1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১, ১১:৫০ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
সাদুল্লাপুরে ২টি পেট্রোল বোমা ও ৩টি ককটেল নিস্ক্রিয় করলো র‌্যাব আমন চাষের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন না হওয়ার আশংকা বিরামপুরে সুখের নীড়ে স্বাচ্ছন্দ্য জীবন: ঈদ উদযাপনে খুশিতে আত্মহারা উপকার ভোগীরা রংপুরে খোলাবাজারে চাল ও আটা বিক্রি শুরু পীরগাছায় ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে দুই ভাইকে ছুরিকাঘাত রংপুর বিভাগে শনাক্ত ৪০ হাজার ছাড়িয়েছে: মৃত্যু আরও ১৬ ঘোড়াঘাটে গ্রাম পুলিশের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার  ঘোড়াঘাট পৌর যুবলীগের উদ্যোগে বৃক্ষ রোপণ ও মাস্ক বিতরণ দিনাজপুরে ১৩টি উপজেলায় বৃষ্টির অভাবে আমন চাষিরা বিপাকে উপজেলা পর্যায়ের হাসপাতাল গুলোতে শতভাগ চিকিৎসা সেবার মানোন্নয়ন ঘটাতে হবে -খাদ্যমন্ত্রী

বিশ্ব পরিযায়ী পাখি দিবস আজ : নতুন নীড়ের সন্ধানে

  • আপডেট সময় : শনিবার, ১০ অক্টোবর, ২০২০
  • ৪২ বার পঠিত

বেশ কয়েক বছর আগের কথা। সুনামগঞ্জের টাঙ্গুয়ার হাওরে দাঁড়িয়ে আছেন কয়েকজন। পাখি দেখার চেষ্টা করছিলেন বাইনোকুলার হাতে। পরিযায়ী পাখিদের আনাগোনা রয়েছে এই হাওরে। কিন্তু তারা লক্ষ্য করলেন, পাখিরা নামছে না তাদের পুরোনো পরিযায়ী আবাসে। আসছে, নামার চেষ্টা করছে, তারপর আবার উড়ে চলে যাচ্ছে। শেষে বোঝা গেল, পাশে বিকট শব্দে সাউন্ডবক্স বাজিয়ে পিকনিকের আনন্দে মেতেছে কয়েকজন। সেই আওয়াজে ভীত ও বিরক্ত হয়ে উড়ে যাচ্ছিল পাখিগুলো। হাওর উন্নয়ন সংস্থার সভাপতি কাসমির রেজা বলেন, হ্যাজাক লাইট দিয়ে মাছ ধরা, খাবার সংকট, গাছ উজাড়, পাখি শিকার, পর্যটকদের আনাগোনা- এ রকম নানা উৎপাতে কয়েক বছর ধরে হাওরে পাখি কম আসছে। এলেও বসবাসের মতো আবাস না পেয়ে ফিরে যাচ্ছে। তিনি বলেন, অতিথি পাখি শিকারও চলছে। একটি পাখি শিকারির হাতে পড়ে মারা গেলে অন্যগুলো আর থাকছে না সেখানে। পর্যটকদের কারণে পানি দূষণ হওয়ায়ও পাখি পানিতে নামছে না। টাঙ্গুয়ার হাওরের মতো মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলার হাইল হাওরের বাইক্কা বিলেও কমেছে পাখির সংখ্যা। এই দুটি হাওর ছাড়াও দেশের বিভিন্ন এলাকায় পরিযায়ী পাখির আসা-যাওয়া কমছে। এর কারণ কী ?- জানতে চাইলে পাখি বিশেষজ্ঞ ইনাম আল হক বলেন, গত ৩০ বছরের হিসাব করলে, প্রবণতা কমতির দিকেই। এশিয়া মহাদেশের বিভিন্ন অঞ্চল এখন অনেক বেশি উন্নত হচ্ছে। ফলে পাখির বসবাসের জায়গা কমে যাচ্ছে। পাখিদের তো প্রজননের জায়গা লাগে, থাকার জায়গা লাগে। তিনি বলেন, পরিযায়ী পাখিকে অতিথি পাখি বলা ভুল। দেশি-বিদেশি বলে কিছু নেই, যে পাখি এ দেশে মাত্র একদিন দেখা যায়, সেটাও এদেশের পাখি। আমাদের যে ৭০০ প্রজাতির পাখি আছে, এর মধ্যে সাড়ে তিনশ’ প্রজাতির পাখিও কিন্তু সারাবছর বাংলাদেশে থাকে না।
