মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৯:৪৮ অপরাহ্ন

রেদোয়ান আহমেদের গুলি ছোড়ার ঘটনায় বিএনপির শীর্ষ কোনো নেতার হাত আছে কি না, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে: তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১০ মে, ২০২২
  • ৫৫ বার পঠিত

রংপুর থেকে সোহেল রশিদ।-আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, কুমিল্লার চান্দিনায় এলডিপির একাংশের মহাসচিব রেদোয়ান আহমেদের গুলি ছোড়ার ঘটনায় বিএনপির শীর্ষ কোনো নেতার হাত আছে কি না, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ঘটনাটি তদন্তাধীন রয়েছে। সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে নিশ্চয়ই আসল রহস্য বেরিয়ে আসবে। যারাই দোষী সাব্যস্ত হবে, তাদের ব্যাপারে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
মঙ্গলবার বিকেল ৪টার দিকে রংপুর মহানগর আওয়ামী লীগের কোতোয়ালি থানার ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসাবে যোগ দিতে এসে রংপুর সার্কিট হাউসে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।
হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নানা ধরনের কথা বলছেন। এলডিপির মহাসচিব রেদোয়ান আহমেদ আসলে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেব কিংবা বিএনপির কোনো শীর্ষ নেতার নির্দেশে গুলি ছুড়েছেন কি না, সেটি খতিয়ে দেখা দরকার।
তথ্যমন্ত্রী বলেন, কুমিল্লায় এলডিপির মহাসচিব রেদোয়ান আহমেদের গুলি ছোড়ার ঘটনাটি অত্যন্ত দুঃখজনক, ন্যক্কারজনক এবং প্রচÐ নিন্দনীয়। সেখানে আমাদের দলের কর্মীরা জমায়েত হয়েছিল। রেদোয়ান আহমেদ সেখানে গিয়েছেন। একটি তরমুজ ছুড়ে মারার প্রত্যুত্তরে রেদোয়ান আহমেদ গুলি ছুড়েছেন। আমাদের দলের দুজন গুলিবিদ্ধসহ বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। এলডিপি নেতার এই গুলি ছোড়ার পক্ষে সাফাই গেয়েছেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।
টিআইবি আর বিএনপি নেতা রিজভী আহমেদের মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই দাবি করে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাসান মাহমুদ বলেছেন, ইদানীং টিআইবি কথায় কথায় বিবৃতি দেন। মধ্যরাতে টিটিই নিয়ে একটা ঘটনা ঘটেছিল। পরদিন সকালবেলায় কোনো খোঁজখবর না নিয়েই টিআইবি একটা বিবৃতি দিয়ে দিল। টিআইবি আর রিজভী আহমেদের মধ্যে কোনো পার্থক্য খুঁজে পাচ্ছি না। রিজভী সাহেব যেমন ঘটনা ঘটার আগেই বিবৃতি লিখে রাখেন, এখন টিআইবিও মনে হচ্ছে ঘটনার আগেই বিবৃতি লিখে রাখছে।
এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক নৌ পরিবহন মন্ত্রী শাহজাহান খান এমপি, আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়-সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি আশিকুর রহমান এমপি, রংপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি সাফিউর রহমান সফি, সাধারণ সম্পাদক তুষার কান্তি মন্ডল, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম রাজু প্রমুখ। এসময় রংপুর মহানগর ও জেলা আওয়ামী লীগসহ অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
পরে বিকেলে তিনি রংপুর টাউন হল অডিটরিয়ারে অনুষ্ঠিত কোতোয়ালি থানা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে অংশ নেন। মহানগরের অন্তর্ভুক্ত ছয় থানার মধ্যে বড় থানা হচ্ছে রংপুর মেট্রোপলিটন কোতোয়ালি থানা। ১৪টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত এ থানার মোট কাউন্সিলর ৪৪৯ জন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com