই সড়কটি দিয়ে প্রতিদিন উঁচুলবাড়িয়া, বাঁশবাড়িয়া, উদয়কুঁড়িসহ আশপাশের অন্তত দশটি গ্রামের শতশত মানুষ চলাচল করে। শুক্রবার ও মঙ্গলবার আলতাদিঘী বোর্ডের হাটের দিন মানুষের চলাচল আরও বেড়ে যায়। এছাড়া এই রাস্তা সংলগ্ন গ্রামের শিক্ষার্থীরা রাস্তাটির কাদামাটি মাড়িয়ে মালিহাটা উচ্চ বিদ্যালয়, তাতড়া উচ্চ বিদ্যালয়, আলতাদিঘী মাদ্রাসা ও শহরের একাধিক বিদ্যালয়ে লেখাপড়া করে।
অপরদিকে উপজেলার শাহ-বন্দেগী ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের শেরুয়া বটতলা বাজার থেকে শুরু করে ১ কিলোমিটার পাকা রাস্তা ও শেরুয়া বটতলা থেকে ফরেস্ট রোড পৌর মেয়রের বাড়ী হয়ে ধুনটমোড় তালতলা পৌছানোর রাস্তাটির বেহাল অবস্থা। এই রাস্তা দিয়ে উপজেলার ৪টি ইউনিয়নের লক্ষাধিক মানুষের যাতায়াত করে শহরে। গত ২ বছরেও সংস্কার বা মেরামত না হওয়ায় বড় বড় খানাখন্দ ও গর্তে পরিণত হয়েছে রাস্তাটি। সামান্য বৃষ্টিতেই কাঁদামাটিতে একাকার রাস্তাটি। পানি নিষ্কাশনের কোন সু-ব্যাবস্থা না থাকায় অল্প বৃষ্টিতেই দীর্ঘদিন যাবৎ নানা ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে মৎস্য খামার, বাছাই মিল, চাতাল ব্যবসায়ী, শিক্ষার্থী ও এলাকার বাসিন্দাদের। এছাড়াও কৃষকদের উৎপাদিত পণ্য হাটবাজারে এমনকি অসুস্থ রোগীকে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে আসতেও নানা ভোগান্তির শিকার হচ্ছে।
কুসুম্বী ইউনিয়নের ভূক্তভোগী এলাকাবাসীদের মধ্যে বাসিন্দা মোফাজ্জল হোসেন, সেলিম রেজা, রেজাউল করিমসহ একাধিকরা বলেন, তাদের যাতায়াতের একমাত্র রাস্তাটি চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। যানবাহনতো দূরের কথা, পায়ে হেঁটে চলাও এখন দায়। কারণ রাস্তাটির মাটি এঁটেল তাই বর্ষা মৌসুমের শুরু থেকেই কাদা-পানিতে একাকার। এরপর আবার ট্রাক্টর ও পাওয়া টিলার চলাচলের কারণে গভীর কাঁদায় পরিণত হয়েছে। বর্তমানে এই সড়কে স্থানভেদে চার থেকে পাঁচ ফুট পর্যন্ত কাঁদার গভীরতা আছে। এ অবস্থায় এলাকার কৃষকরা তাদের উৎপাদিত পণ্য সময়মত বাজারে নিতে পারেন না।
কুসুম্বী ইউনিয়নের সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের সদস্য মো. হাবিবর রহমান বলেন, বিকল্প কোন রাস্তা না থাকায় এ অঞ্চলের মানুষের এই রাস্তা হয়েই উপজেলা সদরে যাতায়াত করতে হয়। সামান্য বৃষ্টি হলেই রাস্তাটি কর্দমাক্ত হয়ে ভ্যান-রিকশা, মোটরসাইকেল, বাইসাইকেল, অটোরিকসা, টেম্পো, মিনি ট্রাকসহ সবধরণের যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এমনকি পায়ে হেঁটে চলাও অসম্ভব হয়ে পড়ে। বছরের প্রায় অর্ধেক সময় এভাবেই চলাচলের অযোগ্য থাকে এই কাঁচা সড়কটি। পরিবহণ ক্ষেত্রেও দ্বিগুণ ভাড়া গুণতে হয়। তাই সমস্যা নিরসন করার লক্ষ্যে সড়কটি পাকাকরণ করা জরুরি।

এ ব্যাপারে শাহবন্দেগী ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড সদস্য ছানোয়ার হোসেন জানান, রাস্তাটি দ্রæত মেরামতের দাবিতে এ নিয়ে গত জুন ২০১৯ সালে ইউএনও বরাবর লিখিত অভিযোগও দায়ের করা হয়েছে। এ নিয়ে বিভিন্ন গনমাধ্যমে ২ জুন ২০১৯ সালে “বগুড়ার শেরপুরের শেরুয়া এলাকায় পানি নিষ্কাষনে ড্রেন নির্মাণের দাবী এলাকাবাসীর” শিরোনামে বিভিন্ন পত্রিকায় নিউজ প্রকাশ হয়েছে এমনকি বিভিন্ন একমাত্র মাধ্যম। কিন্তু মেরামতের অভাবে এখন চলাচল অযোগ্য। ফলে বাজারে মালামাল বহনে ও গাড়ি চলাচলে প্রতিনিয়তই ঘটছে দূর্ঘটনা।
ওই রাস্তায় চলাচলকারী সিএনজি চালক মশিউর রহমান, রাজু আহম্মেদ, আরিফ বলেন, আমরা হাইওয়ে দিয়ে সিএনজি চালাতে পারিনা এই বাইপাস দিয়ে ভবানীপুর পর্যন্ত চলতে হয়। কিন্তু এই রাস্তার বেহাল অবস্থা হওয়ায় যাত্রি নামিয়ে দিয়ে কষ্ট করে পার হতে হয়। অনেক সময় সিএনজি উল্টে যায়। অটোভ্যান, ভটভটি চালকরা বলেন, আমরা এই রাস্তা দিয়ে যাত্রি ও মালামাল নামিয়ে দিয়ে পারাপার হয়।
এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান আল আমিন সরকার বলেন, ওইসব এলাকায় রাস্তাটি সংস্কার করতে ড্রেনেজ ব্যবস্থা করতে হবে। ড্রেনেজ ব্যবস্থা তৈরী করতে বড় অর্থে প্রয়োজন। রাস্তাগুলো সংস্কারের জন্য উপজেলা পরিষদে প্রকল্প দেয়া আছে বলে জানিয়েছে কুসুম্বী ইউপি চেয়ারম্যান শাহ আলম পান্না।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে উপজেলা প্রকৌশলী মো. নূর মোহাম্মদ বলেন, ইতিমধ্যে উপজেলার ভগ্নদশা সড়কগুলো পাকাকরণ করার জন্য তার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার দফতরে ফাইল পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে একাধিকবার কথাও বলা হয়েছে। অল্প দিনের মধ্যেই সড়কটি পাকাকরণের বরাদ্দ আসবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

এ প্রসঙ্গে উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা মো. লিয়াকত আলী সেখ বলেন, সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যানদের দেওয়া প্রকল্পের মাধ্যমে শীঘ্রই রাস্তাটি সংস্কার করে ভূক্তভোগীদের সমস্যা সমাধান করা হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com