আন্তর্জাতিক প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষণ সংঘ (আইইউসিএন) বন্য পাখিদের গতিপথ পরিদর্শন বোঝার জন্য ৫৫টি পাখির (হাঁস) গায়ে স্যাটেলাইট ট্রান্সমিটার বসিয়েছে। এর মাধ্যমে তারা নিশ্চিত হয়েছে, বাংলাদেশ থেকে পরিযায়ী পাখিরা দুটি নির্দিষ্ট আকাশ পথ ব্যবহার করে। সারা বিশ্বের পাখিরা এমন নয়টি নির্দিষ্ট আকাশ পথ বা চলার পথ ব্যবহার করে থাকে। বাংলাদেশে প্রায় ২৫০ থেকে ৩০০ প্রজাতি পরিযায়ী পাখি দেখা যায়, যারা ইস্ট এশিয়ান অষ্ট্রালাশিয়ান এবং সেন্ট্রাল এশিয়ান ফ্লাইওয়ে ব্যবহার করে ভারত, নেপাল, ভুটান, চীন, মঙ্গোলিয়া, রাশিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, পাকিস্তান, আফগানিস্তান ভ্রমণ করে। এ বছর ইতোমধ্যে পাঁচ প্রজাতির পাখি হিমালয় পাড়ি দিয়েছে। আইইউসিএনের বাংলাদেশের মুখ্য গবেষক সীমান্ত দীপু বলেন, ‘পাখির খাবার সারা বছর এক মহাদেশেও হয় না। কিছু পাখি আছে গ্রস্মের বা শীতে খাবারের জন্য একেক জায়গায় থাকে। আবার প্রজননের জন্য আলাদা জায়গায় থাকে। আবার একটি পাখি রাতে থাকে এক জায়গায়, খাবার আহরণ করে আরেক জায়গায়। পাখিরা সব সময় বিচরণ করে।’ বাংলাদেশে পাখির সংখ্যা গত ১৫ বছরের মধ্যে ১০-১৫ শতাংশ কমে যাওয়ার তথ্য জানিয়ে সীমান্ত দীপু বলেন, ‘এটি বাংলাদেশের সমস্যা নয়। বৈশ্বিক সমস্যায় সারা পৃথিবীতেই পাখি কমছে। তবে এ দেশ পাখির জন্য বেশ উর্বর পরিযায়ী পাখিদের আবাস বিশেষ করে জলাশয় সংরক্ষণে পদক্ষেপ প্রয়োজন।’ আইইউসিএন ২০১৮ সালের জানুয়ারি মাসে একটি যৌথ জরিপ প্রকাশ করে। সেখানে দাবি করা হয়, এক বছরে পাখির বিচরণ কমেছে প্রায় ৪০ হাজার। বিশেষ করে উপকূল ও দ্বীপ এলাকায় সবচেয়ে বেশি পাখি কমেছে। পাখি শুমারি অনুযায়ী, বাংলাদেশে ২০০২ সালে মোট ১৬০ প্রজাতির পাখি থাকলেও এখন তার সংখ্যা মাত্র ৬৮। আর এই প্রজাতিগুলোও ধীরে ধীরে কমে আসছে। পাখি বিশেষজ্ঞরা বলেন, পরিবেশ দূষণ ও জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে দেশের বিভিন্ন প্রজাতির পাখি বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে জলচর পাখি কমে যাচ্ছে আশঙ্কাজনকভাবে। জনসংখ্যা বেড়ে যাওয়ার কারণে বন ও জলাভূমি ধ্বংস হচ্ছে, কমে যাচ্ছে পাখির