বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:২৭ অপরাহ্ন

২০ বছরেও সংস্কার হয়নি কুঞ্জবিলাস কান্দুলী আশ্রয়ণ প্রকল্পটি

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : শনিবার, ৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৪৭৩ বার পঠিত

রনবীর সিংহ।-  শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলার ধানশাইল ইউনিয়নে খাস জমির ওপর নির্মিত কুঞ্জবিলাস কান্দুলী আশ্রয়ণ প্রকল্পটি দীর্ঘ ২০ বছরেও সংস্কার না করায় জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছে। এতে মানবেতর জীবনযাপন করছেন প্রকল্পের বাসিন্দারা। এ অবস্থায় তারা সরকারের কাছে ঘর মেরামত ও মাটি ভরাটের দাবি জানিয়েছেন। ঝিনাইগাতী উপজেলা ভূমি অফিস সূত্রে জানা গেছে, ১৯৯৯ সালে সরকারি অর্থায়নে উপজেলার ধানশাইল ইউনিয়নের কান্দুলী গ্রামে ৮ দশমিক ৮ একর খাস জমির ওপর সেনাবাহিনীর তৎকালীন ৩৭ এসটি ব্যাটালিয়ন ইউনিট ‘কুঞ্জবিলাস কান্দুলী আশ্রয়ণ প্রকল্প’টি নির্মাণ করে। প্রকল্পে মসজিদ, কবরস্থান, পুকুর, সমবায় সমিতির কার্যালয়সহ টিনের তৈরি ছয়টি ব্যারাক রয়েছে। প্রতিটি ব্যারাকে রয়েছে দশটি করে ছোট কক্ষ। ওই সময় ৭ শতাংশ কৃষি ও ২ দশমিক ৫০ শতাংশ আবাসিক জমিসহ প্রতিটি ভূমিহীন আশয়ণ প্রকল্পে ঘুরে দেখা যায়, সব কয়টি ব্যারাক জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছে। ঘরের ছাউনির টিনগুলো মরিচা পড়ে ছিদ্র হয়ে গেছে। সেগুলো বন্ধ করতে পলিথিন বিছিয়ে তার ওপর ইট ও খড়ির চাপা দেয়া হয়েছে। দরজা-জানালার কপাট ভেঙে গেছে। প্রকল্পের বাসিন্দা হরবলা বেগম জানান, ঘরের মধ্যে থাকবার পাই না। বৃষ্টি এলে টিনের চালা চুইয়ে পানি পড়ে। পানি ঠেকাতে হাঁড়ি-পাতিল দিয়েও লাভ হয় না, ঘরের ভেতর হাঁটুপানি জমে। এ সময় আরও কয়েকজন বাসিন্দা বলেন, সরকার ভূমিহীনদের পুনর্বাসন করতে আশ্রয়ণ প্রকল্প নির্মাণ করে দেয়। কিন্তু দীর্ঘদিন পরও সংস্কার না করায় প্রকল্পের ঘরগুলো বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। বর্ষা মৌসুমে ঘরের ভেতর পানি পড়ে। শীতের সময় ঠান্ডা লাগে। এতে তারা নানা সমস্যার মধ্যে থাকলেও সরকারিভাবে তা সমাধানে কোনও উদ্যোগ নেয়া হয়নি। কান্দুলী আশ্রয়ণ প্রকল্প সমবায় সমিতির সভাপতির হারুন মিয়া বলেন, প্রতিটি ব্যারাকের চালের টিন ছিদ্র হয়ে গেছে। সামান্য বৃষ্টি হলেই ছিদ্র দিয়ে পানি পড়ে। বৃষ্টির পানি ঠেকাতে হাঁড়ি-পাতিল নিয়ে বসে থাকতে হয়।এ ছাড়া বর্ষা মৌসুমে প্রকল্প এলাকায় পানি জমে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। তিনি সরকারের কাছে দ্রুত সময়ের মধ্যে ঘর মেরামত ও মাটি ভরাটের দাবি জানান। ধানশাইলের ইউপি চেয়ারম্যান মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, সহায়-সম্বল ও ভূমিহীন ৬০টি পরিবারের সদস্যদের আবাসন ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করে সরকার। কিন্তু নির্মাণের দীর্ঘদিন পার হয়ে গেলেও এগুলোর সংস্কার কাজ না করায় এখন বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুবেল মাহমুদ জানান , ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করার পর মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় হতে জুনের শেষে সাড়ে চার লাখ টাকা বরাদ্দ আসে। এ বরাদ্দ থেকে আড়াই লাখ টাকা ব্যয়ে প্রকল্পে পানি ও শৌচাগারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। আরও দুই লাখ টাকা আছে। বন্যার পানির জন্য ঘরের সংস্কার কাজ শুরু করা হয়নি। তবে দ্রæত সংস্কার শুরু করা হবে এবং মাটি ভরাটের জন্য আবারও বরাদ্দ চেয়ে সংশ্লি¬ষ্ট দফতরে পত্র পাঠানো হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com