মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ১১:০৬ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
মিলনপুর কমিউনিটি ক্লিনিকে জাতীয় শোক দিবসে আলোচনা সভা ঘোড়াঘাটে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের মানববন্ধন  বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকবেন বাঙালির হৃদয়ে -এমপি মনোরঞ্জন শীল গোপাল সাপাহারে জাতীয় শোক দিবস পালন জিয়া-মোস্তাকরা এখন ইতিহাসের আস্তাকুড়ে-হুইপ ইকবালুর রহিম পার্বতীপুরে যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় শোক দিবস উদযাপন মুক্তিযুদ্ধে পরাজিত শক্তিই বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করেছে- বানিজ্যমন্ত্রী রংপুরে বঙ্গবন্ধুর ৪৭তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত বিরামপুরে  বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭-তম শাহাদত বার্ষিকী বঙ্গবন্ধুর  জন্ম না হলে   বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের জন্ম হতো না – মেয়র  সরোয়ার

রাজধানীসহ দেশের ৮৩টি হাসপাতালে তরল অক্সিজেন ট্যাঙ্ক বসছে

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২৩ জুলাই, ২০২০
  • ১৩৬ বার পঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক।- নভেল করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ সারাদেশে ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে রাজধানী এবং বিভাগীয় শহরের বাইরে বেড়ে চলেছে গুরুতর রোগীর সংখ্যা। আর জেলা পর্যায়ের হাসপাতালগুলোতে পর্যাপ্ত সরঞ্জাম না থাকায় ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে তাদের চিকিৎসা ব্যবস্থা। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের একটি পরিসংখ্যানে দেখা যায়, ৯০ শতাংশ হাসপাতালে আর্টেরিয়াল সেন্ট্রাল বøাড গ্যাস (এবিজি) এনালাইজার নেই। যা রোগীর রক্তের গুরুত্বপূর্ণ পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করতে প্রয়োজন হয়। ৮৯ শতাংশ হাসপাতালে অক্সিজেনের কনসেনট্রেটর নেই, যা অক্সিজেনের মসৃণ ও উচ্চ প্রবাহ নিশ্চিত করে। আক্রান্ত রোগীদের একটা অংশ শ্বাসকষ্টে ভোগে। সেজন্য কৃত্রিমভাবে অক্সিজেন দিতে হয়। তবে দেশের বেশিরভাগ হাসপাতালে কেন্দ্রীয় ভাবে তরল অক্সিজেন ট্যাঙ্ক না থাকায় ওসব হাসপাতালে কোভিড-১৯ রোগীদের অক্সিজেন সরবরাহ করা যাচ্ছিল না। এমন পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে দেশের ৮৩টি হাসপাতালে তরল অক্সিজেন ট্যাঙ্ক বসানো হচ্ছে। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। এক সমীক্ষায় দেখা গেছে যে, ৯৫ শতাংশ জেলা হাসপাতালে বিপিএপি ও সিপিএপি নেই এবং ৩০ শতাংশ হাসপাতালে অক্সিজেন মাস্ক নেই। যখন রোগী একা নিঃশ্বাস নিতে বা শ্বাস ছাড়তে পারেন না তখন এই যন্ত্রগুলোর মাধ্যমে মাস্ক দিয়ে রোগীর ফুসফুসে অক্সিজেন সরবরাহ করা হয়। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের একটি পরিসংখ্যানে দেখা যায়, ৬৪ জেলার মধ্যে ৪৭ টিতে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র (আইসিইউ) সুবিধা নেই। এ ছাড়াও, স্বাস্থ্য অধিদফতরের সাম্প্রতিক এক গবেষণায় হাসপাতাল গুলোর ভেন্টিলেশন ও অক্সিজেন সরবরাহ ব্যবস্থার এক নির্মম চিত্র প্রকাশ পেয়েছে। কোভিড-১৯ রোগীদের শ্বাসকষ্টের সমস্যায় আইসিইউ এবং অক্সিজেন সরবরাহ ব্যবস্থা উভয়ই প্রয়োজনীয়। গবেষণায় দেখা গেছে, বেশির ভাগ জেলা হাসপাতালে অক্সিজেন সিলিন্ডার থাকলেও অক্সিজেন সরবরাহ নিশ্চিত করার জন্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জামের অভাব রয়েছে। মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, ইতোমধ্যে ২৩টি হাসপাতালে সেন্টাল গ্যাস পাইপলাইন এবং লিকুইড অক্সিজেন ট্যাঙ্ক স্থাপনে সরাসরি ক্রয়ের অনুমতি দেয়া হয়েছে। আর ৩৯টি সরকারি হাসপাতালে জরুরি ভিত্তিতে লিকুইড অক্সিজেন ট্যাঙ্ক স্থাপনের ব্যবস্থা নেয়ার জন্য গণপূর্ত বিভাগকে অনুরোধ জানানো হয়েছে। অবশিষ্ট ২১টিরও প্রক্রিয়া চলছে। গত ১ জুলাই স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের উপসচিব ড. বিলকিস বেগম স্বাক্ষরিত এক স্মারকে বলা হয়েছে, কোভিড-১৯ সংক্রমিত রোগী ব্যবস্থাপনার ২৩টি হাসপাতালে সেন্টাল গ্যাস পাইপলাইন এবং লিকুইড অক্সিজেন ট্যাঙ্ক স্থাপনে সরাসরি ক্রয়ের অনুমতি দেয়া হলো। এর আগে গত ২ জুন অপর এক স্মারকে মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. সিরাজুল ইসলাম কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা নিরবচ্ছিন্ন রাখতে গণপূর্ত বিভাগকে ৩৯টি সরকারি হাসপাতালে জরুরি ভিত্তিতে লিকুইড অক্সিজেন ট্যাঙ্ক স্থাপনের ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানান। এভাবে দুটি স্মারকে অক্সিজেন ট্যাঙ্ক স্থাপনের জন্য মোট ৬২টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ২০টি মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, ২৫টি ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতাল, ৫টি বিশেষায়িত হাসপাতাল এবং ১২টি ১০০ শয্যার হাসপাতাল রয়েছে। তাছাড়া ২১টি হাসপাতালে অক্সিজেন ট্যাঙ্ক স্থাপনের কাজ করবে মন্ত্রণালয়। সূত্র জানায়, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালযের দুটি স্মারকে যেসব হাসপাতালে ট্যাঙ্ক স্থাপনের নির্দেশনা রয়েছে ওই মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল গুলো হলো- ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ মিটফোর্ড হাসপাতাল, ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল বগুরা, এম আবদুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, এমএজে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, সিরাজগঞ্জ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল। আর বিশেষায়িত হাসপাতালগুলো হলো- শেখ আবু নাসের স্পেশালাইজড হাসপাতাল, জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল, জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন কেন্দ্র , শেখ রসেল গ্যাস্ট্রোলিভার হাসপাতাল, ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব নিউরোসায়েন্স হাসপাতাল, কুয়েত-বাংলাদেশ মৈত্রী হাসপাতাল। সূত্র আরো জানায়, মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও বিশেষায়িত হাসপাতাল ছাড়া আড়াই শ’ শয্যার যেসব হাসপাতালে অক্সিজেন ট্যাঙ্ক বসানো হচ্ছে সেগুলোর মধ্যে রয়েছে সরকারি কর্মচারী হাসপাতাল, কক্সবাজার জেলা হাসপাতাল, গোপালগঞ্জ জেলা হাসপাতাল, মানিকগঞ্জ জেলা হাসপাতাল, মুন্সীগঞ্জ জেলা হাসপাতাল, জামালপুর জেলা হাসপাতাল, হবিগঞ্জ জেলা হাসপাতাল, শেরপুর জেলা হাসপাতাল, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা হাসপাতাল, সুনামগঞ্জ জেলা হাসপাতাল, নীলফামারী জেলা হাসপাতাল, বাগেরহাট জেলা হাসপাতাল, বরগুনা জেলা হাসপাতাল, চুয়াডাঙ্গা জেলা হাসপাতাল, ভোলা জেলা হাসপাতাল, মাগুরা জেলা হাসপাতাল, খুলনা জেনারেল হাসপাতাল, টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতাল, কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল, বগুড়া মোহাম্মদ আলী জেনারেল হাসপাতাল, গাইবান্ধা জেনারেল হাসপাতাল, দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতাল, ঠাকুরগাঁও জেনারেল হাসপাতাল ও বরিশাল জেনারেল হাসপাতাল। তাছাড়াও ১০০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালগুলো হলো- রাজবাড়ী, নারায়ণগঞ্জ, ফরিদপুর, পিরোজপুর, নড়াইল, ল²ীপুর, বান্দরবান, খাগড়াছড়ি, কুমিল্লাহ, ঝালকাঠি, ঝিনাইদহ এবং লালমনিরহাট। তাছাড়া ইউনিসেফের সহযোগিতায় আরো ৩০টি হাসপাতালে গ্যাস পাইপলাইন ও অক্সিজেন ট্যাঙ্ক বসানো হচ্ছে। সেগুলো হলো পটুয়াখালী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, চাঁদপুর, ফেনী, নেয়াখালী, রাঙ্গামাটি, নরসিংদী, শরীয়তপুর, যশোর, সাতক্ষীরা, নেত্রকোনা, জয়পুরহাট, নওগাঁ, কুড়িগ্রাম, পঞ্চগড়, মৌলভীবাজার, সুনামগঞ্জ জেলা সদর হাসপাতাল। পাবনা ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতাল এবং খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল। এ বিষয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, অক্সিজেন প্রয়োজন হয় এমন করোনা রোগীর সংখ্যা খুবই কম। দেশের অধিকাংশ হাসপাতালে কেন্ত্রীয় ভাবে অক্সিজেন সরবরাহের সুযোগ নেই। যেসব হাসপাতালে তরল অক্সিজেন ট্যাঙ্ক এখনো স্থাপন করা হয়নি, সেসব হাসপাতালে জরুরি ভিত্তিতে তরল অক্সিজেন ট্যাঙ্ক স্থাপন করা হচ্ছে। ভবিষ্যতে নতুন যেসব হাসপাতাল গড়ে তোলা হবে, সেখানে শুরু থেকেই যাতে ওসব জরুরি বিষয় সংযুক্ত রাখা হয় সে উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। প্রখ্যাত চিকিৎসক ইকবাল আর্সলান বলেন, এটিই আমাদের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার মারাত্মক চিত্রায়ন। আমরা স্বাস্থ্য খাতে উন্নতির কথা শুনি, কিন্তু এই চিত্র এখন উন্নতি নিয়ে প্রশ্ন তুলে ধরছে। তিনি আরো বলেন, মহামারী শুরু হওয়ার পরে, আমরা স্বাস্থ্য অধিদফতরকে সঙ্কট এড়াতে প্রতিটি হাসপাতালে কমপক্ষে পাঁচটি অক্সিজেন কনসেনট্রেটর রাখার পরামর্শ দিয়েছিলাম। মনে হচ্ছে আমাদের পরামর্শ তেন একটা লক্ষ্যমাত্রা দেখা যায়নি। তবে এটা সত্য যে অনেক দিন পরে হলেও সরকারের শুভ বুদ্ধির উদয় হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com