আবাসস্থল। সৃষ্টি হচ্ছে তাদের খাদ্য সংকট। বাংলাদেশে পাখি শিকার বা বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে ধরা নিষিদ্ধ এবং দন্ডনীয় অপরাধ। পাখি নিধনের সর্বোচ্চ শাস্তির এক বছর জেল, এক লাখ টাকা অর্থদন্ড বা উভয় দন্ড। একই অপরাধের পুনরাবৃত্তি হলে অপরাধীর দুই বছরের জেল, দুই লাখ টাকা জরিমানা বা উভয় দন্ডের বিধান রয়েছে। আর পাখির প্রতি নির্মম আচরণও শাস্তিযোগ্য অপরাধ। কিন্তু তার পরও পাখি নিধন বা শিকার থামানো যাচ্ছে না। মঝেমধ্যে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। দেশে পাখির জন্য বেসরকারি উদ্যোগ অনেক এগিয়েছে। বিশ্নেষকরা মনে করেন, এখন প্রয়োজন সরকারের উদ্যোগ ও পাখি নিধনের বিরুদ্ধে আইনের কঠোর প্রয়োগ। তবে এই কমতির মধ্যেও দেশের বিভিন্ন এলাকায় পাখির দেখা মিলছে। গবেষকরা বলছেন, এখনও ঢাকা শহরে সব ঋতু মিলিয়ে প্রায় ২০০ প্রজাতির পাখির দেখা মেলে। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকার বোটানিক্যাল গার্ডেন, রমনা, সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, চিড়িয়াখানাসহ প্রাকৃতিক পার্কগুলো পাখির বড় আবাসস্থল। বার্ডস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও মাউন্টেনিয়ার এম এ মুহিত মনে করেন, বাংলাদেশে কৃত্রিম পার্ক নয়, প্রাকৃতিক পার্ক বানাতে হবে। নতুন করে পাখির আবাস ধ্বংস না করে বাড়াতে হবে। আর পাখির জন্য বিরক্তিকর হয় এমন কিছু এড়িয়ে চলতে হবে। বিশ্ব পরিযায়ী পাখি দিবস আজ : এমন প্রেক্ষাপটে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও নানা আয়োজনে আজ পালিত হচ্ছে বিশ্ব পরিযায়ী দিবস। পরিযায়ী পাখিদের সম্পর্কে বিশ্বজুড়ে সচেতনতা বাড়াতে ২০০৬ সাল থেকে এই দিবস পালন শুরু হয়। আইইউসিএন, বাংলাদেশের মুখ্য গবেষক সীমান্ত দীপু জানান, প্রতি বছর দু’বার দিবসটি পালিত হয়। এই বছর ৯ মে ও ১০ অক্টোবর পালিত হচ্ছে। দিবসটি দু’বার পালনের ব্যাখ্যা দিয়ে তিনি বলেন, পাখি এক দেশে একেক সময় প্রবেশ করে আবার চলে যায়। যেমন মার্চ-এপ্রিল-মে মাসের দিকে পাখি বাংলাদেশ থেকে চলে যায়। আবার অক্টোবর-নভেম্বর-ডিসেম্বরের দিকে পাখি বাংলাদেশে আসে। ফলে বছরে দু’বার দিবসটি পালিত হয়। ‘আমাদের বিশ্বকে একসূত্রে গাঁথে পাখি’ এই শ্লোগানে সারাবিশ্বে দিবসটি আজ পালিত হচ্ছে বলে জানান তিনি। দিবসটি পালন উপলক্ষে আজ আগারগাঁওয়ে বন অধিদপ্তরে সেমিনার হচ্ছে। এ ছাড়া মৌলভীবাজারের বাইক্কা বিল, সুমানগঞ্জ ও তাহিরপুরে আইইউসিএনের কর্মসূচি রয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com